দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম ‘নাইট সাফারি পার্ক’ হচ্ছে চট্টগ্রামে

সাফারি পার্কটিতে থাকবে ‘নাইট জু', যা সিঙ্গাপুরের জুরং বার্ড পার্কের আদলে তৈরির কথা ভাবছে কর্তৃপক্ষ।

চট্টগ্রাম ব্যুরোবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 1 August 2022, 12:18 PM
Updated : 1 August 2022, 12:18 PM

চট্টগ্রামের একটি ‘নাইট সাফারি পার্ক’ গড়ে তুলতে চায় প্রশাসন; সীতাকুণ্ডের জঙ্গল সলিমপুরের ৪০ একর জায়গা জুড়ে পার্কটির কাজ শুরু হবে আগামী এক মাসের মধ্যে।

সোমবার চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় সংবাদ সম্মেলনে ওই এলাকার সরকারি খাস জমিতে সাফারি পার্ক নির্মাণের এ ঘোষণা দেন চিড়িয়াখানা পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মো. মোমিনুর রহমান।

তিনি জানান, ‘নাইট সাফারি পার্ক’ বলা হলেও দিনে এবং রাতে দুই সময়েই দর্শনার্থীদের সেখানে প্রবেশের সুযোগ থাকবে।

এটি দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম ‘নাইট সাফারি পার্ক’ হবে জানিয়ে তিনি বলেন, চট্টগ্রাম চিডিয়াখানার ইউনিট ২ হিসেবে এটি পরিচালনা করা হবে।

জেলা প্রশাসক বলেন, “প্রাথমিকভাবে নির্মাণ ব্যয় ২০ কোটি টাকা ধরা হয়েছে, এর মধ্যে ৩ কোটি টাকা চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা তাদের নিজস্ব তহবিল থেকে দেবে।“

প্রস্তাবিত পার্কটিতে ‘নাইট জু' থাকছে জানিয়ে তিনি বলেন, “সিঙ্গাপুরের জুরং বার্ড পার্কের আদলে এই জু তৈরির কথা ভাবা হয়েছে।“

সংবাদ সম্মেলনের আগে চিড়িয়াখানায় সদ্য জন্ম নেওয়া চারটি সাদা বাঘ শাবককে দেখতে যান জেলা প্রশাসক।

দীর্ঘদিন ধরে আলোচনায় থাকা জঙ্গল সলিমপুরে সরকারের আরও কিছু স্থাপনা গড়ে তোলার কথা গত ১ জুলাই জানিয়েছিলেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

বায়েজিদ লিংক রোডের পাশের এই এলাকায় প্রায় ১৪০০ একর এবং পেছনে আরও ১৭০০ একর খাস জমি আছে বলে সেদিন জানিয়েছিলেন তিনি।

সেখানে জেলখানা স্থানান্তর, চট্টগ্রাম বেতার কেন্দ্র, আর্মি স্টেডিয়াম, হাসপাতাল, পার্কসহ অনেক কিছু করার পরিকল্পনার কথা জানান তথ্যমন্ত্রী।

সেদিন পরির্দশনের সময় তার সঙ্গে থাকা জেলা প্রশাসক জঙ্গল সলিমপুরে স্পোর্টস ভিলেজ, ক্রিকেট স্টেডিয়াম, আইকনিক মসজিদ, ইকো পার্কসহ বিভিন্ন স্থাপনা করার পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন।

প্রায় দুই দশক ধরে পাহাড়ি এ এলাকায় পাহাড় কেটে অবৈধ ও ঝুঁকিপূর্ণ স্থাপনা গড়ে তোলে ‘চট্টগ্রাম মহানগর ছিন্নমূল বস্তিবাসী সমন্বয় সংগ্রাম পরিষদ’ নামের একটি সংগঠন। প্রশাসন বেশ কয়েকবার উদ্যোগ নিয়েও সেখান থেকে তাদের সরাতে পারেনি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক