উপস্থাপিকা অজ্ঞান, ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী প্রার্থীদের লাইভ বিতর্ক সমাপ্ত

চোখের সামনে উপস্থাপিকাকে সংজ্ঞা হারিয়ে পড়ে যেতে দেখে হতচকিত ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিজ ট্রাস বলে ওঠেন ‘ওহ মাই গড’।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 27 July 2022, 05:46 AM
Updated : 27 July 2022, 05:46 AM

উপস্থাপিকা অজ্ঞান হয়ে যাওয়ায় পর যুক্তরাজ্যের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌঁড়ে থাকা দুই প্রার্থীর মধ্যে চলা লাইভ বিতর্কের নাটকীয় সমাপ্তি হয়েছে।

ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির প্রধান ও প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য লড়াইয়ে থাকা ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিজ ট্রাস ও সাবেক অর্থমন্ত্রী ঋষি সুনাক মঙ্গলবার টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারিত বিতর্কে অংশ নিচ্ছিলেন, অনুষ্ঠানের প্রায় অধঘণ্টা পার হওয়ার পর স্টুডিওতে কোনো কিছু বা কেউ পড়ে যাওয়ার জোরালো শব্দ শোনা যায়।

এ সময় টেলিভিশনের ক্যামেরা প্রার্থী ট্রাসের ওপর ছিল, তিনি বলছিলেন তার পরিকল্পনার বিষয়ে; চোখের সামনে উপস্থাপিকাকে সংজ্ঞা হারিয়ে পড়ে যেতে দেখে তার যে প্রতিক্রিয়া হয় তা দেখেছেন দর্শকরা। তাৎক্ষণিকভাবে হতচকিত, অপ্রস্তুত ট্রাস তার দুই হাত মুখের কাছে এনে বলে ওঠেন ‘ওহ মাই গড’, সম্প্রচার তখনই থামিয়ে দেওয়া হয়।

ব্রিটেনের টক টিভি ও সান সংবাদপত্র এ বিতর্কের আয়োজক। টক টিভি জানিয়েছে, উপস্থাপিকা কেইট ম্যাকক্যান অজ্ঞান হয়ে গিয়েছিলেন; খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।

টুইটারে টক টিভি বলেছে, “যদিও তিনি ভালো আছেন, চিকিৎসকদের পরামর্শ হচ্ছে বিতর্কটা অব্যাহত রাখা আমাদের উচিত হবে না। আমরা আমাদের দর্শক ও শ্রোতাদের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী।”

পরে ট্রাস এবং সুনাক, উভয়েই টুইটারে বার্তা দিয়ে ম্যাককানের সুস্থতা কামনা করেন।

ট্রাস বলেন, “কেইট ম্যাকক্যান ভালো আছেন জেনে চিন্তামুক্ত হলাম। এ ধরনের একটি সুন্দর বিতর্ক শেষ হয়ে যাওয়ায় সত্যিই দুঃখিত।”

নিজের টুইটে সুনাকও প্রায় একই ধরনের কথা বলেছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

এই বিতর্কের উপস্থাপক হওয়ার কথা ছিল সানের পলিটিক্যাল এডিটর হ্যারি কোলের, আর টকটিভির উপস্থাপিকার হওয়ার কথা ছিল সহ-উপস্থাপক; কিন্তু পরীক্ষায় কোলের কোভিড-১৯ পজিটিভ আসার পর তিনি সরে যেতে বাধ্য হন। মঙ্গলবার দুই প্রার্থীর মধ্যে সরাসরি বিতর্কের দ্বিতীয় আয়োজন ছিল।

এ আয়োজন এভাবে শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত ট্রাস ও সুনাক ফের তাদের কর ও ব্যয় পরিকল্পনা এবং জীবনযাত্রার ব্যয় সংকট কীভাবে সামাল দেবেন তা নিয়ে তর্কে মেতে উঠেছিলেন।

ব্রিটিশ কনজারভেটিভ পার্টির সদস্যদের ভোটে ট্রাস ও সুনাকের মধ্যে একজন দলটির নেতা ও দেশটির পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হবেন।

দলটির সদস্যদের মধ্যে ইউগভের চালানো এক জরিপে দেখা গেছে, সোমবারের প্রথম বিতর্কে ট্রাস ভালো করেছেন বলে মনে করেন জরিপে অংশ নেওয়াদের ৫০ শতাংশ আর ৩৯ শতাংশ সুনাকের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন।

কনজারভেটিভ পার্টির প্রায় দুই লাখ সদস্যদের মধ্যে ভোট হওয়ার পর ৫ সেপ্টেম্বর বিজয়ী প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হবে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক