দিল্লিতে কংগ্রেসের বিক্ষোভ, রাহুল গান্ধী ও প্রিয়াঙ্কা আটক

দ্রব্যমূল্য, বেকারত্ব, জিএসটি’র হার বৃদ্ধির প্রতিবাদে শুক্রবার দিল্লিতে দলের সদরদপ্তরের বাইরে বিক্ষোভ করছিলেন কংগ্রেসের নেতারা।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 5 August 2022, 11:07 AM
Updated : 5 August 2022, 11:07 AM

ভারতের রাজধানী দিল্লিতে প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের বড় ধরনের বিক্ষোভ চলাকালে নেতা রাহুল গান্ধী ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ভদ্রকে আটক করেছে পুলিশ।

দ্রব্যমূল্য, বেকারত্ব, জিএসটি’র হার বৃদ্ধির প্রতিবাদে শুক্রবার দিল্লিতে দলের সদরদপ্তরের বাইরে বিক্ষোভ করছিলেন কংগ্রেসের নেতারা। দিল্লি পুলিশ সেখান থেকেই নেতাদের আটক করেছে।

এনডিটিভি জানায়, কংগ্রেস প্রধান সোনিয়া গান্ধী ও রাহুল গান্ধীর নেতৃত্বে কংগ্রেসের সংসদ সদস্যরা এদিন কালো পোশাক পরে পার্লামেন্টে ক্রমবর্ধমান বেকারত্ব ও নিত্যপণ্যের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদ করেছেন।

তাছাড়া, কংগ্রেস নেতারা সরকারের বিরুদ্ধে তদন্ত সংস্থার অপব্যবহারের অভিযোগ তোলেন। এ নিয়ে সংসদে হট্টগোল সৃষ্টি হলে রাজ্যসভার কার্যক্রম স্থগিত করা হয়। পরে নিজ দলের দপ্তরের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশে যোগ দেন নেতা রাহুল গান্ধী।

ওদিকে, কংগ্রেসের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটির (সিডব্লিউসি) সদস্য ও জ্যেষ্ঠ নেতারা ‘প্রধানমন্ত্রী ভবন ঘেরাও’ কর্মসূচির পরিকল্পনা নিয়েছিলেন। অন্যদিকে, লোকসভা ও রাজ্যসভার এমপি’রা ‘চল রাষ্ট্রপতি ভবন’ কর্মসূচি পালনের পরিকল্পনা করেন।

এসব কর্মসূচির প্রেক্ষিতে দিল্লির কিছু কিছু অংশে বড় ধরনের জমায়েত নিষিদ্ধ করে নোটিস জারি করে প্রশাসন। সেইসঙ্গে বিধিনিষেধের উল্লেখ করে দিল্লি পুলিশ শুক্রবার কংগ্রেসকে বিক্ষোভের অনুমতি দিতে অস্বীকার করে।

এরপরই কংগ্রেসের সদরদপ্তরের বাইরের বিক্ষোভ থেকে রাহুল গান্ধী ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধীসহ অন্যান্য কংগ্রেস নেতাদের আটক করা হয় এবং তাদেরকে দিল্লির কিংসওয়ে ক্যাম্পের পুলিশ লাইনে রাখা হয়েছে।

পুলিশের হাতে আটক হওয়ার আগে বিক্ষোভ-সমাবেশে রাহুল গান্ধী বলেছিলেন, “আমরা এখন গণতন্ত্রের মৃত্যু দেখছি। ভারত প্রায় এক শতাব্দী আগে যা তিল তিল করে গড়ে তুলেছিল, তা আপনাদের চোখের সামনেই ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। যারাই এর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছে, তাদের ওপরই স্বৈরাচারীরা বর্বর হামলা করেছে। তাদেরকে গ্রেপ্তার করেছে, কারাগারে পাঠিয়েছে এবং পিটিয়েছে।”

অভিযোগ করে রাহুল গান্ধী বলেছেন, “সরকারের একমাত্র কর্মসূচি মানুষের প্রতিবাদ দমন করা। সরকার চায় না নিত্যপণ্যের দাম বাড়া, বেকারত্ব, সহিংসতা নিয়ে সমাজে বিক্ষোভ হোক।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক