অনেকেই বলেছিল হাত দিলে পুড়ে যেতে পারে: ভূমিমন্ত্রী

“আমাদের সচিবসহ সংশ্লিষ্ট সব কর্মকর্তাই সার্বিকভাবে কাজ করেছেন,” বলেন তিনি।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 30 Jan 2024, 02:54 AM
Updated : 30 Jan 2024, 02:54 AM

জমিজমা নিয়ে প্রতারণা ঠেকাতে ‘ভূমি অপরাধ প্রতিরোধ ও প্রতিকার আইন’ প্রণয়নের প্রক্রিয়া যে খুব সহজ ছিল না, তা জানালেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী। তিনি বললেন, এই আইনে হাত দিলে ‘হাত পুড়ে যেতে পারে’ বলেও কেউ কেউ ভয় দেখিয়েছিলেন তাকে।

সচিবালেয়ে বুধবার নতুন ভূমি অপরাধ প্রতিরোধ ও প্রতিকার আইন নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান ভূমিমন্ত্রী। দলিল যার, জমি তার; অর্থাৎ জমি দখলে থাকলেই জমির মালিকানা নিশ্চিত হবে না- এমন বিধান রেখে গত মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে ভূমি অপরাধ প্রতিরোধ ও প্রতিকার বিল পাস হয়েছে।

ভূমিমন্ত্রী বলেন, “এটি ঐতিহাসিক মুহূর্ত ও ঐতিহাসিক দিন আমাদের জন্য। গতকালকে যে তিনটি বিল সংসদে পাস করলাম তারমধ্যে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ যে বিলটি ছিল সেটি হল ভূমি অপরাধ প্রতিরোধ ও প্রতিকার আইন। যেটা অধিক আগ্রহের, দীর্ঘদিন ধরে দেশবাসী অধিক আগ্রহে অপেক্ষা করছিলেন।

“অনেকে একটু হতাশ হয়ে গিয়েছিল মাঝখানে, এটা মনে হয় আর আলোর মুখ দেখবে না। আল্লাহর অশেষ রহমত, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবদান, সাহসিকতার কারণে আমরা জাতিকে একটি সুন্দর বিল উপহার দিতে সক্ষম হয়েছি। এটা আসলে খুবই প্রয়োজন ছিল।”

ভূমি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই এই খাতে মানুষের হয়রানি কমাতে এবং প্রতারণার পথগুলো বন্ধের চিন্তাভাবনা করে তা বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেওয়ার কথা বলেন ভূমিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, “এটা একটা বিশাল জিনিস ‌এবং এটা অনেক জটিল। এই জটিলতায় হাত দেওয়াটা একটা সাহসিকতার বিষয় ছিল। শুরুতে আমাকে অনেকেই বলেছিল যে এটতে হাত দেওয়াটা উচিত হবে কিনা এবং হাত দিলে হাত পুড়েও যেতে পারে। কারণ এটা খুব সেনসিটিভ। এখানে আইনের অনেক বিষয় আছে।

“তাকে বললাম, আমার তো সিনসিয়ারিটি আছে এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও চান এদেশের মানুষকে সেবা দিতে। আমরা সেবক হিসেবে থাকতে চাই। সুতরাং উনার যেহেতু সাপোর্ট আছে, আমার মনে হয় আল্লাহর রহমতে আমি যদি চেষ্টা করি সেটা সম্ভব হবে।”

ভূমি অপরাধ প্রতিরোধ ও প্রতিকার আইন প্রণয়নের আগে অনেক কাজ করতে হয়েছে জানিয়ে সাইফুজ্জামান বলেন, “পেছনের চিত্র আপনারা অনেক কিছু দেখেননি। আমাদের সচিবসহ সংশ্লিষ্ট সব কর্মকর্তাই কিন্তু সার্বিকভাবে কাজ করেছেন। উনাদের আন্তরিকতার কারণেই এটা সম্ভব হয়েছে। না হলে কিন্তু আমার একার পক্ষে আসলে এটা সম্ভব হত না। কারণ এখানে অনেকগুলো বিষয় আছে।”

(প্রতিবেদনটি প্রথম ফেইসবুকে প্রকাশিত হয়েছিল ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩ তারিখে: ফেইসবুক লিংক)