১% ধনীর হাতে ভারতের ৪১% সম্পদ: অক্সফাম

অক্সফাম জানিয়েছে, ভারতে ধনীদের চেয়ে দরিদ্র ও মধ্যবিত্তদের বেশি কর দিতে হয়।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 17 Jan 2023, 10:26 AM
Updated : 17 Jan 2023, 10:26 AM

ভারতের সবচেয়ে ধনী ১ শতাংশ ২০২১ সালে দেশটির মোট সম্পদের ৪০ দশমিক ৫০ শতাংশের মালিক ছিল বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে অক্সফাম।

২০২০ সালে ভারতে ১০২ জন বিলিওনেয়ার থাকলেও ২০২২ সালে বেড়ে ১৬৬ জনে দাঁড়িয়েছে বলে প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে।

অপরদিকে ভারতের দরিদ্ররা ‘বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজনীয় রসদটুকুও যোগাতে অক্ষম’ বলে এতে বলা হয়েছে।

ক্ষুধা ও দারিদ্র্য বিমোচনে নিয়োজিত আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা অক্সফাম এই ‘দৃষ্টিকটু’ অসাম্য কমিয়ে আনার লক্ষ্যে অতি ধনীদের ওপর ‘সম্পদ কর’ আরোপ করতে ভারতের অর্থমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

সোমবার সুইজার‌ল্যান্ডের দাভোসে ওয়াল্ড ইকোনোমিক ফোরাম শুরু হওয়ার দিনটিতেই অক্সফামের ‘সারভাইভাল অব দ্য রিচেস্ট’ নামের এই প্রতিবেদনটি প্রকাশ পায়, জানিয়েছে বিবিসি।  

প্রতিবেদনে ভারতে সম্পদ বন্টনে বিরাজমান ব্যাপক বৈষম্যকে তুলে ধরা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, দেশটিতে ২০১২ সাল থেকে ২০২১ সালের মধ্যে তৈরি হওয়া সম্পদের ৪০ শতাংশেরও বেশি জনসংখ্যার মাত্র এক শতাংশের হাতে গিয়েছে আর মাত্র ৩ শতাংশ সম্পদ নিচের ৫০ শতাংশের দিকে গেছে। 

২০২২ সালে ভারতের শীর্ষ ধনী গৌতম আদানির সম্পদ ৪৬ শতাংশ বেড়েছে আর দেশটির শীর্ষ ১০০ ধনীর সম্পদের পরিমাণ ৬৬০ বিলিয়ন ডলার ছুঁয়েছে।

২০২২ সালে ব্লুমবার্গের ধনীর তালিকায় বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের মধ্যে আদানি দ্বিতীয় স্থানে ছিলেন। ওই বছরে বিশ্বব্যাপ যাদের সম্পদ সবচেয়ে বেশি বেড়েছে তাদের তালিকারও শীর্ষ ছিলেন গুজরাটি এই ব্যবসায়ী।

অক্সফাম জানিয়েছে, ভারতে ধনীদের চেয়ে দরিদ্র ও মধ্যবিত্তদের বেশি কর দিতে হয়।

সংস্থাটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশটির মোট পণ্য ও পরিষেবা করের প্রায় ৬৪ শতাংশ আসে আয় বিবেচনায় নিচের দিকে থাকা ৫০ শতাংশ জনগণের কাছ থেকে আর শীর্ষ ১০ শতাংশ ধনীদের কাছ থেকে আসে মাত্র ৪ শতাংশ। 

অক্সফাম ইন্ডিয়ার প্রধান নির্বাহী অমিতাভ বেহার বলেছেন, “ভারত দুর্ভাগ্যবশত দ্রুত শুধুমাত্র ধনীদের একটি দেশ হয়ে ওঠার পথে রয়েছে। দেশটির প্রান্তিক দলিত, আদিবাসী, মুসলিম, নারী ও অনানুষ্ঠানিক খাতের শ্রমিকরা এমন একটি ব্যবস্থায় ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন যা শুধু ধনীদের বেঁচে থাকা নিশ্চিত করে।” 

ধনীরা এখন হ্রাসকৃত কর্পোরেট ট্যাক্স, কার ছাড় ও অন্যান্য প্রণোদনা থেকে লাভবান হচ্ছেন বলে প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে।

এই অসমতা দূর করতে আসছে বাজেটে সম্পদ করের মতো প্রগতিশীল কর আরোপের পদক্ষেপ নিতে ভারতের অর্থমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে অক্সফাম।

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, ভারতের বিলিওনেয়ারদের সমস্ত সম্পদের ওপর ২ শতাংশ কর আরোপ করলে তা দিয়ে দেশটির অপুষ্টিতে ভোগা জনগণকে আগামী তিন বছর ধরে প্রয়োজনীয় পুষ্টি সরবরাহ করা যাবে। 

১ শতাংশ সম্পদ কর আরোপ করলে তার আয় দিয়ে ভারতের বৃহত্তম স্বাস্থ্যসেবা স্কিম ন্যাশনাল হেলথ মিশনে দেড় বছরেরও বেশি সময় ধরে তহবিল যোগানো যাবে।

অক্সফাম বলেছে, ভারতের শীর্ষ ১০০ ধনীর ওপর আড়াই শতাংশ কর আরোপ করলে অথবা শীর্ষ ১০ ধনীর ওপর ৫ শতাংশ কর আরোপ করলে ১৫ কোটি শিশুকে স্কুলে ফিরিয়ে আনার জন্য প্রয়োজনীয় তহবিল যোগাড় করা যাবে।

‘বৈষম্য হ্রাস ও গণতন্ত্র পুনরুজ্জীবিত করতে’ অতি ধনীদের ওপর করারোপ করা দরকার বলে মন্তব্য করেছেন অক্সফাম ইন্টারন্যাশনালের নির্বাহী পরিচালক গ্যাব্রিয়েলা বুচার।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক