গ্রুপ কলে যোগ দেওয়ার লিংক ভিত্তিক ফিচার হোয়াটসঅ্যাপে

ফিচারের ঘোষণা দিয়েছেন মেটা প্রধান মার্ক জাকারবার্গ। কেবল ‘একটি চাপের মাধ্যমে’ কোনো কলের লিংক শেয়ার করতে পারবেন হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারী।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 Sept 2022, 12:57 PM
Updated : 29 Sept 2022, 12:57 PM

হোয়াটসঅ্যাপ এমন এক নতুন ফিচার আনছে, যা ব্যবহারকারীকে কেবল একটি লিংকে ক্লিক করার মাধ্যমে কলে যুক্ত হওয়ার সুবিধা দেবে। পাশাপাশি গ্রুপ কলে অংশগ্রহনকারীর সংখ্যা বাড়িয়ে ৩২জনে নিচ্ছে মেটা মালিকানাধীন মেসেজিং সেবাটি।

‘কল লিংকস’ ফিচারটি হোয়াটসঅ্যাপে চালু হবে এ সপ্তাহে। ‘কলস’ ট্যাবের ওপরে থাকা একটি ব্যানারের মাধ্যমে প্রবেশ করা যাবে এতে। কল লিংকস ফিচার চালাতে ব্যবহারকারীর ডিভাইসে অ্যাপটির সর্বশেষ সংস্করণ থাকতে হবে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট ভার্জ।

ফেইসবুকে এই ফিচারের ঘোষণা দিয়েছেন মেটা প্রধান মার্ক জাকারবার্গ, যেখানে কেবল ‘একটি চাপের মাধ্যমে’ কোনো কলের লিংক শেয়ার করতে পারবেন হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীরা।

সর্বোচ্চ ৩২ জন ব্যবহারকারীকে কল লিংক শেয়ারের সক্ষমতার ইঙ্গিত মিলেছিল গেল এপ্রিলেই, ‘কমিউনিটিস’ নামে আরেকটি আসন্ন ফিচার ঘোষণার সময়। বর্তমানে অ্যাপের বেটা সংস্করণে মিলছে ফিচারটি।

অডিও ও ভিডিও কল, দুটোই সমর্থন করবে কল লিংকস। এ ছাড়া, জাকারবার্গ নিশ্চিত করেছেন, সর্বোচ্চ ৩২ জন পর্যন্ত গ্রুপ কলের সুবিধা দিতে ‘এনক্রিপ্টেড ভিডিও কলিং’ নিয়ে পরীক্ষা চলছে। এখন ভিডিও কলে আটজন পর্যন্ত ব্যবহারকারী রাখার সুবিধা দেয় হোয়াটসঅ্যাপ।

ভার্জের প্রতিবেদন অনুযায়ী, সেবায় ‘কল ক্যাপাসিটি’ বাড়ানো হোয়াটসঅ্যাপকে দাঁড় করাবে গুগল মিট, মাইক্রোসফট টিমস বা জুমের মতো সেবার প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে। এই সব প্রতিদ্বন্দ্বী সেবায় অংশগ্রহনকারীর সর্বোচ্চ সংখ্যাটি অনেক বেশি (গুগল ও মাইক্রোসফটের ক্ষেত্রে ১০০ জন ও জুমের ক্ষেত্রে ৩০০ জন)।

তবে, ওই সব সেবায় বিনামূল্যের অ্যাকাউন্টে কলের দৈর্ঘ্য সীমিত থাকার মতো বেশ কিছু সীমাবদ্ধতা রয়েছে। পাশাপাশি, এরইমধ্যে হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজিং সেবার শতকোটি ব্যবহারকারীর কাছেও সম্ভবত প্রথম পছন্দ হিসেবে বিবেচিত হবে না এগুলো।

কলের দৈর্ঘ্য নিয়ে কোনো সীমাবদ্ধতার কথা উল্লেখ করেনি হোয়াটসঅ্যাপ। ফলে, ফিচারটি চালু হলে তুলনামূলক ছোট দল ও বিভিন্ন ব্যক্তিগত নেটওয়ার্কের কাছে সেরা ভিডিও কলিং অ্যাপ্লিকেশনগুলোর একটি হিসেবে জায়গা করে নিতে পারে এটি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক