দায়িত্ব ছাড়ার ঘোষণা দিয়ে মুক্তির আনন্দ পাচ্ছেন বার্সেলোনা কোচ

বার্সেলোনায় কোচকে মূল্য দেওয়া হয় না, গুরুতর অভিযোগ তুললেন শাভি এর্নান্দেস।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 31 Jan 2024, 05:38 AM
Updated : 31 Jan 2024, 05:38 AM

বুক থেকে জগদ্দল পাথর যেন সরে গেছে কিংবা নেমে গেছে বিষম ভার। শাভি এর্নান্দেসের কথায় অন্তত এরকমই প্রকাশ। বার্সেলোনা কোচের দায়িত্ব কতটা চাপের, সেটিই যেন ফুটে উঠছে তার কণ্ঠে আর অভিব্যক্তিতে। তার অভিযোগ, প্রতিটি মুহূর্তে কোচের প্রাণ ওষ্ঠাগত করে তোলার আয়োজন চলে এই ক্লাবে। দায়িত্ব ছাড়ার ঘোষণা দিয়ে তাই একরকম স্বাধীনতার স্বাদ পাচ্ছেন তিনি। 

চলতি মৌসুমে বার্সেলোনার পড়তি পারফরম্যান্স নিয়ে নানা আলোচনা-সমালোচনার মধ্যেই সম্প্রতি হুট করে শাভি ঘোষণা দেন, মৌসুম শেষেই ক্লাবের দায়িত্ব ছাড়বেন তিনি। তার কোচিংয়ের ধরন নিয়ে বা দলের ভেতর অসন্তোষের গুঞ্জন নিয়ে কিছু খবর প্রকাশিত হয়েছে বটে। তবে সত্যিকার অর্থে তার চাকরি হুমকিতে পড়ার কোনো ইঙ্গিত ছিল না। মৌসুম শেষের এত দিন আগেই চাকরি ছাড়ার ঘোষণা দেওয়াটা তাই চমকে দিয়েছে অনেককেই। 

বিদায়ের ঘোষণা দেওয়ার সময়ই অবশ্য শাভি ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, ক্লাব ম্যানেজমেন্টের বিভিন্ন আচরণের কারণেই তার এমন সিদ্ধান্ত। এবার লা লিগায় ওসাসুনার বিপক্ষে ম্যাচের আগে মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে তিনি সরাসরিই বললেন, বার্সেলোনায় সব কোচের প্রতিই দৃষ্টিভঙ্গি কতটা রূঢ়।

“তারা আপনাকে এমন অনুভূতি দেবে যে, প্রতিটি মূহূর্তে এখানে আপনার কোনো মূল্য নেই। সব কোচের ক্ষেত্রেই এটা হয়েছে। পেপ (গুয়ার্দিওলা) এটা বলেছে আমাকে, এর্নেস্তো (ভালভের্দে) বলেছে আমাকে… লুইস এনরিকের ক্ষেত্রে তো এখানে থেকে আমি নিজের চোখেই দেখেছি।” 

শাভির মতে, দায়িত্বের চাপে এখানে মাঠের বাইরের জীবনও ক্রমাগত পিষ্ট হতে থাকে। এজন্যই ক্লাব ছাড়ার ঘোষণা দিয়ে এখন দারুণ ফুরফুরে মেজাজে আছেন তিনি।

“আমার মনে হয়, এই ক্লাবে কোচদের কাছে চাহিদার ক্ষেত্রে বড় একটি সমস্যা আছে। প্রথমত, এই দায়িত্ব এখানে উপভোগ করার উপায় থাকে না। খুব ভালো জীবন কাটানো যায় না এখানে। মনে হয় যে, প্রতিটি মুহূর্তেই যেন জীবন-মরণের ব্যাপার। অন্য কোনো ক্লাবে এরকম হয় না।”

“এই ঘোষণা দেওয়ার পর ব্যক্তিগতভাবে আমি মুক্তির আনন্দ পাচ্ছি। তবে এখনও আমি দারুণভাবে উজ্জীবিত।” 

শাভির কোচিংয়ে গত মৌসুমে লা লিগার শিরোপা জয় করা বার্সেলোনা এবার এখন পর্যন্ত পয়েন্ট তালিকায় আছে চার নম্বরে। শীর্ষে থাকা জিরোনার চেয়ে ১১ পয়েন্ট পেছনে আছে তারা এক ম্যাচ কম খেলে।