মিঠুন-শাহাদাতের সেঞ্চুরি, মাহমুদউল্লাহর ৪ রানের আক্ষেপ

বিসিএলের ফাইনালে উঠেছে বিসিবি দক্ষিণাঞ্চল ও বিসিবি উত্তরাঞ্চল।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 Nov 2022, 12:45 PM
Updated : 24 Nov 2022, 12:45 PM

বাকিদের ব্যর্থতার ভিড়ে লড়াই করেছেন মোহাম্মদ মিঠুন। তুলে নিয়েছেন ঝকঝকে সেঞ্চুরি। বিপরীতে বড় জুটি গড়েছেন শাহাদাত হোসেন ও মাহমুদউল্লাহ। শাহাদাত তিন অঙ্ক ছুঁতে পারলেও অল্পের জন্য ব্যর্থ হয়েছেন মাহমুদউল্লাহ। তবে অনায়াসেই জয় পেয়েছে তার দল। 

বিকেএসপির ৩ নম্বর মাঠে বিসিএলের ওয়ানডে সংস্করণের গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে বিসিবি মধ্যাঞ্চলকে ৫ উইকেটে হারিয়েছে বিসিবি উত্তরাঞ্চল। মিঠুনের অপরাজিত ১২১ রানের সৌজন্যে ২২৮ রানের সংগ্রহ দাঁড় করায় বিসিএলের গত আসরের চ্যাম্পিয়নরা। 

জবাবে শাহাদাত ১০১ ও মাহমুদউল্লাহ ৯৬ রানের ইনিংস খেললে ৩ ওভার আগেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় উত্তরাঞ্চল। সব ম্যাচ হেরে খালি হাতে টুর্নামেন্ট শেষ করেছে মধ্যাঞ্চল। 

লিস্ট ‘এ’ ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতেছেন শাহাদাত।

টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায় মধ্যাঞ্চল। হতাশ করেন আব্দুল মজিদ, সৌম্য সরকার, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুমিনুল হক, মোসাদ্দেক হোসেনরা। স্রেফ ৭২ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় মিঠুনের দল। 

ষষ্ঠ উইকেটে কিপার-ব্যাটসম্যান জাকের আলিকে নিয়ে ৭৮ রান যোগ করেন অধিনায়ক মিঠুন। যেখানে জাকেরের অবদান স্রেফ ১৫ রান। 

এরপর শেষ দিকে ব্যাটসম্যানদের নিয়ে দলকে দুইশ ছাড়ানো সংগ্রহ এনে দেন মিঠুন। নবম উইকেট জুটিতে হাসান মাহমুদের সঙ্গে ৪ ওভারে ৪৬ রান যোগ করেন তিনি। 

শেষ পর্যন্ত ১০ চার ও ৬ ছক্কায় ১১৪ বলে ১২১ রানে অপরাজিত থাকেন মিঠুন। ১৭৫ ম্যাচের লিস্ট ‘এ’ ক্যারিয়ারে এটি তার তৃতীয় সেঞ্চুরি। এই ইনিংসের সৌজন্যে এই সংস্করণে ৫ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করেন তিনি। 

রান তাড়া করতে নেমে ৪০ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে উত্তরাঞ্চল। রানের খাতা খুলতে পারেননি সৈকত। বড় কিছু করতে পারেননি লিটন দাস, ফজলে মাহমুদ রাব্বি। 

চতুর্থ উইকেটে জুটি গড়ে সব চাপ দূর করে দেন শাহাদাত ও মাহমুদউল্লাহ। দলের জয় প্রায় নিশ্চিত করে দলীয় ২২১ রানের মাথায় ফেরেন শাহাদাত। মুমিনুলের বলে এলবিডব্লিউ হলে ভাঙে ১৮১ রানের জুটি। ৭ চার ও ২ ছয়ে ১০১ রান করেন শাহাদাত। 

তখন জয়ের বাকি ছিল ৮ রান। মাহমুদউল্লাহ ছিলেন সেঞ্চুরি থেকে ১০ রান দূরে। শান্তর বলে ছক্কা মেরে আরও কাছে পৌঁছে যান তিনি। কিন্তু উচ্চাভিলাষী হয়ে ফের ছক্কার চেষ্টায় স্টাম্পড হয়ে ফেরেন অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান। সমাপ্তি ঘটে ৮ চার ও ৪ ছক্কায় সাজানো ইনিংসের। 

সংক্ষিপ্ত স্কোর 

বিসিবি মধ্যাঞ্চল: ৫০ ওভারে ২২৮/৮ (মজিদ ১৪, সৌম্য ১১, শান্ত ১৫, মুমিনুল ০, মিঠুন ১২১*, মোসাদ্দেক ৯, জাকের ১৫, তাইজুল ৩, রবিউল ৯, হাসান ১৮*; সাইফ উদ্দিন ১০-১-৩১-২, রিপন ১০-৩-৪২-১, শফিকুল ১০-১-৫৪-২, রকিবুল ১০-১-৩০-১, সৈকত ৮-০-৩৪-২, শামীম ২-০-৩২-০) 

বিসিবি উত্তরাঞ্চল: ৪৭ ওভারে ওভারে ২২৯/৫ (সৈকত ০, শাহাদাত ১০১, লিটন ৯, ফজলে রাব্বি ১১, মাহমুদউল্লাহ ৯৬, আকবর ০*, শামীম ১*; রবিউল ৭-১-৩৯-১, মুশফিক ৮-১-৩৬-২, হাসান ৭-১-৪০-০, তাইজুল ১০-০-২৯-০, মোসাদ্দেক ৯-০-৪৯-০, মুমিনুল ৫-০-২৬-১, শান্ত ১-০-৭-১) 

