নেভাডায় রিপাবলিকান প্রাইমারিতে হ্যালির শোচনীয় হার

মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত এ প্রাইমারিতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় একমাত্র সক্রিয় প্রার্থী ছিলেন হ্যালি।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 7 Feb 2024, 12:17 PM
Updated : 7 Feb 2024, 12:17 PM

যুক্তরাষ্ট্রে ২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী বাছাইয়ে প্রাইমারির ভোটে নেভাডা রাজ্যে শোচনীয় হার হয়েছে নিকি হ্যালির।

মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত এ প্রাইমারিতে প্রতিযোগিতায় অংশ নেননি নিকি হ্যালির প্রতিপক্ষ সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। হ্যালিই ছিলেন সেখানে একমাত্র সক্রিয় প্রার্থী। তারপরও হেরে গেছেন তিনি।

ব্যালট পেপারে ‘এই প্রার্থীদের কোনওটিই নয়’ (নান অব দিজ ক্যান্ডিডেটস) লেখা একটি ঘর ছিল। আর ট্রাম্প-সমর্থক রাজ্য নেভাডার প্রাইমারির ভোটে এটিই নিকি হ্যালির জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে উঠেছিল।

‘নান অব দিজ ক্যান্ডিডেটস’ বেছে নিয়েছেন বেশি সংখ্যক ভোটার। আর তাতেই বিব্রতকর হার হয়েছে হ্যালির। দুই-তৃতীয়াংশের বেশি ভোট গণনায় দেখা গেছে, ‘নান’ ভোট পড়েছে ৬৩ শতাংশ। আর হ্যালি পেয়েছেন ৩১ শতাংশ ভোট।

আগামী বৃহস্পতিবারে রাজ্যটিতে অনুষ্ঠিত হবে ককাস। তবে তাতে অংশ নেবেন না হ্যালি। তার প্রতিপক্ষ ট্রাম্প এখন আলাদাভাবে অনুষ্ঠিত এই ককাসে নেভাডার সব ডেলিগেটদের ভোটই জিততে চলেছেন।

এর আগে আইওয়া ককাস আর নিউ হ্যাম্পশায়ারে প্রাইমারিতে জয় পেয়ে ট্রাম্প তার রিপাবলিকান প্রার্থীতার আসন এরই মধ্যে পাকা করে ফেলেছেন।

বৃহস্পতিবারের ককাস পরিচালনা করবে ট্রাম্প-সমর্থক স্টেট পার্টি। ব্যালটে যেহেতু থাকবেন ট্রাম্প একাই। ফলে তার জয় একরকম নিশ্চিত। সেই সঙ্গে জুলাইয়ে অনুষ্ঠেয় রিপাবলিকান ন্যাশনাল কনভেনশনে রাজ্যের ২৬ ডেলিগেটেও পাবেন তিনি।

ফলে, নেভাডা প্রাইমারিতে ‘নান’ ভোট জয়ী হওয়ার কারণে রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী বাছাই প্রতিযোগিতায় তা কোনও প্রভাব ফেলবে না। ভোটাররা মঙ্গলবারের প্রাইমারিতে যেমন ভোট দিয়েছেন, তেমন বৃহস্পতিবারের ককাসেও ভোট দিতে পারেন।

নেভাডার রিপাবলিকান গভর্নর ও ট্রাম্প-সমর্থক জো লোম্বার্ডো আগেই বলেছিলেন, তিনি মঙ্গলবারের প্রাইমারিতে ‘নান অব দিজ ক্যান্ডিডেটস’ এ ভোট দেবেন আর বৃহস্পতিবারের ককাসে ট্রাম্পকে ভোট দেবেন।

একই রাজ্যে প্রাইমারি এবং ককাস হওয়ার এই পদ্ধতি মূলত চালু হয়েছিল রাজ্য আইনসভায় রিপাবলিকান এবং ডেমোক্র্যাটিক পার্টির মধ্যে বিরোধের কারণে। ২০২০ সালে ভোট অনুষ্ঠানে দেরি হওয়ার পর রাজ্য আইনসভা ২০২১ সালে প্রাইমারি অনুষ্ঠান করতে আইন পাস করে।

ককাস ভোট পদ্ধতিতে মানুষকে একটি নির্দিষ্ট সময়ে হাজির হয়ে ভোট দিতে হয়। আর প্রাইমারি পদ্ধতিতে সাধারণ ভোটের মতোই কয়েকঘন্টা ধরে ভোট কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ চলে। তাছাড়া, ককাস ভোট পরিচালনা করে থাকে রাজ্যের রাজনৈতিক দলগুলো, খোদ রাজ্য নয়।

ট্রাম্প-সমর্থক নেভাডা রিপাবলিকান পার্টি ৮ ফেব্রুয়ারিতে তাদের ককাস অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত জানিয়েছিল গত সপ্তাহেই। ট্রাম্প নেভাডার ভোটারদেরকে মঙ্গলবারের প্রাইমারিকে অগ্রাহ্য করে কেবল অনুষ্ঠিত হতে চলা ককাসেই ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন।

ওদিকে, ট্রাম্পের প্রতিপক্ষ হ্যালি নেভাডায় প্রচার চালাননি। এর পরিবর্তে তিনি মনোনিবেশ করেছেন তার নিজ রাজ্য সাউথ ক্যারোলাইনার প্রচারে। সেখানে ২৪ ফেব্রুারিতে প্রাইমারি ভোট হওয়ার কথা রয়েছে।

তবে এ পর্যন্ত কোনও ককাস এবং প্রাইমারিতেই জয় না পেয়ে তার মনোনয়ন একরকম অনিশ্চিত। তারপরও প্রার্থীতার দৌড় থেকে সরে যেতে নারাজ হ্যালি। সাউথ ক্যারোলাইনায় শেষ চেষ্টাটি তিনি করতে চান। যদিও সেখানেও জনমত জরিপগুলোতে ট্রাম্পের অনেক পেছনেই পড়ে থাকতে দেখা যাচ্ছে হ্যালিকে।