ভোলায় বিএনপির হরতাল চলছে

সকালে জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা।

ভোলা প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 4 August 2022, 05:30 AM
Updated : 4 August 2022, 05:30 AM

ভোলায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ জেলা ছাত্রদল সভাপতি নূরে আলমের মৃত্যুর ঘটনায় জেলা বিএনপির ডাকা হরতাল চলছে।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ভোলা শহরের মহাজনপট্টি এলাকায় জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ সমাবেশ করেন বিএনপি ও তার অঙ্গ সংঘঠনের নেতাকর্মীরা।

গত রোববার (৩১ জুলাই) বিএনপির কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে জেলা বিএনপির সামবেশে পুলিশ-বিএনপির সংঘর্ষের ঘটনায় আহত হন জেলা ছাত্রদলের সভাপতি নূরে আলম। পরে ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। এর প্রতিবাদে ভোলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডাকে জেলা বিএনপি।

হরতালের সমর্থনে সকাল ১০টার দিকে বিএনপির একটি বিক্ষোভ মিছিল ভোলা শহরের সদর রোড ঘোরে। তবে কোথায়ও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

জেলা বিএনপির যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মো. হুমায়ুন কবির সোপান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ভোলার বিভিন্ন স্থানে শান্তিপূর্ণভাবে বিএনপি ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা হরতালের সমর্থনে মিছিল করছেন। তবে কোন কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।”

বেলা সাড়ে ১২টার দিকে জেলা বিএনপির কার্যালয়ে হরতাল ও বিএনপির বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে হরতালের কারণে মহাজনপট্টি এলাকায় দোকান-পাট বন্ধ দেখা গেলেও সদর রোডে খোলা রয়েছে; চলছে যানবাহনও। তাছাড়া ভোলা-চরফ্যাশন রুটের বাসও চলাচল করছে।

ভোলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. ফরহাদ সরদার জানান, হরতালকে ঘিরে কোনো ধরনের বিশৃংখলা এড়াতে বাড়তি পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। পুলিশ বিভিন্ন স্থানে টহল দিচ্ছে।

বিদ্যুতের লোডশেডিং এবং জ্বালানি খাতে ‘অব্যবস্থাপনার’ প্রতিবাদে সারাদেশে বিএনপির কর্মসূচির অংশ হিসেবে রোববার জেলা সদরেও বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিলের কর্মসূচি ছিল। সেদিন নেতা-কর্মীরা জেলা কার্যালয়ে সমাবেশ করে মিছিলের প্রস্তুতি নিলে পুলিশের সঙ্গে সংঘাত বাঁধে। সংঘর্ষের মধ্যে গুলিতে নিহত হন স্বেচ্ছাসেবক দলের আবদুল রহিম। ওই ঘটনায় নূরে আলমের মাথায় গুলি লাগে। পরে তাকে ভোলা থেকে ঢাকায় নিয়ে এসে কমফোর্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সংঘর্ষের ওই ঘটনায় বিএনপির চার শতাধিক নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে দুটি মামলা করেছে পুলিশ।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক