দুর্নীতির অভিযোগে স্পেনে ফিরেই আটক রুবিয়ালেস

তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন স্প্যানিশ ফুটবল ফেডারেশনের (আরএফইএফ) সাবেক প্রেসিডেন্ট।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 April 2024, 01:48 PM
Updated : 3 April 2024, 01:48 PM

স্প্যানিশ সুপার কাপ স্পেন থেকে সৌদি আরবে আয়োজনের চুক্তিতে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। তদন্তের অংশ হিসেবে স্প্যানিশ ফুটবল ফেডারেশনের (আরএফইএফ) সাবেক প্রেসিডেন্ট লুইস রুবিয়ালেসকে আটক করেছে পুলিশ। 

গত ২১ মার্চ আরএফইএফ-এর সদর দপ্তরসহ গ্রানাডায় রুবিয়ালেসের অ্যাপার্টমেন্টে অভিযান চালানো হয়। ওই সময় ডোমিনিকান রিপাবলিকে ছিলেন তিনি। আগামী ৬ এপ্রিল (শনিবার) স্পেনে ফেরার কথা ছিল তার।    

কিন্তু এর দুই দিন আগেই বুধবার দেশে ফেরেন রুবিয়ালেস। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মাদ্রিদের বিমানবন্দরেই অপেক্ষায় ছিল পুলিশ। সেখান থেকেই তাকে আটক করা হয়। 

ইএসপিএনের খবর, স্পেনের রাজধানীতে পৌঁছানোর প্রায় এক ঘণ্টা পর পুলিশের সেন্ট্রাল অপারেশনাল ইউনিট ডিপার্টমেন্ট (ইউসিও) রুবিয়ালেসকে আরও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হেফাজতে নেয়।

স্পেন থেকে সুপার কাপ সৌদিতে নিয়ে রুবিয়ালেসের বিরুদ্ধে ব্যক্তিগতভাবে লাভবান হওয়ার যে অভিযোগ উঠেছে, তা অস্বীকার করেছেন তিনি। 

রুবিয়ালেস ও বার্সেলোনার সাবেক ডিফেন্ডার জেরার্ড পিকের প্রতিষ্ঠান কসমসের মধ্যস্থতায় স্পেন থেকে সুপার কাপ সরিয়ে নেওয়ার চুক্তিটি হয় ২০১৯ সালে। তখন প্রাথমিকভাবে তিন বছরের জন্য চুক্তি করা হয়। যার মূল্য ছিল ১২ কোটি ইউরো। পরে তা ২০২৯ সাল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। 

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এরই মধ্যে রুবিয়ালেসকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। অভিযোগ প্রমাণের প্রেক্ষিতে, প্রসিকিউটররা তার আড়াই বছরের কারাদণ্ড চেয়েছেন। 

বর্তমানে নিষিদ্ধ ফুটবল কর্মকর্তা রুবিয়ালেসকে ঘিরে বিতর্কের যেন শেষ নেই। গত বছর মেয়েদের বিশ্বকাপ ফাইনালের পর পদকমঞ্চে স্পেনের ফরোয়ার্ড জেনিফার এরমোসোকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে চুমু দিয়ে প্রবল সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি। এর জন্য আরইএফএফ-এর প্রধানের দায়িত্ব হারান তিনি। তাকে তিন বছরের জন্য নিষিদ্ধও করে ফিফা। 

ওই চুমু কাণ্ডের জন্যও তার আড়াই বছরের কারাদন্ড চেয়েছেন স্পেনের সরকারি কৌঁসুলিরা।