নির্মাণ সামগ্রীর দাম কমানোর দাবি ঠিকাদারদের

দেশে নির্মাণসামগ্রীর দাম ‘অস্বাভাবিকভাবে’ বেড়েছে জানিয়ে তা কমাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন চট্টগ্রামের ঠিকাদাররা।

চট্টগ্রাম ব্যুরোবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 23 March 2022, 10:39 AM
Updated : 23 March 2022, 10:39 AM

বুধবার চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন চট্টগ্রাম সম্মিলিত ঠিকাদার ফোরামের আহ্বায়ক গোলাম মুর্তজা টুটুল।

নয় মাসের ব্যবধানে নির্মাণসামগ্রীর দাম ৩৫ থেকে ৪০ শতাংশের মত বেড়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, “সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পে বাধা সৃষ্টিকারী অসাধু সিন্ডিকেটের কারণে নির্মাণ সামগ্রীর অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি হচ্ছে। এ সংকটে সরকারের প্রায় ১২ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ বন্ধ হওয়ার পথে।”

লিখিত বক্তব্যে টুটুল বলেন, নয় মাস আগে যেখানে রডের দাম প্রতি টনে ৬২ হাজার টাকা ছিল, এখন তা ৯২ হাজার টাকা হয়েছে। প্রতিব্যাগ সিমেন্ট ৩৮০ টাকা থেকে বেড়ে ৪৫০-৪৭০ টাকা হয়েছে। প্রতি টন পাথর সাড়ে ৩ হাজার থেকে সাড়ে ৪ হাজার টাকা, প্রতি হাজার ইট ৭ হাজার টাকা থেকে বেড়ে ১১ হাজার টাকা হয়েছে।

প্রতি ড্রাম বিটুমিন সাড়ে ৬ হাজার থেকে বেড়ে ১২ হাজার টাকা এবং লিকুইডি বিটুমিন প্রতি টন ৩৮ হাজার টাকা থেকে বেড়ে ৬৫ হাজার টাকা হওয়ার তথ্য দেওয়া হয় সংবাদ সম্মেলনে।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, চট্টগ্রামে এলজিইডি, শিক্ষা প্রকৌশল, সওজ, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত, চট্টগ্রাম উন্নয়ন করপোরেশন (চউক), চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ, পানি উন্নয়ন বোর্ড, বন্দর, সিটি করপোরেশন, রেলওয়ে জনস্বাস্থ্যসহ সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ১০ থেকে ১২ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে। ঠিকাদার রয়েছে প্রায় ৩ হাজার।

সাম্প্রতিক মাসগুলোতে নির্মাণসামগ্রীর দাম বাড়ার কারণে ঠিকাদাররা ‘দিশেহারা হয়ে পড়েছেন’ মন্তব্য করে টুটুল বলেন, “অনেকেই ব্যাংক ঋণে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কারণে দেউলিয়া হবার শঙ্কায় আছেন।

“নির্মাণ শ্রমিকের মজুরিসহ ইলেকট্রিক, হার্ডওয়ার, স্যানিটারি পণ্যের দামও বেড়েছে। এতে করে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।”

নতুন করে দাম নির্ধারণ না করায় বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের পুরনো কাজ করে ঠিকাদারা বিপুল পরিমাণ আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন বলেও দাবি করেন টুটুল।

ফোরামের সদস্য সচিব আসাদুজ্জামান টিটুসহ সদস্যরা সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক