গহরকে চেয়ারম্যান পদ থেকে সরাল ইমরানের দল পিটিআই

পিটিআইয়ের পরবর্তী চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ব্যারিস্টার আলি জাফরের নাম ঘোষণার পর গহরকে সরানোর এ ঘোষণা এল।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 23 Feb 2024, 03:51 PM
Updated : 23 Feb 2024, 03:51 PM

সন্তোষজনক কাজ করতে না পারায় পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) এর চেয়ারম্যান পদ থেকে সরানো হয়েছে ব্যারিস্টার গহর আলি খানকে।

পিটিআই নেতা শের আফজাল মারওয়াত শুক্রবার একথা জানিয়েছেন বলে খবর দিয়েছে পাকিস্তানের জিও নিউজ।

পাকিস্তানের কারান্তরীণ সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল পিটিআইয়ের পরবর্তী চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ব্যারিস্টার আলি জাফরের নাম ঘোষণা করার একদিন পর, গহরকে সরানোর এ ঘোষণা এল। আগামী ৩ মার্চ পিটিআইয়ের অন্তর্দলীয় নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে।

পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশন (ইসিপি) ও সুপ্রিম কোর্ট পিটিআইয়ের অভ্যন্তরীণ নির্বাচন বেআইনি ঘোষণা করা এবং দলীয় প্রতীক ক্রিকেট ব্যাট কেড়ে নেওয়ার পর এক মাসেরও বেশি সময় ধরে দলটির শীর্ষ পদটি শূন্য ছিল।

গহর গতবছর ২ ডিসেম্বরে পিটিআইয়ের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। পরে পিটিআইয়ের অভ্যন্তরীণ নির্বাচন বেআইনি ঘোষিত হলে গহরেরও চেয়ারম্যান পদ চলে যায়। তবে পেশওয়ার হাই কোর্ট ২৬ ডিসেম্বরে গহরকে এই পদ থেকে অপসারণের আদেশ স্থগিত করেছিল।

আর এখন নতুন করে পিটিআই এর অন্তর্দলীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের আগে দল তার জায়গায় অন্য জনকে বেছে নিয়েছে।

জিও নিউজকে পিটিআই নেতা মারওয়াত বলেন, “অদক্ষতা ও দুর্বল পারফরম্যান্সই গহরকে চেয়ারম্যান পদ থেকে সরানোর প্রধান কারণ। তিনি একজন ভদ্রলোক, কিন্তু তার কর্মদক্ষতা সন্তোষজনক ছিল না।”

মারওয়াত আরও বলেন, “গহর কর্মীদের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেননি। দলের অফিস চালাতে হলে সব সময় সক্রিয় থাকতে হয়, কিন্তু তিনি তা করতে পারেননি। নির্বাচনী ফলের পর, দলীয় নেতৃত্বের দৃষ্টিভঙ্গি প্রশংসনীয় ছিল না।  নির্বাচনের পরে যেভাবে দলের নেতৃত্ব দেওয়া উচিত ছিল গহর তা পারেননি।”

পিটিআইয়ের মুখপাত্র রউফ হাসান এর আগে চেয়ারম্যান, কেন্দ্রীয় ও প্রাদেশিক পর্যায়ের নেতা ঠিক করতে গত পাঁচ ফেব্রুয়ারিতে অন্তর্দলীয় নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছিলেন। কিন্তু পরে তা স্থগিত করা হয়।

নির্বাচনের জন্য এখন মনোনয়নপত্রের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারিতে ঘোষণা করবে পিটিআই। আর ৩ মার্চ দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের পাশাপাশি প্রাদেশিক সচিবালয়গুলোতে ভোট অনুষ্ঠিত হবে।