শাখতারকে হারিয়ে জয়রথেই বার্সেলোনা

দ্বিতীয়ার্ধে ব্যবধান কমিয়ে ম্যাচে কিছুটা উত্তেজনা ফেরালেও বার্সেলোনাকে আটকে রাখতে পারেনি শাখতার দোনেৎস্ক।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 25 Oct 2023, 06:50 PM
Updated : 25 Oct 2023, 06:50 PM

চোটজর্জর দল নিয়েও বলের নিয়ন্ত্রণ রেখে একের পর এক আক্রমণ শাণাল বার্সেলোনা। দুই গোলে প্রথমার্ধেই নিল ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ। বিরতির পর এক গোল শোধ করে শাখতার দোনেৎস্ক ম্যাচে উত্তেজনা ফেরাল বটে, কিন্তু আটকাতে পারল না বার্সেলোনাকে। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে জয়ের ধারায় থাকল শাভি এর্নান্দেসের দল।

কাম্প নউয়ে বুধবার ‘এইচ’ গ্রুপের ম্যাচে শাখতারকে ২-১ গোলে হারিয়েছে বার্সেলোনা। টানা তিন জয়ে ৯ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপে শীর্ষস্থান আরও শক্ত করেছে তারা।

চোটের থাবায় রবের্ত লেভানদোভস্কি, ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ংদের এই ম্যাচেও পায়নি বার্সেলোনা। শাভি আস্থা রেখেছিলেন তরুণদের ওপর। ফেরমিন লোপেস, লামিনে ইয়ামালের মতো তরুণরাই আবারও পথ দেখালেন দলকে।

অষ্টম মিনিটে প্রথম ভালো সুযোগটি তৈরি করে বার্সেলোনা। ওরিওল রোমেউয়ের স্লাইড পাস ধরে বডি ডজে এক ডিফেন্ডারকে ছিটকে দিয়ে শট নেন লোপেস। কোনোমতে পা বাড়িয়ে আটকান গোলরক্ষক।

২৪তম মিনিটে আবারও সুযোগ কড়া নাড়ে বার্সেলোনার দরজায়। এবার লোপেসের পাস ধরে বক্সে এক ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে শট নেন জোয়াও ফেলিক্স। কিন্তু শটে গতি না থাকায় বল আটকে যায় গোলরক্ষকের পায়ের ফাঁকে।

প্রতিপক্ষের রক্ষণে চাপ ধরে রেখে ২৮তম মিনিটে জালের দেখা পায় বার্সেলোনা। ইলকাই গিনদোয়ানের পাস বুক দিয়ে নামিয়ে লোপেস ভলি নিয়েছিলেন, কিন্তু বল পোস্টে লাগে। বক্সেই থাকা ফেররান তরেসের ফিরতি ভলি জালে জড়ায়। ভিএআর-এ দেখা যায়, অফসাইডে ছিলেন না লোপেস, এগিয়ে যাওয়ার আনন্দে মাতে বার্সেলোনা।

এগিয়ে যাওয়ার রেশ থাকতেই ব্যবধান দ্বিগুণ করে নেয় বার্সেলোনা। ৩৬তম মিনিটে তরেসের পাস ধরে একটু এগিয়ে শট নেন লোপেস। বল পোস্টের ভেতরের কানায় লেগে জড়ায় জালে।

চার মিনিট পর প্রতিপক্ষের ভুল পাসে আবার সুযোগ পায় বার্সেলোনা, কিন্তু ফেলিক্স তা কাজে লাগাতে পারেননি। তার শট প্রতিহত হওয়ার পর গিনদোয়ানের ফিরতি শটও হয় লক্ষ্যভ্রষ্ট।

দ্বিতীয়ার্ধেও শাখতারের রক্ষণে বারবার হানা দিতে থাকে বার্সেলোনা। তৈরি হতে থাকে গোলের সুযোগও। ফেলিক্সের দূরূহ কোণ থেকে নেওয়া হেড আটকান গোলরক্ষক। এরপর মার্কোস আলোনসোর ফ্রি কিক গোলরক্ষকের গ্লাভস গলে বেরিয়ে গেলেও সামনে থাকা তরেস পারেননি দরকারি টোকা দিতে।

৫৯তম মিনিটে কোনাকুনি শটে দূরের পোস্ট দিয়ে জালে বল পাঠালেও অফসাইডের কারণে গোল পাননি তরেস।

খেলার ধারার বিপরীতে ৬২তম মিনিটে পাল্টা আক্রমণে গোল করে শাখতার। একপেশে ম্যাচে তাতে উত্তেজনাও ফেরে। ইরাকলি আজারভির থ্র পাস অফসাইডের ফাঁদ ভেঙে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ঠাণ্ডা মাথায় ডান পায়ের শটে লক্ষ্যভেদ করেন হিওরহি সুদাকভ।

৬৯তম মিনিটে দূর্ভাগ্যের শিকার বার্সেলোনা। লোপেসের প্রথম প্রচেষ্টা পোস্ট কাঁপায়। এরপর আলোনসোর পাসে এই স্প্যানিশ মিডফিল্ডার দারুণ হেডে ঠিকানা খুঁজে নেন, তবে অফসাইডের কারণে হয়নি গোল।

প্রতিপক্ষের চাপ সামলে দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ে পাল্টা আক্রমণে ব্যবধান বাড়ানোর সুযোগ পায় বার্সেলোনা। কিন্তু গিনদোয়ানোর ক্রসে দূরের পোস্টে ঠিকঠাক পা ছোঁয়াতে পারেনি ইয়ামাল, তোরেসের কেউ।

তিন ম্যাচে দ্বিতীয় হারের তেতো স্বাদ পাওয়া শাখতার ৩ পয়েন্ট নিয়ে আছে তৃতীয় স্থানে।