কিংবদন্তি চলচ্চিত্রকার জঁ-লুক গদারের মৃত্যু

দুনিয়াজোড়া খ্যাতি পাওয়া এ পরিচালক ‘ব্রেথলেস’ ও ‘কনটেম্পট’ এর মত ক্লাসিক সিনেমা দর্শকদের উপহার দিয়েছেন; তার চলচ্চিত্র টানা কয়েক দশক ধরে নবীন পরিচালকদের উৎসাহ যুগিয়ে আসছে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 13 Sept 2022, 10:41 AM
Updated : 13 Sept 2022, 10:41 AM

ফরাসি নবকল্লোল চলচ্চিত্র আন্দোলনের অগ্রদূত, কিংবদন্তি পরিচালক জঁ লুক গদার মারা গেছেন।

৯১ বছর বয়সে মঙ্গলবার ফরাসি চলচ্চিত্রের এ ‘গডফাদারের’ মৃত্যু হয় বলে তার ঘনিষ্ঠরা নিশ্চিত করেছেন।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স লিখেছে, দুনিয়াজোড়া খ্যাতি পাওয়া এ পরিচালক ‘ব্রেথলেস’ ও ‘কনটেম্পট’ মতো ক্লাসিক সিনেমা দর্শকদের উপহার দিয়েছেন; তার চলচ্চিত্র টানা কয়েক দশক ধরে নবীন পরিচালকদের উৎসাহ যুগিয়ে আসছে।

১৯৬০-র দশকজুড়ে পর্দায় আসা তার একের পর এক চলচ্চিত্র তখনকার সিনেমা নির্মাণের প্রথাগত নিয়মকানুনকে নতুন করে লিখতে বাধ্য করেছিল।

তার কাজ চলচ্চিত্রজগতে নতুন সাহস ও উদ্যম এনে দেয়, প্রভাবিত করে কুইন্টিন টারান্টিনো থেকে শুরু করে মার্টিন স্করসিস পর্যন্ত অসংখ্য পরিচালককে।

গদারের মৃত্যুর পর ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ বলেছেন, তার (গদার) ছিল প্রতিভাধরের দৃষ্টিভঙ্গি।

“ফরাসি চলচ্চিত্রে আকস্মিকভাবে আবির্ভাব ঘটেছিল তার, পরে তিনি সেখানকার ওস্তাদে পরিণত হন,” টুইটারে এমনটাই লিখেছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট।

গদারের যাত্রা শুরু হয়েছিল চলচ্চিত্র সমালোচক হিসেবে, কিন্তু ১৯৬০ সালে স্টাইলিশ ও তীক্ষ্ণ রসবোধসম্পন্ন ‘ব্রেথলেস’ মুক্তি পেলে তার ক্যামেরার পেছনের জাদুও সবার দৃষ্টিগোচর হয়।

এর পর আসে ‘দ্য লিটল সোলজার’, তবে এখানে সরকারি নির্যাতনের চিত্র উঠে আসায় ১৯৬৩ সাল পর্যন্ত চলচ্চিত্রটি নিষিদ্ধ থাকে। এ চলচ্চিত্রে অভিনয় করা শিল্পীদের মধ্যে ছিলেন ডেনিশ মডেল আনা কারিনা, যাকে গদার ১৯৬১ সালে বিয়ে করেন। পরে তার একাধিক ব্যবসাসফল সিনেমাতেও কারিনার দেখা মেলে।

১৯৬৫ সালে মুক্তি পাওয়া গদারের ‘ব্যান্ড অব আউটসাইডারের’ ফরাসি নামের ওপর ভিত্তি করে টারান্টিনো তার চলচ্চিত্রনির্মাণ কোম্পানির নাম রাখেন ‘এ ব্যান্ড অ্যাপার্ট’।

গদারই যে তার ওপর সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলেছিল, তা স্বীকার করতে কসুরও করেননি তিনি। 

“গদারই আমাকে শিখিয়েছেন মজা, স্বাধীনতা ও নিয়ম ভাঙার আনন্দ। আমার বিবেচনায় গদার হচ্ছেন সিনেমার ক্ষেত্রে সেই ব্যক্তি, সংগীতে যা বব ডিলান,” বলেছেন টারান্টিনো।

ব্রিজিত বার্দো অভিনীত ‘কনটেম্পট’কে মার্টিন স্করসিস তার দৃষ্টিতে সেরা ১০ চলচ্চিত্রের একটি বলেছিলেন।

“গদার হচ্ছেন সিনেমাজগতের সেরা আধুনিক ভিজ্যুয়াল শিল্পী,” ২০১৪ সালে এমনটাই লিখেছিলেন স্করসিস।

গদারের নামের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে শতাধিক চলচ্চিত্র, যার সর্বশেষটি মুক্তি পেয়েছে ২০১৮ সালে।

মঙ্গলবার দেওয়া এক বিবৃতিতে তার পরিবার জানিয়েছে, গদার ‘বাড়িতে শান্তিতে’ মারা গেছেন। তার আনুষ্ঠানিক কোনো শেষকৃত্য হবে না। তাকে দাহ করা হবে। 

সাবেক ফরাসি সংস্কৃতি মন্ত্রী জ্যাক ল্যাং বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, “গদার চলচ্চিত্রকে কবিতা আর দর্শন দিয়ে ভরিয়ে দিয়েছিলেন। তার তীক্ষ্ণ ও অনন্য চোখ আমাদেরকে ধারণার অতীত অনেক কিছু দেখিয়েছে।”

কিংবদন্তি পরিচালকের মৃত্যুতে শোক জানিয়ে অভিনেতা আন্তোনিও বান্দেরাস লিখেছেন, “চলচ্চিত্রের সীমানা প্রসারিত করায় ধন্যবাদ হে মহান গদার।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক