নীলফামারীতে ছোট ভাইকে হত্যার পর বড় ভাইয়ের ‘বিষপান’

পুলিশ জানায়, মেহেদী পুলিশ পাহারায় রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

নীলফামারী প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 5 March 2024, 01:42 PM
Updated : 5 March 2024, 01:42 PM

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলায় আপন ছোট ভাইকে গলা কেটে হত্যার পর এক ব্যক্তি বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

মঙ্গলবার ভোরে উপজেলার রনচন্ডি ইউনিয়নের কুটিপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে বলে কিশোরগঞ্জ থানার পরিদর্শক পলাশ চন্দ্র মণ্ডল জানান।

নিহত আসকাত হোসেন জুয়েল (১৭) ওই গ্রামের মৃত আব্দুল জলিলের ছেলে। তার বড় ভাই মেহেদী হাসানকে (২৮) উদ্ধার করে রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করেছে পুলিশ।

স্বজনদের বরাতে পরিদর্শক পলাশ বলেন, সোমবার রাতে জুয়েলের ঘরে ঘুমান বড় ভাই মেহেদী। ভোরে তাদের মা ফজরের নামাজ পড়তে উঠলে জুয়েলের ঘর থেকে গোঙানি শব্দ শুনতে পান।

“ঘরে গিয়ে ছোট ছেলের গলা কাটা রক্তাক্ত দেহের ওপর বড় ছেলে মেহেদীকে বসে থাকতে দেখে চিৎকার করেন তিনি। পরিবারের সদস্য ও প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে মেহেদীকে সরাতে গিয়ে মুখে বিষপানে গন্ধ পান।”

তিনি বলেন, পরে স্থানীয়রা মেহেদীকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করায়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি ঘটলে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে হস্তান্তর করা হয়। খবর পেয়ে পুলিশ এসে জুয়েলের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

পরিদর্শক পলাশ বলেন, এ ঘটনায় নিহতের চাচা জিয়াউর রহমান বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেছেন। মেহেদী পুলিশ পাহারায় রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। হত্যা রহস্য উদ্ঘাটনে তদন্ত চলছে।

রনচন্ডি ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য খগেন্দ্র নাথ বলেন, “নিহত আসকাত দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিলেন। মেহেদী মানসিক রোগে ভুগছে বলে শুনেছি। মাঝে মধ্যে বাড়ির সবার সঙ্গে অকারণে মেহেদীর বাকবিতণ্ডায় জড়াতেন বলে পরিবারে সদস্যরা জানিয়েছে। তবে তাদের দুই ভাইয়ের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক দেখেছি।”