ব্রিটিশ-ইরানি নাগরিকের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের প্রস্তুতি নিচ্ছে ইরান, বলছে পরিবার

দ্বৈত নাগরিক আলিরেজা আকবরি ইরানের সাবেক উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী।যুক্তরাজ্যের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 12 Jan 2023, 02:58 PM
Updated : 12 Jan 2023, 02:58 PM

ইরান দ্বৈত এক ব্রিটিশ-ইরানি নাগরিকের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের প্রস্তুতি নিচ্ছে। ওই নাগরিকের পরিবার বিবিসি-র পার্সি সার্ভিসকে এমন কথা জানিয়েছে।

মৃত্যুদণ্ড হওয়া এই নাগরিকের নাম আলিরেজা আকবরি। তার স্ত্রী মরিয়ম জানান, কর্তৃপক্ষ আলিরেজার সঙ্গে শেষ দেখা করার জন্য পরিবারকে কারাগারে যেতে বলেছে। ইতোমধ্যে তাকে নির্জন কারাকক্ষে স্থানান্তর করা হয়েছে।

আলিরেজা ইরানের উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী ছিলেন। ২০১৯ সালে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।আলিরেজাকে যুক্তরাজ্যের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করেছে ইরান।

তবে তিনি এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।আলিরেজার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর বন্ধ করা এবং অবিলম্বে তাকে মুক্তি দিতে ইরানকে আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাজ্য।

ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেমস ক্লেভারলি এক টুইটে বলেছেন, “এ এক বর্বর শাসকগোষ্ঠীর রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত কর্মকাণ্ড। তারা মানুষের জীবনের কোনও তোয়াক্কা করে না।”

এর আগে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বিবিসি-কে বলেছিলেন, তারা আলিরেজার পরিবারকে সমর্থন দিয়ে আসছেন। তারা বারবার ইরান কর্তৃপক্ষের কাছে আলিরেজার প্রসঙ্গ তুলেছেন।

আলিরেজাকে জরুরি কনস্যুলার–সুবিধা দিতে ইরান কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করেছিল ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়। কিন্তু ইরান সরকার ইরানিদের দ্বৈত নাগরিকত্বকে স্বীকৃতি দেয় না।

বিবিসির পার্সি সার্ভিস বুধবার আলিরেজার কাছ থেকে পাওয়া একটি অডিও বার্তা প্রচার করেছে। এতে তিনি বলেছেন, তাকে নির্যাতন করে ক্যামেরার সামনে অপরাধের স্বীকারোক্তি করতে বাধ্য করা হয়েছিল, যে অপরাধ তিনি করেননি।

আলিরেজা বলেন, তিনি কয়েক বছর আগে বিদেশে ছিলেন। সে সময় বিশ্বের শক্তিধর দেশগুলোর সঙ্গে ইরানের পারমাণবিক আলোচনায় জড়িত এক শীর্ষ ইরানি কূটনীতিক তাকে ইরান সফর করার আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। তিনি ইরানে যাওয়ার পরই তার বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগ আনা হয়।

ইরানের সাবেক সংস্কারবাদী প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ খাতামির আমলে আলিরেজা দেশটির উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী ছিলেন। ১৯৯৭ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত দুই মেয়াদে ইরানের প্রেসিডেন্ট ছিলেন খাতামি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক