ইস্তাম্বুলে নাইটক্লাবে অগ্নিকাণ্ডে নিহত ২৯

ক্লাবটি থেকে বের হওয়ার দরজা মাত্র একটি হওয়ায় ভেতরে অনেকে আটকা পড়েন, তাদের অধিকাংশই ধোঁয়ার বিষক্রিয়ায় মারা যান। 

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 April 2024, 06:41 AM
Updated : 3 April 2024, 06:41 AM

তুরস্কের বৃহত্তম শহর ইস্তাম্বুলের একটি নৈশক্লাবে দিনের বেলা সংস্কার কাজ চলার সময় অগ্নিকাণ্ডে অন্তত ২৯ জন নিহত হয়েছে। 

মঙ্গলবার ভূগর্ভস্থ মাস্করেড নৈশক্লাবে এ ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। এর জন্য সংস্কার কাজ চলার সময় দুর্ঘটনাকে দায়ী করেছে তারা।

রয়টার্স জানিয়েছে, একটি ১৬তলা আবাসিক ভবনের বেসমেন্টের দু’টি তলায় অবস্থিত ক্লাবটির পুড়ে যাওয়া ও ধোঁয়ায় ভরা প্রবেশপথটি পানিতে ভিজিয়ে দিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন দমকলকর্মীরা। এরপর চিকিৎসা কর্মীরা হতাহতের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান।    

এর আগে গণমাধ্যমের আসা ভিডিও ফুটেজে ভবনটির তিনতলা পর্যন্ত আগুন উঠে যেতে দেখা যায়।

সিএনএন তুর্ক জানিয়েছে,নৈশক্লাবটির সজ্জা সংস্কার ও শব্দ নিরোধকের কাজ চলার সময় একটি বিস্ফোরণ থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। চারদিকে দাহ্য ফাইবার উপকরণ থাকায় আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। ক্লাবটি থেকে বের হওয়ার দরজা মাত্র একটি হওয়ায় ভেতরে অনেকে আটকা পড়েন আর তাদের অধিকাংশই ধোঁয়ার বিষক্রিয়ায় মারা যান।

ইস্তাম্বুলের গভর্নর দপ্তর জানিয়েছে, গাইরেততেপে এলাকার নৈশক্লাবটিতে স্থানীয় সময় দুপুর ১২টা ৪৭ মিনিটে আগুনের সূত্রপাত হয়। এ ঘটনায় শুরু হওয়া তদন্তের অংশ হিসেবে আটজনকে আটক করা হয়েছে।

রোববার পুননির্বাচিত হওয়া ইস্তাম্বুলের মেয়র ইকরাম উমামোলু ওই ভবনটির সামনে দাঁড়িয়ে সাংবাদিকদের বলেছেন, নৈশক্লাবটির সংস্কার কাজ করা জন্য বা সেখানে নির্মাণ কাজ করার জন্য কোনো অনুমতির আবেদন জানানো হয়নি। আর সেখানে যে সংস্কার কাজ চলছিল তা সামনের রাস্তা থেকে দেখা যাচ্ছিল না।

মাস্করেড নৈশক্লাবের ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্যে দেখা গেছে, সংস্কার কাজের জন্য তারা ১০ মার্চ থেকে ১০ এপ্রিল পর্যন্ত ক্লাবটি বন্ধ থাকবে বলে এক ঘোষণায় জানিয়েছিল।

ক্লাবটি প্রতি সপ্তাহে সর্বোচ্চ চার হাজার মানুষ নিয়ে ডিজে পারফরম্যান্স ও স্টেজ শো করতে পারে বলে ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্যে জানিয়েছে। রয়টার্স তাৎক্ষণিকভাবে ক্লাবটির কোনো প্রতিনিধির সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেনি। 

কর্তৃপক্ষ পরবর্তী সতর্কতা হিসেবে ওই এলাকার পানি, বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংযোগ বন্ধ করে দিয়ে ভবনটির বাসিন্দাদের সরিয়ে নিয়েছে।