ফল: বিসিবি উত্তরাঞ্চল ৫ উইকেটে জয়ী 

ম্যান অব দা ম্যাচ: শাহাদাত হোসেন 

নাঈম শেখের টানা তৃতীয় ফিফটি 

দারুণ ছন্দে রয়েছেন বাঁহাতি ওপেনার মোহাম্মদ নাঈম শেখ। বিসিএলে ফিফটির হ্যাটট্রিক করেছেন তিনি। টানা তৃতীয় জয়ে ফাইনালে উঠেছে তার দল বিসিবি দক্ষিণাঞ্চল। 

বিকেএসপির ৩ নম্বর মাঠে ইসলামী ব্যাংক পূর্বাঞ্চলের বিপক্ষে দক্ষিণাঞ্চলের জয় ৬ উইকেটে। আগে ব্যাট করে ১৭০ রানের বেশি করতে পারেনি মুশফিকুর রহিমের পূর্বাঞ্চল। জবাবে নাঈম শেখের ৮২ রানে ভর করে ৫ ওভার আগেই ম্যাচ জিতে নেয় দক্ষিণাঞ্চল। 

রোববার দিবা-রাত্রির ফাইনালে উত্তরাঞ্চলের মুখোমুখি হবে তারা। মধ্যাঞ্চলের বিপক্ষে জয় দিয়ে শুরু করলেও পরের দুই ম্যাচ হেরে বিদায় নিল পূর্বাঞ্চল। 

আগেই ছুটি নিয়ে রাখায় পূর্বাঞ্চলের হয়ে শেষ ম্যাচে খেলেননি তামিম ইকবাল। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে দলের পক্ষে লড়েছেন কেবল অধিনায়ক মুশফিক। 

উইকেটে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি মাহমুদুল হাসান জয়, পারভেজ হোসেন, ইমরুল কায়েস, আফিফ হোসেনরা। পঞ্চাশের আগে পড়ে ৪ উইকেট। প্রীতম কুমার রয়েসয়ে শুরু করলেও কামরুল ইসলাম রাব্বির বলে বড় শটের আশায় ধরা পড়েন সীমানায়। একই ওভারে ফেরেন শেখ মেহেদি হাসান। 

মুশফিক বিদায় নেন ইনিংসের ৪৩তম ওভারে। আউট হওয়ার আগে চারটি চার ও একটি ছক্কায় ১১১ বলে ৬৮ রান করেন তিনি। 

দক্ষিণাঞ্চলের হয়ে ১০ ওভারে ৩৭ রান খরচায় ৪ উইকেট পেয়েছেন রাব্বি। এছাড়া ১০ ওভারে ২৪ রান দিয়ে ২ উইকেট ধরেছেন জিয়াউর রহমান। 

ছোট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে অল্পেই সাজঘরে ফিরে যান এনামুল হক ও জাকির হাসান। ২৩ রানে ২ উইকেট হারিয়ে খানিকটা চাপে পড়ে দক্ষিণাঞ্চল। 

তৃতীয় উইকেটে ১০৪ রানের জুটি গড়ে সব শঙ্কা উড়িয়ে দেন নাঈম শেখ ও নাঈম ইসলাম। সেঞ্চুরির সম্ভাবনা জাগান নাঈম শেখকে বোল্ড করেন মেহেদি। 

নাঈম ইসলাম আউট হন ২৬ রান করে। নাসির হোসেন, তৌহিদ হৃদয়দের দায়িত্বশীল ব্যাটে সহজেই লক্ষ্য তাড়া করে ফেলে দক্ষিণাঞ্চল। 

পূর্বাঞ্চলের পক্ষে ১০ ওভারে ৪ মেইডেনসহ স্রেফ ২২ রান খরচায় ৩ উইকেট নেন শেখ মেহেদি। 

সংক্ষিপ্ত স্কোর 

ইসলামী ব্যাংক পূর্বাঞ্চল: ৫০ ওভারে ১৭০ (মাহমুদুল ৬, পারভেজ ১, ইমরুল ১৬, মুশফিক ৬৮, আফিফ ৮, প্রীতম ১০, শেখ মেহেদি ১, শরিফউল্লাহ ১৫, রাজা ২২, তানভির ১৯*, ইবাদত ১; শরিফুল ১০-১-৪৪-১, রাব্বি ১০-১-৩৭-৪, নাসুম ১০-১-৩২-১, জিয়াউর ১০-১-২৪-২, আরাফাত ১০-১-৩৩-১) 

বিসিবি দক্ষিণাঞ্চল: ৪৫ ওভারে ১৭১/৪ (নাঈম শেখ ৮২, এনামুল ০, জাকির ১৩, নাঈম ইসলাম ২৬, নাসির ২৩*, তৌহিদ ২০*; রাজা ৩.২-০-২৬-০, শেখ মেহেদি ১০-৪-২২-৩, শরিফউল্লাহ ১০-১-৩১-০, ইবাদত ৯.৪-১-৩৮-০, তানভির ১০-০-৩৮-১, আফিফ ১-০-১১-০, ইমরুল ১-০-২-০) 

ফল: বিসিবি দক্ষিণাঞ্চল ৬ উইকেটে জয়ী 

ম্যান অব দা ম্যাচ: নাঈম শেখ

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক