কিশোরীকে ‘মারধরের পর বিয়ে’: সেই ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা

ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর আলম ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছেন।

গাজীপুর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 15 August 2022, 08:48 AM
Updated : 15 August 2022, 08:48 AM

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলায় এক কিশোরীকে মারধরের পর জোর করে বিয়ে দেওয়ার ঘটনায় ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে।

কালিয়াকৈর থানার ওসি মো. আকবর জানান, রোববার বিকালে মেয়েটির মা বাদি হয়ে উপজেলার ফুলবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৪ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে মারধরের মামলা করেন।

ঘটনার পর থেকে পলাতক জাহাঙ্গীরকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন পুলিশের এ কর্মকর্তা।

এর আগে গত ২৬ মে বিকালে ‘খারাপ কাজের‘ অপবাদ দিয়ে মারধরের পর ১৫ বছরের ওই কিশোরীকে এক তরুণের (২০) সঙ্গে বিয়ে দেন জাহাঙ্গীর আলম। সম্প্রতি মারধরের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে ঘটনাটি জানাজানি হয়। পরে ঘটনার দায় স্বীকার করেন ওই ইউপি সদস্য।

ভিডিওতে ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীরকে মেয়েটির চুল ধরে লাঠি দিয়ে একের পর আঘাত করতে দেখা গেছে। এ সময় শিশুটি খাট থেকে পড়ে গেলে চুল ধরে টেনে তুলে আবার পেটান তিনি।

স্থানীয় এক স্কুলের অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থী ওই মেয়েটির বাড়ি কালিয়াকৈর উপজেলায়। ছেলেটির বাড়িও একই এলাকায়। এ ঘটনায় সামাজিকভাবে বিপর্যয়ের মুখে পড়ে গভীর দুশ্চিন্তার কথা জানিয়েছে হিন্দু পরিবার দুটি।

ওসি আকবর জানান, ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীরসহ এলাকার কয়েকজন ঘটনার দিন মেয়েটির বাড়ি যায়। ওই তরুণ সেই সময় মেয়েটির বাড়িতে গিয়েছিল। মেয়েটির সঙ্গে তরুণ আপত্তিকর সম্পর্কে জড়িয়ে গেছে-এই অভিযোগ তুলে বিয়ের জন্য চাপ দেয়।

এক পর্যায়ে মেয়েটির চুলের মুঠি ধরে চড়, থাপ্পর ও লাঠি পেটা শুরু করে জাহাঙ্গীর। পরে ওই ছেলেটির সঙ্গে মেয়েটির জোরপূর্বক বিয়েতে বাধ্য করে সে।

ঘটনার সময় মেয়েটির দাদাও বাড়িতে উপস্থিত ছিলেন জানিয়ে এ পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, “দাদার সামনেই মেয়েটিকে মারধরের পর তার শ্লীলতাহানি করে ওই ইউপি সদস্য। পরে জোর করে বিয়ে দেওয়ার পর মেয়েটির ঘর থেকে ১০ হাজার টাকাও নিয়ে যায় সে।”

ঘটনাটি নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে মেয়েটির পরিবারকে হত্যার হুমকিসহ সামাজিকভাবে হেয় করার ভয়ও জাহাঙ্গীর দেখায় জানান ওসি আকবর।

ওই তরুণের বিষয়ে জানতে চাইলে জানতে তিনি বলেন, “বিয়ের দুদিন পর থেকে সে মেয়েটির বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। এরপর আর ফেরেনি। তার কোনও খোঁজও পাওয়া যাচ্ছে না।”

Also Read: গাজীপুরে ‘শিশুকে জোর করে বিয়ে দিলেন’ ইউপি সদস্য, বিপাকে হিন্দু পরিবার

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক