বরিশালে মাদক পাচারের দায়ে ৫ জনের যাবজ্জীবন

২০১১ সালে এই আসামিরা ৪৭৮ বোতল ফেনসিডিল নিয়ে স্পিডবোটে পালানোর চেষ্টা করেন, কিন্তু ড্রেজারের পাইপে আটকা পড়েন।

বরিশাল প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 25 July 2022, 03:48 PM
Updated : 25 July 2022, 03:48 PM

বরিশালে মাদক পাচারের দায়ে পাঁচজনকে যাবজ্জীবন দিয়েছে আদালত।

একই সঙ্গে আদালত প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে । জরিমানা না দিলে তাদের জন্য আদালত আরও ছয় মাসের কারাদণ্ডও ঘোষণা করেছে।

বরিশালের বিভাগীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মো. মেহেদি আল মাসুদ সোমবার এ রায় ঘোষণা করেন।

সাজাপ্রাপ্তরা হলেন জেলার বাকেরগঞ্জ উপজেলার চরাদি এলাকার ইসাহাক হাওলাদারের ছেলে কামরুজ্জামান, বরিশাল সদর উপজেলার চরকাউয়া এলাকার আলতাফ সরদারের ছেলে আওলাদ হোসেন, বেলতলা খেয়াঘাট এলাকার নিজাম চাপরাশির ছেলে মোস্তফা চাপরাশি, ভাটারখাল এলাকার সিরাজ সিকদারের ছেলে রাকিব ও কিশোরগঞ্জের ভৈরব কালিকা প্রসাদ এলাকার ফজলুর রহমানের মেয়ে পপি।

রায় ঘোষণার সময় আওলাদ ও পপি আদালতের কাঠগড়ায় ছিলেন। অন্যরা পলাতক।

তাছাড়া অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় আদালত দুই আসামিকে খালাস দিয়েছে।

আদালতের বিশেষ পিপি একেএম আমিনুল ইসলাম সেন্টু মামলার নথির বরাতে জানান, ২০১১ সালের ২০ এপ্রিল রাতে গৌরনদীর হোসনাবাদ লঞ্চঘাট এলাকায় অভিযান চালায় পুলিশ। সে সময় পাঁচটি বস্তায় ভরা ৪৭৮ বোতল ফেনসিডিল নিয়ে একটি স্পিডবোট পালানোর চেষ্টা করেন, কিন্তু ড্রেজারের পাইপে আটকা পড়েন। পাঁচ পচারকারী স্পিডবোট থেকে নদীতে লাফ দেন। তবু স্থানীয়রা তাদের ধরে ফেলেন; পরে মারধর করে পুলিশে সোপর্দ করেন।

ওই দিন গৌরনদী থানার এসআই অসীম মজুমদার বাদী হয়ে পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। আর একই থানার এসআই আসাদুল হক তদন্তে নেমে গৌরনদীর বাসিন্দা মাসুদ ও সায়েমকে আসামির তালিকায় অর্ন্তভুক্ত করেন। ২০১১ সালের ১১ জুন সাতজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন এসআই আসাদুল হক।

পিপি বলেন, আদালত ১৪ জনের সাক্ষ্য নিয়ে বিচার শেষে পাঁচজনকে দোষী সাব্যস্ত করে এই রায় দিল। পলাতক আসামিরা ধরা পড়লে সেদিন থেকে তাদের সাজা শুরু হবে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক