কিশোরগঞ্জ স্বাধীন হয়েছিল ১৭ ডিসেম্বর

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 5 Jan 2017, 06:53 PM
Updated : 5 Jan 2017, 06:53 PM

মোঃ দুলাল মিয়া ৫ নম্বর সেক্টরে যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। ৭১ সালে একটা ঘটনা তার মনকে শক্ত করে দিয়েছিল। তার প্রতিবেশী এক নারীর উপর পাশবিক নির্যাতন চালিয়েছিল পাকিস্তানি বাহিনী, তাদের সাথে ছিল রাজাকার, আলবদর বাহিনী। এই ঘটনায় দুলাল মিয়ার চোখে মুখে প্রতিশোধের স্পৃহা জেগে উঠেছিল।

মায়ের অনুমতি নিয়ে দুলাল মিয়া প্রশিক্ষণের জন্য ভারতে যান। প্রথমে তিনি কুয়ারগাও থেকে বালাট যান। এরপর শিলং প্রদেশে ইকুয়ান ক্যাম্পে তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। পুরো এক মাস সেখানে তাদের প্রশিক্ষণ সম্পন্ন হয়। এরপর প্রশিক্ষণ শেষে টাকারঘাট কিছুদিন অবস্থান করতে হয়েছিল তাদের। সবশেষে প্রত্যেক যোদ্ধাকে নিজ নিজ জেলায় গিয়ে যুদ্ধে অংশ নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।

মেজর মতিবুর রহমানের নেতৃত্বে যুদ্ধে অংশ নেন দুলাল মিয়া। টানা আটদিনের এক যুদ্ধ অংশ নিয়েছিলেন তিনি। ১৬ ডিসেম্বর ঢাকা মুক্ত হলেও, কিশোরগঞ্জ মুক্ত হয়েছিল ১৭ ডিসেম্বর। চারিদিক থেকে পাকিস্তানি বাহিনীকে ঘিরে ফেলেছিল মুক্তিযোদ্ধারা। অবস্থা বুঝতে পেরে পাকিস্তানি বাহিনীও আর যুদ্ধ করতে রাজি ছিল না। তারা অস্ত্র সমর্পণ করতে চেয়েছিল। ১৭ ডিসেম্বর কিশোরগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধারা পরাজিত পাকিস্তানি যোদ্ধাদের খুঁজে বের করেন এবং এবং তাদের রামানন্দ উচ্চ বিদ্যালয়ে বন্দি করে রাখেন।

দুলাল মিয়া সবার মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস ছড়িয়ে দেওয়ার আহবান জানান। কারণ দেশের এই গর্বের ইতিহাস সকলের জানা উচিত।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক