আল-শিফা হাসপাতালকে ধ্বংসস্তূপে পরিণত করেছে ইসরায়েল

প্রত্যক্ষদর্শীরা গত ১৮ মার্চ ভোররাত থেকে ইসরায়েলি ট্যাংক হাসপাতালটি ঘিরে ফেলার এবং ভারি গোলাগুলির আওয়াজ পাওয়ার কথা জানিয়েছে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 1 April 2024, 10:00 AM
Updated : 1 April 2024, 10:00 AM

দুই সপ্তাহ ধরে আল-শিফা হাসপাতাল প্রাঙ্গনের ভেতর অভিযান চালানোর পর সেটি ছেড়ে গেছে ইসরায়েলি বাহিনী। কিন্তু চলে যাওয়ার আগে গাজার সবচেয়ে বড় এই হাসপাতালটিকে তারা ধ্বংসস্তূপে পরিণত করে রেখে গেছে।

ইসরায়েলি প্রতিরক্ষা বাহিনী (আইডিএফ) দাবি করেছে, হাসপাতাল প্রাঙ্গনে তারা ‘অনেক সন্ত্রাসীকে হত্যা করেছে’ এবং ‘অসংখ্য অস্ত্র এবং গোয়েন্দা নথিপত্র’ পেয়েছে।

“গোয়েন্দা তথ্যে আমরা জানতে পেরেছিলাম আল-শিফা হাসপাতালকে হামাস তাদের একটি ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার করছে এবং সেখান থেকে হামলা পরিচালনা করছে। যে কারণে আমরা সেখানে অভিযান চালিয়েছি।”

গাজায় ফিলিস্তিনিদের সশস্ত্র সংগঠন হামাস আল-শিফা প্রাঙ্গন কে তাদের একটি ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহারের অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

গত কয়েকদিন ধরে আল-শিফা হাসপাতাল ঘিরে ভারি গোলাগুলি ও লড়াইয়ের খবর পাওয়া যাচ্ছিল।

সোমবার ইসরায়েলি বাহিনী আল-শিফা প্রাঙ্গন ছেড়ে যায়। এরপর আইডিএফ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, “সৈন্যদল আল-শিফা হাসপাতাল এলাকায় সুনির্দিষ্ট অভিযান পরিচালনা করেছে এবং অভিযান শেষ করে ওই এলাকা থেকে বেরিয়ে গেছে।

“সৈন্যরা হাসপাতাল প্রাঙ্গনে মুখোমুখি লড়াইয়ে সন্ত্রাসীদের হত্যা করেছে, অসংখ্য অস্ত্র এবং গোয়েন্দা তথ্যের নথিপত্র খুঁজে পেয়েছে। হাসপাতাল জুড়ে অভিযান চালানোর সময় সৈন্যরা বেসামরিক ফিলিস্তিনি, রোগী এবং চিকিৎসাকর্মীদের যাতে কোনো ক্ষতি না হয় তার সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছে। ”

যদিও ফিলিস্তিনি সংবাদ মাধ্যমগুলোতে প্রত্যক্ষদর্শী ও গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে হাসপাতাল প্রাঙ্গনে অনেক অনেক মৃতদেহ পড়ে থাকার খবর প্রকাশ করা হয়েছে।

বিবিসি স্বাধীনভাবে ওই সব খবরের সত্যতা যাচাই করতে পারেনি।

তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলেছে, গত দুই সপ্তাহে আল-শিফা হাসপাতালে অন্তত ২১ জন রোগী মারা গেছেন। আর ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, হাসপাতালটিতে অভিযান চালিয়ে দুই শতাধিক ‘সন্ত্রাসীকে’ হত্যা করা হয়েছে।

আইডিএফ যখন প্রথম আল-শিফায় অভিযান চালানোর ঘোষণা দেয় তখন তাদের প্রধান মুখপাত্র ড্যানিয়াল হাগারি বলেছিলেন, “হামাস সন্ত্রাসীরা আল-শিফা হাসপাতালের ভেতর পুনরায় একত্রিত হচ্ছে।”

প্রত্যক্ষদর্শীরা গত ১৮ মার্চ ভোররাত থেকে ইসরায়েলি ট্যাংক হাসপাতালটি ঘিরে ফেলার এবং ভারি গোলাগুলির আওয়াজ পাওয়ার কথা জানান।

গাজা যুদ্ধের শুরুর দিকেও একবার আল-শিফা হাসপাতালে অভিযান চালিয়েছিল আইডিএফ। সে সময় তারা বলেছিল, তাদের হাতে খবর রয়েছে যে ইসরায়েল থেকে ধরে নিয়ে যাওয়া জিম্মিদের হাসপাতালটির ভেতরে আটকে রাখা হয়েছে।

ইসরায়েল দীর্ঘদিন ধরে অভিযোগ করে আসছে যে, হামাস নিজেদের আড়াল করে অভিযান পরিচালনা করতে গাজার বেসামরিক স্থাপনাগুলোকে ব্যবহার করছে। যে অভিযোগ অস্বীকার করেছে হামাস।