ব্যয়বহুল প্রেম সাশ্রয়ী করতে

টাকা দিয়ে ভালোবাসা কেনা না গেলেও প্রেমের জন্য খরচ করতেই হয়।

লাইফস্টাইল ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 16 July 2019, 10:14 AM
Updated : 16 July 2019, 10:15 AM

আর সেই খরচ যদি হয় বেশি তবে ব্যয় কমানোর পন্থাও রয়েছে।

প্রিয়জনের সঙ্গে আবেগঘন মুহূর্ত কাটানোর কথা ভাবলে কোন চিন্তা আসে? বেশিরভাগই হয়ত বলবেন, ‘ক্যান্ডেল লাইট ডিনার’, দূরে কোথাও বেড়াতে যাওয়া, দামি রেস্তোরাঁয় খাওয়া কিংবা বিশেষ মানুষটিকে ভালো কিছু উপহার দেওয়া।

এর সবগুলোতেই যথেষ্ট অর্থ ব্যয় হয়, যা কারও কাছে হাতের ময়লা আবার কারও কাছে পুরো মাসের হাত খরচ। পরিস্থিতি যেটাই হোক না কেনো, মিতব্যয়ী হওয়া সবসময়ই উপকারী।

সম্পর্কবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্যের আলোকে জানানো হল কীভাবে কম খরচেও প্রিয়জনের মন জয় করা যেতে পারে।

আর্থিক আলাপ: যাকে নিয়ে সংসার শুরু করার ভাবছেন তাকে আপনার আর্থিক সামর্থ্যের ব্যাপারে আগেভাগেই জানান দেওয়া জরুরি। প্রিয়জনের খরচের হাত যদি বেহিসেবি হয় তবে ভবিষ্যতে তা বড় ধরনের সমস্যা হয়ে দাঁড়াতে পারে। তাই সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগেই এসব ব্যাপারে খোলামেলা আলোচনা করে নেওয়াটা বুদ্ধিমানের কাজ হবে। সেই সঙ্গে আর্থিক বিষয়গুলোতে আপনার ভবিষ্যত পরিকল্পনাগুলো আলোচনা করতে পারেন।

খরচ ভাগাভাগি: বর্তমান যুগে পুরুষের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলছে নারীরাও। তাই পুরুষ উপার্জন করে শুধু সেই খরচ করবে এই ধারণা এখন মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলা উচিত। সম্পর্ক কোনো একতরফা বিষয় নয়, তাই সেই সম্পর্ক উপভোগ করার খরচগুলোও দুজনের মধ্যে ভাগাভাগি হওয়া উচিত। বরং কেউ যদি এই খরচের ভাগ এড়িয়ে যেতে চায় সেটাই হবে অপরজনের জন্য সতর্কবানী। যাকে জীবনসঙ্গী হিসেবে ভাবছেন হয়ত সে তেমনটা ভাবছেনা। 

সামর্থ্য অনুযায়ী উপহার: প্রিয়জনকে দামি উপহার দিয়ে হয়ত নিজের সম্পর্কে ভুল ধারণা তৈরি করছেন প্রিয়জনের মনে। উপহার দেওয়া মানেই প্রচুর খরচ করা নয় বরং উপহার যত সামান্যই হোক না কেনো তার পেছনের ভালোবাসাটাই মুখ্য। যেমন- প্রিয়জনের জন্মদিনের দামি রেস্তোরাঁ থেকে কেক না কিনে যদি নিজেই একটি কেক তৈরি করে নিয়ে যান তবে সেটাই হবে সবচাইতে ভালো ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ।

বেড়ানোর স্থান: প্রিয়জনের সঙ্গে বেড়াতে বেরিয়ে সবসময় দামি জায়গাতেই বসতে হবে এমন কোনো কথা নেই। যাতায়াতের বাহনের ক্ষেত্রেও খরচ কমানোর চিন্তা দুজনেরই আসা উচিত। মনে রাখতে হবে সম্পর্ক দুদিনের জন্য নয়। আর সম্পরর্কের ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে মিতব্যয়ী হওয়ার গুরুত্ব আছে।

প্রথম দেখা: বিশেষ মানুষটির সঙ্গে প্রথম দেখাতেই রেস্তোরাঁয় গিয়ে এলাহি কারবার অপ্রয়োজনীয়। প্রথম দেখায় আপনার উদ্দেশ্য হওয়া চাই সামনের মানুষটাকে বোঝার চেষ্টা করা, পয়সার বহর দেখানো নয়। তাই সামান্য খাবার নিন, গল্প করুন বেশি। হতে পারে দিন শেষে সে আপনার কাছে আর বিশেষ কেউ মনে হচ্ছে না। এছাড়াও রেস্তোরাঁয় এই অফার সেই অফার লেগেই থাকে। তাই বুদ্ধি খাটিয়ে এমন কোনো রেস্তোরাঁয় বসলে খরচ কমানো যাবে।

মনে রাখতে হবে

আর্থিক সচ্ছলতা জীবনের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আর ঠিক কতটুকু অর্থে একজন মানুষ সচ্ছল তার হিসেবে মানুষ ভেদে ভিন্ন।

তাই আর্থিক বিষয়ে ভুল তথ্য বা ভুল ধারণা দেওয়া ভবিষ্যতে নিজের পায়ে নিজেই কুড়াল মারা হতে পারে।

ছবি: রয়টার্স।

আরও পড়ুন

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক