গাজায় ত্রাণকাজ স্থগিত করছে ডব্লিউসিকে

সোমবার গাজার মধ্যাংশের দাইর আল বালাহ এলাকায় ইসরায়েলের হামলায় ডব্লিউসিকে’র কর্মীরা নিহত হয়।

নিউজ ডেস্ক
Published : 2 April 2024, 02:16 PM
Updated : 2 April 2024, 02:16 PM

ইসরায়েলি বিমান হামলায় সাত কর্মী নিহত হওয়ার পর গাজায় ত্রাণ কাজ স্থগিত করছে দাতব্য সংস্থা ওয়ার্ল্ড সেন্ট্রাল কিচেন (ডব্লিউসিকে)। শিগগিরই তাদের কাজের ভবিষ্যৎ নিয়ে তারা সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানিয়েছে।

সোমবার গাজার মধ্যাংশের দাইর আল বালাহ এলাকায় ইসরায়েলের হামলায় ডব্লিউসিকে’র কর্মীরা নিহত হয়।

সংস্থাটি বলছে, দাইর আল বালার একটি গুদাম থেকে চলে যাওয়ার সময় ত্রাণবাহী গাড়িবহরে হামলায় কর্মীরা নিহত হয়েছে। তারা সমুদ্রপথে গাজায় নেওয়া ১০০ টনের বেশি খাবার ওই গুদামে রেখে আসতে গিয়েছিল।

ত্রাণবাহী গাড়িবহরে ছিল তিনটি গাড়ি। এর মধ্যে দুটি ছিল অস্ত্রসজ্জিত। তিনটি গাড়িতেই হামলা হয়েছে।

ডব্লিউসিকে বলছে, ত্রাণবাহী এই গাড়িবহর যাতায়াতের বিষয়ে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষাবাহিনী আইডিএফ-কে আগে থেকেই জানিয়ে রেখেছিল তারা।

ফিলিস্তিনের এক চিকিৎসাকর্মী বিবিসি-কে বলেছেন, ত্রাণকর্মীরা ডব্লিউসিকে’র লোগো লাগানো বুলেট প্রূফ জ্যাকেট পরে ছিল।

ফিলিস্তিনের রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি বলেছে, তারা হামলার পর কয়েকঘন্টার চ্যালেঞ্জিং এক অভিযানে ঘটনাস্থল থেকে ৭ টি মৃতদেহ উদ্ধার করেছে।

গাজায় ডব্লিউসিকে’র কার্যক্রম গুরুত্বপূর্ণ। গাজায় অতীব জরুরি ত্রাণ সরবরাহের ক্ষেত্রে প্রধান সংস্থাগুলোর মধ্যে এটি অন্যতম। মার্চে প্রথম সমুদ্রপথে গাজায় ১০০ টনেরও বেশি ত্রাণ সরবরাহ করে সংস্থাটি খবরের শিরোনাম হয়েছিল।

সম্প্রতি এক বিবৃতিতে ডব্লিউসিকে বলেছিল, তারা অক্টোবর থেকে গাজায় ৪২ মিলিয়ন টনেরও বেশি খাবার সরবরাহ করেছে এবং আরও ১০ লাখ টন খাবার সরবরাহ করতে প্রস্তুত।

ডব্লিউসিকে’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এক বিবৃতিতে বলেছেন, “মানুষের মুখে খাবার তুলে দিতে ভালবাসে এমন চমৎকার কয়েকটি জীবন হারিয়েছে ওয়াল্ড সেন্ট্রাল কিচেন এবং বিশ্ব। এ ঘটনায় আমি মর্মাহত, হতভম্ব।”

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু স্বীকার করেছেন যে, ইসরায়েলি বাহিনী নিরীহ মানুষের ওপর হামলা করেছে। মঙ্গলবার এক ভিডিও বার্তায় নেতানিয়াহু এই স্বীকারোক্তি দেন।

তিনি বলেন, দুর্ভাগ্যজনকভাবে, “গত ২৪ ঘণ্টায় আমাদের বাহিনী অনিচ্ছাকৃতভাবে গাজায় নিরীহ মানুষের ওপর মর্মান্তিক আঘাত হেনেছে। যুদ্ধে এরকম ঘটে যায়।

“আমরা বিষয়টি শেষ পর্যন্ত খতিয়ে দেখব। আমরা বিভিন্ন দেশের সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি। এমন ঘটনা যাতে আবার না ঘটে সেজন্য আমরা সবকিছু করব,” বলেন নেতানিয়াহু।