চায়ের দোকানে বসা নিয়ে সংঘর্ষে চবি ছাত্রলীগের দুই পক্ষ

সন্ধ্যায় চায়ের দোকানে চেয়ারে বসা নিয়ে সিএফসি গ্রুপের এক কর্মীকে মারধর করে সিক্সটিনাইন গ্রুপের কর্মীরা। এ নিয়ে রাতে সংঘর্ষে জড়ায় দুই গ্রুপ।

চট্টগ্রাম ব্যুরোবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 16 Feb 2024, 03:13 AM
Updated : 16 Feb 2024, 03:13 AM

চায়ের দোকানে বসাকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের বগিভিত্তিক দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টেশনসংলগ্ন এলাকায় চায়ের দোকানে চেয়ারে বসাকে কেন্দ্র করে বগিভিত্তিক সিএফসি গ্রুপের এক কর্মীকে মারধর করেন সিক্সটি নাইন গ্রুপের কর্মীরা। এই ঘটনার জেরে বৃহস্পতিবার রাতে সংঘর্ষে জড়ায় এই দুই গ্রুপের কর্মীরা।

রাত ৮টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত সিএফসির কর্মীরা তাদের নিয়ন্ত্রণে থাকা শাহ আমানত হলের সামনে এবং সিক্সটি নাইনের কর্মীরা তাদের নিয়ন্ত্রণে থাকা শাহজালাল হলের সামনে অবস্থান নিয়ে সংঘর্ষে জড়ায়।

এসময় দুই গ্রুপের কর্মীরা ইটপাটকেল ও ককটেল নিক্ষেপ করে। সংঘর্ষের সময় তাদের রামদা ও লাঠি নিয়ে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া করতে দেখা যায়।

রাত সাড়ে ১০ টায় প্রক্টরিয়াল বডি অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এই ঘটনায় অন্তত ৭ জনের আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা কেন্দ্রের প্রধান কর্মকর্তা আবু তৈয়ব বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমরা ৭ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছি। এর মধ্যে ২ জনের আঘাত গুরুতর হওয়ায় তাদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।”

তাৎক্ষণিকভাবে আহতদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

সিএফসির নেতা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের গত কমিটির সহসভাপতি মির্জা খবির সাদাফ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “সিক্সটি নাইনের কর্মীদের ওপর কোনো নেতার নিয়ন্ত্রণ নেই। তারা উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে আমাদের এক কর্মীকে মারধর করলে আমরা তাদের প্রতিহত করেছি শুধু।”

অন্যদিকে সিক্সটি নাইন গ্রুপের নেতা গত কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইদুল ইসলাম সাইদ বলেন, “দুপুরের ঘটনার পর আমরা রাতে আবার সংঘর্ষে জড়াতে চাইনি। কিন্তু সিএফসির এক জুনিয়র কর্মী আমাদের গ্রুপের এক সিনিয়র কর্মীর সঙ্গে বেয়াদবি করে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে সংঘর্ষের সূত্রপাত করে।”

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর নুরুল আজিম সিকদার বলেন, শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার জন্য ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে আছে।

“সংঘর্ষের ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্তের রিপোর্ট পেলে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।”

এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে শাটল ট্রেনের বগিভিত্তিক গ্রুপ বিজয়ের সঙ্গে সিক্সটি নাইনের কর্মীদের সংঘর্ষে ৮ জন আহত হয়েছিলেন।