বিদ্যুৎ গ্রিড থেকে জেপোরোজিয়াকে বিচ্ছিন্ন করতে চায় রাশিয়া: ইউক্রেইন

ইউক্রেইনের দক্ষিণাঞ্চলে জেপোরোজিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের অবস্থান। রুশ বাহিনী গত মার্চ থেকে কেন্দ্রটি দখল করে রেখেছে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 19 August 2022, 01:08 PM
Updated : 19 August 2022, 01:08 PM

রাশিয়া বাহিনী তাদের দখলে থাকা জেপোরোজিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে কর্মীদের প্রবেশে কড়াকড়ি করছে বলে জানিয়েছে ইউক্রেইনের পরমাণু সংস্থা ‘এনারোঅ্যাটম’।

সতর্ক করে দিয়ে সংস্থাটি বলেছে, রাশিয়া এই কেন্দ্রকে ইউক্রেইনের বিদ্যুৎ সরবরাহ গ্রিড থেকে বিচ্ছিন্ন করতে চাইছে।

ইউক্রেইনের দক্ষিণাঞ্চলে জেপোরোজিয়া কেন্দ্রের অবস্থান। ইউরোপে এটি সবচেয়ে বড় পারমাণবিক স্থাপনা। রুশ বাহিনী গত মার্চ থেকে কেন্দ্রটি দখল করে রেখেছে।

সম্প্রতি কয়েকদিনে জেপোরোজিয়া ঘিরে ভারী গোলাবর্ষণ চলছে। এ গোলাবর্ষণের জন্য রাশিয়া এবং ইউক্রেইন একে অপরকে দোষারোপ করছে।

আর এখন রাশিয়ার অচিরই এই কেন্দ্রটিকে ইউক্রেইনের বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা থেকে বিচ্ছিন্ন করার চেষ্টা চালানোর সতর্কবার্তা এল।

বিবিসি বলছে, এই পরিকল্পনা নিয়ে রাশিয়া আগেই তাদের উপপ্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছে। গত মে মাসে রাশিয়া বলেছিল, তারা ইউক্রেইনের বিদ্যুৎ গ্রিড থেকে জেপোরোজিয়া প্ল্যান্টকে বিচ্ছিন্ন করে সেটিকে রুশ বিদ্যুৎ ব্যবস্থার সঙ্গে সংযুক্ত করবে।

কিইভ জেপোরোজিয়ার বিদ্যুতের জন্য মূল্য পরিশোধে অস্বীকৃতি জানালে এমন পদক্ষেপ নেওয়ার পরিকল্পনা করে রাশিয়া। তবে সে সময় ইউক্রেইনের পরমাণু সংস্থা ‘এনারোঅ্যাটম’ এর মুখপাত্র বিবিসি-কে বলেছিলেন, জেপোরোজিয়াকে রাশিয়ার বিদ্যুৎ ব্যবস্থার সঙ্গে জুড়ে নিতে বছরের পর বছর সময় লাগবে।

আবার রাশিয়া নিজেরা নিজেরাও বিদ্যুৎ লাইন তৈরি করতে পারে। কিন্তু সেটিও দীর্ঘসময়সাপেক্ষ বলে মন্তব্য করেন মুখপাত্র লিওনিদ ওলিনিক।

তিনি জানান, জেপোরোজিয়ায় এখন ন্যূনতম পর্যায়ের কাজ চলছে। তবে কেন্দ্রটি পরিচালনার দায়িত্ব এখনও কিইভের ওপর আছে। সব বিদ্যুৎ লাইন ইউক্রেইনের হাতেই আছে। রাশিয়া যে কথা বলেছে, সেটি তাদের ইচ্ছার কথা।

ইউক্রেইনে যুদ্ধের আগে জেপোরোজিয়ায় ২০ শতাংশ বিদ্যুৎ উৎপাদন হত। এখনও ইউক্রেইনের কর্মীরাই কেন্দ্রটিতে কাজ চালাচ্ছে। তবে কেন্দ্রটি রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে আছে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক