সাফজয়ী রূপনা চাকমাকে ঘর দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

একই সঙ্গে রূপনা চাকমার বাড়ি যাওয়ার পথে সেতুটির কাজও শুরু হবে বলে জানান জেলা প্রশাসক।

ফজলে এলাহীরাঙামাটি প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 21 Sept 2022, 12:48 PM
Updated : 21 Sept 2022, 12:48 PM

সাফজয়ী বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা ফুটবল দলের গোলরক্ষক রূপনা চাকমাকে ঘর করে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাঙামাটির জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বুধবার এ কথা জানান।

মিজানুর রহমান বলেন, “প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে আমাকে ফোন করে বিষয়টি নিশ্চিত করার নির্দেশ দেওয়া হয়। সাথে সাথেই আমরা এলজিইডির প্রকৌশলী ও নানিয়াচর উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে সেখানে পাঠিয়েছি। আজ থেকেই ঘর নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে।”

একই সঙ্গে তার বাসায় যাওয়ার সেতুটির কাজও শুরু হবে বলে জানান জেলা প্রশাসক।

রূপনা চাকমা নেপালের দশরথ স্টেডিয়ামে পাহাড়ের মত দৃঢ়তায় বাংলাদেশ দলের গোলপোস্ট সামলেছেন; জয় করেছেন আসরের সেরা গোলকিপারের তকমা।

Also Read: ফুলেল শুভেচ্ছায় চ্যাম্পিয়ন মেয়েদের বরণ

Also Read: ট্রফি হাতে বীর মেয়েদের জয়যাত্রা

Also Read: এই ট্রফি বাংলাদেশের সব মানুষের : সাবিনা

তবে তার বেড়ে ওঠার সংগ্রামটি চোখ ভেজানো গল্প যেন! নানিয়রাচর উপজেলার দুর্গম ভুঁইয়াদাম গ্রামে তার ঘরটির জরাজীর্ণ অবস্থাই বলে দিচ্ছে কতটা সংগ্রামের পথ মাড়িয়ে এতদূর উঠে এসেছেন এই দামাল কন্যা।

বাংলাদেশ দল চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর মঙ্গলবার ফুল মিষ্টি ফলমূল আর দেড় লাখ টাকার চেকসহ একদল সরকারি কর্মকর্তা ও সাংবাদিকদের নিয়ে তার বাড়ি যান রাঙামাটির জেলা প্রশাসক। এরপরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে তার বসতঘরের জরাজীর্ণ ছবি। এ নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে শুরু হয় প্রশংসা আর সহযোগিতার আশ্বাস আর সমবেদনার প্রকাশ।

শুরুতেই জেলা প্রশাসক তাকে বাড়ি নির্মাণ করে দেওয়ার আশ্বাস দেন এবং তিনি নানিয়াচরের ইউএনওকে সেই মোতাবেক পদক্ষেপ নেওয়ার নির্দেশ দেন। এরই মধ্যে নির্দেশনা এল প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে।

Also Read: সাফ ফুটবলজয়ী রূপনা-ঋতুপর্ণার বাড়িতে রাঙামাটির জেলা প্রশাসক

Also Read: দূর পাহাড়ের আলো রূপনা-ঋতুপর্ণা

রাঙামাটির জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমার বলেন, সকালে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় থেকে দ্রুততম সময়ের মধ্যে রূপনা চাকমার ঘরটি নির্মাণ করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

“আমি ইতোমধ্যে নানিয়ারচর উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে নির্দেশনা দিয়েছি। আজ বুধবার বিকালে এলজিইডি প্রকৌশলী নিয়ে ঘর নির্মাণের বিষয়ে সরেজমিন দেখে আসবেন। আশা করছি দ্রুততম সময়ে মধ্যে আমরা এটি করে দিতে পারব।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক