লালমনিরহাটে দুলাভাইকে হত্যায় যুবকের ১০ বছরের কারাদণ্ড

রায়ে আরেক আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

লালমনিরহাট প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 7 Feb 2024, 02:13 PM
Updated : 7 Feb 2024, 02:13 PM

লালমনিরহাটে পারিবারিক কলহের জেরে দুলাভাইকে শ্বাসরোধে হত্যার দায়ে এক যুবকের ১০ বছরের কারাদণ্ড হয়েছে।

বুধবার দুপুরে লালমনিরহাট জেলা দায়রা জজ মো. মিজানুর রহমান এ রায় ঘোষণা করেন বলে ওই আদালতের সরকারি কৌশলী (পিপি) আকমল হোসেন জানান।

দণ্ডপ্রাপ্ত আব্দুল আলিম ওরফে বাবলু (৩০) সদর উপজেলার কিসামত চোংগাদারা এলাকার বাসিন্দা।

১০ বছরের কারাদণ্ড ছাড়াও তাকে ৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড; অনাদায়ে আরো ১ মাস কারাবাসে থাকার রায় দিয়েছে আদালত।

রায়ে অপর আসামি মোছা. রশিদা বেগমকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, ২০১৩ সালে লালমনিরহাটের হাতিবান্ধা উপজেলার রমনীগঞ্জের বাসিন্দা এরশাদ আলীর সঙ্গে সদর উপজেলার চোংগাদারা এলাকার এক তরুণীর বিয়ে হয়। বিয়ের চার বছর পর কলহের জেরে ওই নারী কাউকে কিছু না জানিয়ে স্বামীর বাড়ি থেকে বাবার বাড়ি চলে আসেন।

মামলার এজাহারে আরও বলা হয়, স্ত্রীকে ফিরিয়ে আনতে ২০১৭ সালের ১২ জুলাই শ্বশুরবাড়ি যান এরশাদ আলী। বাড়ি ফেরানোর চেষ্টার পাঁচদিনের মাথায় স্ত্রী সঙ্গে কথা-কাটাকাটি হয় এরশাদ আলীর। পরে তিনি শাশুড়ি ও শ্যালকের সঙ্গেও কথা-কাটাকাটিতে জড়িয়ে পড়েন। এর জেরে সৃষ্ট ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে বাবলু দুলাভাই এরশাদ আলীকে শ্বাসরোধে হত্যা করেন বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

ঘটনাটিকে ধামাচাপা দিতে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন নিহতের শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

বিষয়টি বুঝতে পেরে পরদিন (১৭ জুলাই) এলাকাবাসী শাশুড়ি ও শ্যালককে আটক করে পুলিশ ও নিহতের স্বজনদের খবর দেয়। পরে পুলিশ গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে লালমনিরহাট সদর থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

মামলার তদন্ত শেষে পরের বছরের ৩১ মার্চ নিহতের শাশুড়ি ও শ্যালক বাবলুর বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ।

আদালতের পিপি আকমল হোসেন আরও বলেন, ৩০২ ধারায় হত্যা মামলাটির অভিযোগ গঠন করা হয়। সাক্ষ্য নেওয়া হয় ২১ জনের।