‘অনেকটা এগিয়ে থেকেই বিশ্বের সেরা কোচ গুয়ার্দিওলা’

গুয়ার্দিওলাকে প্রশংসায় ভাসালেও রোববার তার দলকে হারিয়ে লিগ শিরোপা জয়ের পথে এগিয়ে যেতে চান আর্সেনাল কোচ মিকেল আর্তেতা।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 30 March 2024, 05:11 AM
Updated : 30 March 2024, 05:11 AM

এখন তারা দুজন প্রবল প্রতিদ্বন্দ্বী। তবে সেটা কেবল দায়িত্বের খাতিরে। এমনিতে পেপ গুয়ার্দিওলা ও মিকেল আর্তেতার সম্পর্ক দারুণ। একসময় কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে এগিয়ে গেছেন দুজন। সেই সম্পর্কের ভিত মজবুত এখনও। গুয়ার্দিওলার প্রশংসায় কখনও কার্পণ্য নেই আর্তেতার। মুখোমুখি লড়াইয়ের আগে আবারও ম্যানচেস্টার সিটি কোচকে স্তুতির জোয়ারে ভাসালেন আর্সেনাল কোচ। পাশাপাশি এটিও জানিয়ে দিলেন, গুয়ার্দিওলার দলকে হারিয়েই শিরোপার পথে এগিয়ে যেতে চান তারা। 

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা লড়াইয়ে গুরুত্বপূর্ণ এক ম্যাচে রোববার ম্যানচেস্টার সিটির মাঠে খেলতে নামবে আর্সেনাল। 

আন্তর্জাতিক বিরতির পর এই ম্যাচ দিয়েই আবার শুরু হবে দুই ক্লাবের অভিযান। আপাতত পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে আর্সেনাল, তিনে ম্যানচেস্টার সিটি। তবে দুই দলের ব্যবধান স্রেফ এক পয়েন্টের।

একসময় এই দুই কোচ একসঙ্গেই ছিল সিটির ডাগ আউটে। গুয়ার্দিওলার সহকারী হিসেবে বছর তিনেক কাজ করেছেন আর্তেতা। ২০১৯ সালে আর্সেনালের দায়িত্ব নিয়ে শুরু হয় প্রধান কোচ হিসেবে তার পথচলা। এরপর পেরিয়ে গেছে প্রায় বছর পাঁচেক। কিন্তু পারস্পরিক শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা অটুট এখনও। 

এবারের লড়াইয়ের আগে আরও একবার তা ফুটে উঠল আর্তেতার কণ্ঠে। তবে মাঠে নামার সময় লক্ষ্য থাকবে একটাই, গুয়ার্দিওলার দলকে হারানো।

“তার প্রতি আমার মুগ্ধতা ও তাকে নিয়ে আমার ভাবনা অবশ্যই বদলায়নি। আমার মতে, অনেকটা এগিয়ে থেকেই তিনি বিশ্বের সেরা কোচ এবং ফুটবলে আমার চেনাজানা সবচেয়ে চমৎকার মানুষগুলোর একজন। তার সঙ্গেই সবচেয়ে বেশি মজা ও হাসিখুশিতে কাজ করতে পেরেছি। এটা সবসময়ই থেকে যাবে।” 

“তবে আমরা এখন যেখানে থাকার, সেখানেই আছি এবং এটির সঙ্গে মানিয়ে নিতেই হবে। হয়তো অন্য কাউকে হারাতেই বেশি ভালো লাগবে আমার, যার প্রতি এই আবেগের (বন্ধুত্বের) সম্পর্ক নেই। তবে এখানে কিছু করার নেই। আমরা দুজনই চাই জিততে। পরস্পরকে খুব ভালো করে চিনি আমরা এবং ম্যাচ জয়ের জন্য সেভাবেই প্রস্তুতি নেব।”

গত মৌসুমে এই সময়টায় সিটির চেয়ে আট পয়েন্টে এগিয়ে ছিল আর্সেনাল। কিন্তু এরপরই খেই হারায় তারা। শেষ ৯ ম্যাচের মধ্যে কেবল জিততে পারে ২টিতে। ওই সময়টায় অপ্রতিরোধ্য গতিতে ছুটে ছয় মৌসুমের মধ্যে পঞ্চমবারের মতো লিগ জিতে নেয় ম্য্যানচেস্টার সিটি। 

পেছন ফিরে তাকিয়ে আর্তেতা বললেন, ওই সময়টায় অনেক কিছুই গড়বড় হয়ে গিয়েছিল তাদের। 

“কিছু কিছু মুহূর্ত ছিল… অ্যানফিল্ডে যেমন ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকেও ড্র করেছি আমরা। ওয়েস্ট হ্যামেও একই অবস্থা ছিল, এরপরও সুযোগ ছিল জয়ের, কিন্তু পেনাল্টিতে গোল করার সুযোগ হাতছাড়া হয়েছে। এরপর একটি ম্যাচ ছিল সাউথ্যাম্পটনে, যা আমাদের জেতা উচিত ছিল, কিন্তু অনেক ব্যাপার ছিল, যা আমাদের জিততে দেয়নি।” 

“অনেক চোট সমস্যা ছিল আমাদের এবং আরও অনেক ব্যাপার ছিল। এরপর মোমেন্টাম নেতিবাচক হয়ে পড়ে এবং আমরা তাল সামলাতে ভুগতে থাকি, কারণ ওরা টানা জিততে থাকে। টানা ১৫ ম্যাচের ১৪টিই জিতে নেয় তারা সেই সময়।”

এবার আর তেমন কিছু হতে দিতে চান না তিনি। কাজটা যদিও কঠিন। সেই ২০১৫ সাল থেকে শুরু করে টানা ৮ মৌসুমে ম্যানচেস্টার সিটির মাঠে জিততে পারেনি আর্সেনাল। গত এপ্রিলে তো স্রেফ উড়ে গেছে ৪-১ ব্যবধানে। পরে আর নিজেদের ফিরে পায়নি তারা। এবার পথ না হারাতে বদ্ধ পরিকর আর্তেতা। 

“যে অবস্থানে আমরা এখন আছি, এখানে আসতে অনেক কিছু করতে হয়েছে আমাদের। তবে সামনে একটু একটু করে এগোতে হবে আমাদের, ভালোভাবে অনুশীলন করে প্রতিটি ম্যাচের জন্য প্রস্তুত হতে হবে। অনেক কিছু করে আমরা এই পর্যায়ে আসতে পেরেছি, এখন এটাকে আলিঙ্গন করে আমাদের সামনে এগিয়ে যেতে হবে।” 

“শক্ত পদক্ষেপে সামনে যেতে হবে আমাদের এবং আমার মনে হয়, সাম্প্রতিক সময়ে আমরা তা পেরেছি। অনেকটা কাছাকাছি যেতে পেরেছি আমরা। এখন ব্যাপারটা হলো, কীভাবে ব্যবধানটা ঘুচিয়ে দেওয়া যায় এবং তাদের চেয়ে ভালো হওয়ার চেষ্টা করা যায়।” 

সিটি-আর্সেনালের এই ম্যাচ শিরোপার লড়াইয়ে কতটা গুরুত্বপূর্ণ, তা তো বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে এই ম্যাচের পরও অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে, সেটিও জানিয়ে রাখলেন আর্তেতা। 

“এই ম্যাচ দুই দলের জন্যই মহাগুরুত্বপূর্ণ। ওখানে গিয়ে জিততে পারলে আমাদের জন্য তা হবে বিশাল প্রেরণার। তবে এর পরও (শিরোপা) জয়ের পরিস্থিতি তৈরির জন্য অনেক অনেক অনেকটা দূর যেতে হবে।” 

চোটের কারণে জাতীয় দলের খেলায় থাকতে না পারা বুকায়ো সাকা ও গাব্রিয়েল মার্তিনেল্লি শুক্রবার অনুশীলন করতে পারেননি দলের সঙ্গে। তবে শনিবার তারা অনুশীলন করবেন। সেশনে উতরে গেলে দুজনকে ম্যাচে পাওয়া যাবে বলে আশা করছেন কোচ।