যুক্তরাষ্ট্রে মধ্যবর্তী নির্বাচনের দু’দিনের মাথায়ও চূড়ান্ত ফল অস্পষ্ট

মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদে রিপাবলিকানরা ধীরগতিতে সংখ্যাগরিষ্ঠতার দিকে এগুচ্ছে। ওদিকে, সেনেটের নিয়ন্ত্রণ কাদের হাতে যাচ্ছে সে সিদ্ধান্ত এখনও ঝুলে আছে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 10 Nov 2022, 04:29 PM
Updated : 10 Nov 2022, 04:29 PM

যুক্তরাষ্ট্রে নির্বাচনে ভোট গ্রহণের প্রায় দু’দিন পরও চূড়ান্ত ফল স্পষ্ট হয়নি। কংগ্রেসের নিয়ন্ত্রণ কাদের হাতে যাচ্ছে সে ফয়সালা এখনও ঝুলে আছে।

সেনেটের নিয়ন্ত্রণ কাদের হাতে যাচ্ছে তা এখন ঝুলছে জর্জিয়া, নেভাডা ও অ্যারিজোনা অঙ্গরাজ্যের ভোটের ফলের ওপর। এর মধ্যে আবার জর্জিয়ার সেনেট আসনের নির্বাচন রানঅফ ভোটে যাচ্ছে। ৬ ডিসেম্বরে সেখানে অনুষ্ঠিত হবে এই দ্বিতীয় দফা ভোট।

আর ওদিকে, প্রতিনিধি পরিষদে (হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভস) রিপাবলিকানরা ধীরে ধীরে সংখ্যাগরিষ্ঠতার দিকে এগিয়ে চলেছে।

চূড়ান্ত ফল আসতে এই দীর্ঘসূত্রিতাকে বরাবরই স্বাভাবিক বলে বর্ণনা করে আসছেন নির্বাচনী কর্মকর্তারা। প্রার্থীদের মধ্যে কম ভোটের ব্যবধান, দুবার ভোট গণনার প্রয়োজন পড়া এবং হাড্ডাহাড্ডি প্রতিদ্বন্দ্বিতার নির্বাচনের কারণে ফল পেতে এমন দেরি। তাছাড়া, বিভিন্ন রাজ্যে ডাকযোগে ব্যালট কীভাবে এবং কখন গণনা করা হবে তার নিয়মেও ভিন্নতা আছে।

বিবিসি জানায়, তাদের অংশীদার সিবিএস নিউজ বৃহস্পতিবার সকালে জানিয়েছে, প্রতিনিধি পরিষদ রিপাবলিকানদের দিকে ঝুঁকে যাচ্ছে। রিপাবলিকানরা এখন পর্যন্ত প্রতিনিধি পরিষদে ২১০ টি আসন নিশ্চিত করেছে। আর ডেমোক্র্যাটরা পেয়েছে ২০০’র কাছাকাছি আসন। সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে প্রয়োজন ২১৮ ভোট।

ওদিকে, সেনেটের ভোটের হিসাবে সিবিএস বলছে, অ্যারিজোনায় ডেমোক্র্যাটদের পাল্লাই ভারি হচ্ছে। আর নেভাডা রিপাবলিকানদের দিকে যেতে পারে। তাই সেনেটের নিয়ন্ত্রণ কোন দলের হাতে যাচ্ছে সেটি অনেকটা অনিশ্চিত। এই দুই রাজ্যে যে কোনও দলই খুবই সামান্য ভোটের ব্যবধানে জিতে নিতে পারে সেনেট।

অন্যদিকে, আলাস্কার সেনেট নির্বাচনেও কোন প্রার্থী জয়ী হবেন সেটি পরিস্কার নয়। সেখানে ভোট র‌্যাঙ্কড চয়েস রান অফ ভোটের দিকে যেতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। যদিও সিবিএস নিউজ বলছে, সেখানে জয় রিপাবলিকান প্রার্থীরই হবে। কারণ, দু’জন রিপাবলিকান প্রার্থী এগিয়ে রয়েছেন।

অ্যারিজোনায় বুধবার রাতেও হাজারো ব্যালট গণনা বাকি রয়ে গেছে। কর্মকর্তারা বলছেন, সেখানে চূড়ান্ত ভোট গণনা হতে আগামী সপ্তাহের প্রথম দিক পর্যন্ত সময় লেগে যেতে পারে।

এবারের ভোটের যে ফল আসছে তা দেখে মনে হচ্ছে, ভোটাররা যেমন উচ্চ মুদ্রাস্ফীতির জন্য প্রেসিডেন্ট বাইডেনের ডেমোক্র্যাটিক দলকে শাস্তি দিচ্ছে, তেমনি গর্ভপাত নিষিদ্ধের জন্য রিপাবলিকানদেরকেও শাস্তি দিচ্ছে।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন অবশ্য এ নির্বাচনকে ‘আমেরিকার গণতন্ত্রের জন্য শুভ দিন’ আখ্যা দিয়েছেন। নির্বাচনপূর্ব জনমত জরিপগুলোতে রিপাবলিকানদের বিপুল জয়ের ‘লাল ঢেউ’ দেখা যাবে বলে যে আলামত পাওয়া যাচ্ছিল, তেমনটি না হওয়াতেই বেশ খুশি বাইডেন।

এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, “আমি মনে করি ভোটে আমেরিকার জনগণ এটি পরিষ্কার দিয়েছে যে, তারা রিপাবলিকানদেরকেও আমার সঙ্গে কাজ করতে প্রস্তুত দেখতে চায়।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক