‘বায়ার্নে অনেক পরিবর্তন করতে হবে’

দলে স্বীকৃত স্ট্রাইকারের ঘাটতি অনুভব করছেন জার্মান কোচ।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 17 Sept 2022, 06:17 PM
Updated : 17 Sept 2022, 06:17 PM

বুন্ডেসলিগায় ২০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বাজে শুরু। টানা তিন ড্রয়ের পর পেতে হয়েছে হারের তেতো স্বাদ। বায়ার্ন মিউনিখের একের পর এক হতাশাজনক পারফরম্যান্সে চিন্তিত ক্লাবটির কোচ ইউলিয়ান নাগেলসমান। বাজে সময় থেকে বেরিয়ে আসতে দলে বড় পরিবর্তনের সুর তার কণ্ঠে।

আউক্সবুর্কের মাঠে শনিবার ১-০ গোলে হেরেছে বায়ার্ন।

এই ম্যাচের আগে রেলিগেশন থেকে এক পয়েন্ট ওপরে ছিল আউক্সবুর্ক। প্রতিপক্ষের মাঠে লিগে দুই দলের মুখোমুখি লড়াইয়ে এগিয়েও ছিল বায়ার্ন। সবশেষ ১১ ম্যাচের আট ম্যাচে জয় পেয়েছিল জার্মান চ্যাম্পিয়নরা। কিন্তু এবার তাদের খালি হাতেই ফিরতে হল।

লিগে প্রথম তিন ম্যাচে তিন জয়ে শুরুর পর থেকে উল্টোপথে হাঁটছে বায়ার্ন। পরের তিন রাউন্ডে তারা ড্র করে যথাক্রমে বরুশিয়া মনশেনগ্লাডবাখ, ইউনিয়ন বার্লিন ও স্টুটগার্টের বিপক্ষে।

৭ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলে চার নম্বরে নেমে গেছে বায়ার্ন। ১৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে বরুশিয়া ডর্টমুন্ড।

আউক্সবুর্কের বিপক্ষে ম্যাচের পর নিজেদের খেলা নিয়ে হতাশা ঝরে পড়ল নাগেলসমানের কণ্ঠে। 

“আমাদের সাম্প্রতিক নেতিবাচক প্রবণতা ভালো কিছু নয়। অনেক কিছু পরিবর্তন করতে হবে। আমি ভেবে দেখব, এরপর আমরা দেখব যে এখান থেকে পরিস্থিতি কীভাবে এগিয়ে যায়। সবকিছু নিয়ে ভাবতে হবে, নিজেকে নিয়ে, পরিস্থিতি নিয়ে, সবকিছু সম্পর্কে ভাবতে হবে।”

লিগে বায়ার্নের সাম্প্রতিক পড়তি ফর্মের পেছনে বড় কারণ আক্রমণভাগের খেলোয়াড়দের ব্যর্থতা। টমাস মুলার, সাদিও মানে, লেরয় সানের মত ফরোয়ার্ডরা থাকলেও তারা কেউই স্বীকৃত স্ট্রাইকার নন। গোলের জন্য তাই ভুগতে হচ্ছে বায়ার্নকে।

গ্রীষ্মের দলবদলে রবের্ত লেভানদোভস্কি ক্লাব ছাড়ার পর নতুন স্ট্রাইকার দলে ভেড়ায়নি বায়ার্ন। আট বছরের পথচলায় ক্লাবটির হয়ে ‘গোলমেশিনে’ পরিণত হয়েছিলেন তিনি। পোলিশ তারকার অভাব পূরণ করা তাই সহজ হওয়ার নয় দলটির জন্য। 

দলের ঘাটতির দিকটি অস্বীকার করতে চাইলেন না নাগেলসমান। ৩৫ বছর বয়সী এই কোচ জানালেন, স্ট্রাইকার পজিশনে পর্যাপ্ত বিকল্পের অভাব অনুভব করছেন তিনি।

“আমি যদি না বলি, তাহলে লোকেরা বলবে যে আমি সমস্যা স্বীকার করছি না। আর আমি যদি হ্যাঁ বলি - তারা বলবে যে আমি লেভানদোভস্কিকে মিস করছি। আজকে আমাদের নয় নম্বর চুপো (এরিক মাক্সিম চুপো-মোটিং) ছিল বেঞ্চে, এছাড়া আমাদের আর স্বীকৃত স্ট্রাইকার নেই।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক