‘সম্পূর্ণ দোষ ক্রিকেটারদের’

টি-টোয়েন্টি সিরিজে ভয়ডরহীন ক্রিকেট দেখার চাওয়া পূরণ হয়নি, বলছেন টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 August 2022, 03:20 PM
Updated : 3 August 2022, 03:20 PM

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথমবার টি-টোয়েন্টি সিরিজ হারের সব দায় ক্রিকেটারদের দিলেন জাতীয় দলের টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ। বাংলাদেশের সাবেক এই অধিনায়কের মতে, নির্ভয় ক্রিকেটের চাওয়া পূরণ করতে পারেনি দল। ঘাটতি দেখছেন তিনি ক্রিকেটারদের নিবেদনেও।

তিন ম‍্যাচের এই সিরিজে ২-১ ব‍্যবধানে হারে বাংলাদেশ। সিরিজ নির্ধারণী তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে একটা পর্যায়ে ম্যাচে প্রবল দাপট দেখাতে পারলেও পরে বাজে খেলে হেরে যায় ১০ রানে।

সিরিজ হারার পর জিম্বাবুয়েতে বুধবার গণমাধ‍্যমের মুখোমুখি হয়ে মাহমুদ বলেন, এই হারে তিনি ভীষণ হতাশ।

“আমরা বারবার বলি, নিজেদের ভুল থেকে শিক্ষা নিতে। কিন্তু আমরা কবে সে শিক্ষাটা নেব? আমি সম্পূর্ণ দোষ দেব ক্রিকেটারদের। তাদের প্রয়োগ সম্পূর্ণ ভুল ছিল।”

জিম্বাবুয়েতে ভয়ডরহীন ক্রিকেট দেখতে চেয়েছিলেন অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান ও টিম ম‍্যানেজমেন্ট। সিরিজ দেখে সাবেক অধিনায়ক মাহমুদের মনে হয়েছে, ভয়ের বৃত্তেই রয়ে গেছে দল।

“ছেলেদের মধ্যে ভয়ের একটা ব্যাপার কাজ করে। আমি বলব, ভীতি নিয়ে খেললে এই সংস্করণে জেতা খুবই কঠিন। আমার মনে হয়, ব‍্যাটিংয়ে ভয়টা থাকছে, বোলিংয়ে ভয়টা থাকছে। তরুণ দলের যেভাবে ফিল্ডিং করা উচিত, সেটাও হয়নি। প্রতিটি ম্যাচেই ক‍্যাচ মিস হয়েছে, মিস ফিল্ডিং তো হয়েছেই।”

“কোচরা যতই কোচিং করাক, আমি খুব কাছ থেকে তো দেখি, মাঠে কাজে না লাগাতে পারলে তো লাভ হচ্ছে না। অনুশীলনে ঠিকই ক্যাচ ধরছে, মাঠে চাপের জন্য পারছে না। এই চাপ থেকে ওদেরই বের হয়ে আসতে হবে।”

সবশেষ ১৫ ম‍্যাচে বাংলাদেশের জয় মাত্র দুটি। অপেক্ষাকৃত শক্তিশালী দলের বিপক্ষে হার নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই মাহমুদের। কিন্তু জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হারের পর খেলোয়াড়দের সামর্থ‍্য নিয়েই সংশয় জেগেছে এই বিসিবি পরিচালকের মনে।

“ওরা সকল সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছে। (এরপরও) তারা না পারলে আমরা বলব, তাদের সক্ষমতা নেই। তারা পেশাদার খেলোয়াড়। এখন তাদেরই বের হয়ে আসতে হবে এখান থেকে।”

“তারা যদি না পারে তাহলে আমার বলতে হবে, তাদের সামর্থ‍্য নেই। ওটাই আমাদের চিন্তা করতে হবে। এখনই সেরা সময়, তাদের বের হয়ে আসতে হবে। তাদের কী করতে হবে, সেটা তাদেরই বের করতে হবে।”

পাইপ লাইনে খেলোয়াড় সঙ্কট নিয়ে সব সময়ই আলোচনা হয়। মাহমুদের এবারের দাবি বেশ চমক জাগানিয়া। তার মতে টি-টোয়েন্টি মিডল অর্ডার ব‍্যাটসম‍্যানেরই সঙ্কট রয়ে গেছে। একই সঙ্গে খেলোয়াড়দের নিবেদন নিয়েও প্রশ্ন তুললেন তিনি।

“যেহেতু সোহান চোট পেয়েছিল, আমাদের মিডল অর্ডারে একটা জায়গা ফাঁকা হয়ে গিয়েছিল। দেশের যদি টি-টোয়েন্টির বিশেষজ্ঞ মিডল অর্ডার কাউকে বলেন, ওই রকম তো আর খেলোয়াড় নাই, এটাও তো সত‍্যি কথা। হঠাৎ করে তো জন্ম দিতে পারবেন না।”

“আমরা জানি যে, ওভারে আমাদের ১০-১২ রান করে লাগবে। কেউ দেখলাম না যে, একটা ছয় মারার চেষ্টা করছে। সবাই ২-১ করে নিচ্ছে। আমি যদি ওইভাবে বলি, একটা স্কোর করে নিজের জায়গাটা ঠিক রাখলাম, এটা কী ওই ধরনের কিছু কি না, আমি ঠিক জানি না।”

“আপনি যদি (টি-টোয়েন্টিতে) ১০০ স্ট্রাইক রেটে খেলেন, তাহলে এখানে রান তাড়া করে জিততে পারবেন না। তারা জানে যে তাদের জায়গা নিয়ে এত কাড়াকাড়ি নেই। তাদের ঠিকঠাক সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। এমন অবস্থায় তো মন খুলে খেলা উচিত। আমি ওই মন খুলে খেলাটা দেখতে পাচ্ছি না।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক