বাঙালি কি মৃণালদাকে ভুলে গেল: অঞ্জন দত্ত

মৃণালের স্মৃতিচারণের পাশাপাশি ‘খারিজ’ সিনেমায় অভিনেয়র গল্প বলেছেন অঞ্জন।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 19 Jan 2024, 10:26 AM
Updated : 19 Jan 2024, 10:26 AM

অভিনয় ও চলচ্চিত্র নির্মাণেও কম শক্তিমান নন নব্বইয়ের দশকের জনপ্রিয় গায়ক অঞ্জন দত্ত। 

ভার্সেটাইল এ তারকার চলচ্চিত্র অঙ্গনে অভিষেক হয়েছিল কিংবদন্তী পরিচালক মৃণাল সেনের ১৯৮১ সালে ‘চালচিত্র’ সিনেমার মধ্য দিয়ে। ছিলেন মৃণালের ১৯৮২ সালের ‘খারিজ’ সিনেমার নাম ভূমিকায়।

চার দশক পর কৌশিক গাঙ্গুলী পরিচালিত সিনেমা ‘পালান’ এ আবারও সেই চরিত্রে দেখা মিলেছে তার। শুক্রবার মুক্তি পাচ্ছে সিনেমাটি। 

সম্প্রতি আনন্দবাজারকে দেয়া সাক্ষাৎকারে মৃণালের স্মৃতিচারণের পাশাপাশি ‘খারিজ’ সিনেমায় অভিনেয়র গল্প বলেছেন অঞ্জন। 

অঞ্জন জানান, শুরুতেই ‘খারিজ’ এ একজন সিনিয়র অভিনেতার অভিনয় করার কথা ছিল। হঠাৎ করেই মৃণাল সেন তাকে বাড়িতে ডেকে পাঠান এবং জানান, ‘অঞ্জন সেন’ ভূমিকাটির জন্য তিনি তাকে নির্বাচন করেছেন। 

“তখন আমার ২৭ বছর বয়স। এ দিকে উনি এক মাসের মধ্যে আমাকে ৩৭ বছর বয়সী এক চরিত্রে দেখাতে চাইছেন। আমার নিজের ছেলের তখন ছয় মাস বয়স। সেখানে ছয় বছরের ছেলের বাবার চরিত্রে কী ভাবে অভিনয় করব! আমি তো বলেই দিয়েছিলাম এটা সম্ভব নয়।” 

“উনি জোর করে খাবার খেতে বলেছিলেন। প্রতি দিন বিয়ার খাওয়ার পরামর্শ দিলেন। গীতাদিও (মৃণাল সেনের স্ত্রী) ছাড়লেন না। প্রতি দিন বাড়িতে ফোন করে খাওয়াদাওয়া করছি কিনা, সে খবর নিতেন মৃণালদা। শেষ পর্যন্ত সিনেমা হল। তারপর আমি বিদেশ চলে গেলাম।” 

এরপর ‘খারিজ’ যখন কান চলচ্চিত্র উৎসবে পুরস্কৃত হয়, তখন অঞ্জন দত্ত জার্মানিতে। মৃণাল সেনের শত অনুরোধের পরেও আর্থিক সংকটের কারণে প্যারিসে উপস্থিত হতে পারেননি তিনি। 

“আমি যে পাড়ায় থাকতাম, সেখানে টিভিতে দেখলাম সিনেমাটি জুরি পুরস্কার পেয়েছে। সেদিন সারাদিন মদ খেয়ে কাঁদতে কাঁদতে জার্মানির রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেড়ালাম। তবে ওইদিন জীবনের আরও একটা বড় সিদ্ধান্ত নিই। বুঝে গেলাম জার্মানির থিয়েটার আমাদের দেশে আমি করতে পারব না। কোনোদিন সৌমিত্রদাকেও (চট্টোপাধ্যায়) টপকাতে পারব না। মৃণাল সেনের পর অপর্ণা সেন এবং গৌতম (ঘোষ) আমাকে নিলেও আমি পারব না। তাই পরিচালক হওয়ার সিদ্ধান্ত নিলাম। আড়াই বছর পর কলকাতায় ফিরে সোজা মৃণালদাকে গিয়ে বলি যে, আমি তার সহকারী হিসাবে কাজ করতে চাই। তারপর তো ৪৫ বছরের সম্পর্ক!” 

চলতি বছর মে মাসে মৃণাল সেনের জন্মের শতবছর পূর্তি হয়েছে। অথচ যতটা আলোড়ন হবার কথা ছিল, তার কিছুই ঘটেনি। 

এ প্রসঙ্গে অঞ্জন জানান, “দীর্ঘদিন সিনেমা না করার জন্য সাধারণ মানুষের স্মৃতি থেকে হয়তো মৃণালবাবু একটু দূরে সরে গিয়েছিলেন। কিন্তু বাঙালি হিসাবে আরও একটু উত্তেজনা আমি আশা করেছিলাম। কয়েকটা সিনেমা তৈরি হচ্ছে। কিছু বই লেখা যেতে পারে। কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবেও শুনছি তার সিনেমা দেখানো হবে। জানি না, বাঙালি মৃণাল সেনকে ভুলে গেলেন কি না!” 

আগামী বছর মুক্তি পাবে অঞ্জন পরিচালিত সিনেমা ‘চালচিত্র এখন’। তার আগে বিভিন্ন চলচ্চিত্র উৎসবে দেখানো হবে সিনেমাটি। আগামী নভেম্বরে শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ে সিনেমার প্রদর্শনী হবে। 

মৃণাল সেনকে শ্রদ্ধার্ঘ্য জানাতে ‘চালচিত্র এখন’ তৈরি করেছেন কিনা প্রশ্নের জবাবে অঞ্জন জানান,  “এই সিনেমাটা মৃণালদার সঙ্গে আমার ব্যক্তিগত সম্পর্ককে ফিরে দেখার চেষ্টা। তাকে কোনো আসনে বসিয়ে পূজো করিনি।”

সংবাদ সূত্র: আনন্দবাজার 

(প্রতিবেদনটি প্রথম ফেইসবুকে প্রকাশিত হয়েছিল ২২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ তারিখে: ফেইসবুক লিংক)