টুইটার কেনায় ইলন মাস্কের দ্বিধা ‘কেবল বট অ্যাকাউন্টের কারণে’ নয়

মর্গান স্ট্যানলির এক কর্মকর্তার কাছে মে মাসে পাঠানো ওই মেসেজে মাস্ক বলেছিলেন, “আমরা যদি তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের দিকেই এগিয়ে যেতে থাকি তবে টুইটার কেনা অর্থহীন হবে।”

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 8 Sept 2022, 02:28 PM
Updated : 8 Sept 2022, 02:28 PM

টুইটার কেনার প্রশ্নে ইলন মাস্কের দ্বিধা কেবল প্ল্যাফর্মে বট অ্যাকাউন্টের সংখ্যার কারণে তৈরি হয়নি। যদিও তিনি এই একটি কারণ দেখিয়েই বের হয়ে আসতে চাইছেন ক্রয় চুক্তি থেকে।

আদালতের নথিপত্র বলছে, সম্ভাব্য তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের হুমকিতে টুইটার কেনা নিয়ে দ্বিধান্বিত হয়ে পড়েছিলেন ইলন মাস্ক। এপ্রিল মাসে টুইটার কেনার প্রস্তাব দিলেও মে মাসেই টেসলা প্রধান যে অনিশ্চয়তায় ভুগছিলেন, সে তথ্য মিলছে এখন।

টুইটারের সঙ্গে পাল্টাপাল্টি মামলার শুনানি অক্টোবর মাস থেকে পিছিয়ে নভেম্বর মাসে নেওয়ার জন্য আদালতে আবেদন করেছিলেন ইলন মাস্ক। পাশাপাশি কোম্পানির সাবেক নিরাপত্তা প্রধানকে সাক্ষী হিসেবে ডাকার অনুমতি চেয়ে আবেদন করেছেন তার আইনজীবীরা।

টুইটারের সাবেক নিরাপত্তা প্রধান ও তথ্য ফাঁসকারী পিটার জাটকোকে সাক্ষী বানানোর অনুমতি মিললেও, শুনানী পেছানোর আবেদন নাকচ করে দিয়েছে ডেলাওয়্যারের আদালত।

কিন্তু আদালতে টুইটারের আইনজীবীরা যে তথ্য-প্রমাণ উপস্থাপন করেছেন সেটি ইঙ্গিত করছে, স্প্যাম ও বট অ্যাকাউন্টের সঠিক সংখ্যা নয়, সম্ভবত ভূরাজনৈতিক অস্থিরতার কারণেই টুইটার কেনার সমঝোতা চুক্তি থেকে পিছিয়ে আসার কথা ভাবছিলেন মাস্ক।

মঙ্গলবারে আদালতে মাস্কের পাঠানো একটি মেসেজ পড়ে শুনিয়েছেন টুইটারের আইনজীবীরা। মেসেজ পড়ে শুনিয়ে তারা সরাসরি অভিযোগ তুলেছেন, মাস্ক আসলে স্প্যাম অ্যাকাউন্ট নিয়ে শঙ্কিত ছিলেন না।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেইনে সামরিক হামলা শুরু করেছেন ২৪ ফেব্রুয়ারি। আর বিনিয়োগ ও আর্থিক সেবার আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান মর্গান স্ট্যানলির এক ব্যাংকারের কাছে মে মাসে পাঠানো ওই মেসেজে মাস্ক বলেছিলেন, “আমরা যদি তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের দিকেই এগিয়ে যেতে থাকি তবে টুইটার কেনা অর্থহীন হবে।”

এপ্রিল মাসের শেষ নাগাদ চার হাজার চারশ কোটি ডলারে সকল শেয়ার কিনে নেওয়ার জন্য টুইটারের পরিচালনা পর্ষদের সঙ্গে সমঝোতা চুক্তি করেছিলেন বিশ্বের শীর্ষ ধনী ইলন মাস্ক। কিন্তু জুলাই মাসে এসে সে চুক্তি বাতিল করার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের বাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা ‘সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (এসইসি)’-এর কাছে আবেদন করেন তিনি।

এসইসির কাছে জমা দেওয়া নথিপত্রে মাস্ক অভিযোগ করেছিলেন, টুইটারে স্প্যাম ও বট অ্যাকাউন্টের সংখ্যা নিয়ে সঠিক তথ্য দিচ্ছে না বলে চুক্তি থেকে বেরিয়ে আসতে চান তিনি। মাস্কের চুক্তি ভঙ্গের চেষ্টার পরিপ্রেক্ষিতে তার বিরুদ্ধে মামলা করেছে টুইটার কর্তৃপক্ষ। পাল্টা মামলা করেছেন মাস্কও।

শুনানি পেছানোর আবেদন নাকচ করে দিলেও মাস্কের আইনজীবীদের সাক্ষী হিসেবে টুইটারের সাবেক নিরাপত্তা প্রধান ও সম্প্রতি কোম্পানির তথ্য ফাঁসকারী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করা হ্যাকার পিটার জাটকোকে ডাকার অনুমতি দিয়েছে ডেলাওয়্যারের আদালত।

সম্প্রতি টুইটারের বিরুদ্ধে দুর্বল নিরাপত্তা ব্যবস্থা এবং বিদেশি সরকারের এজেন্ট নিয়াগের অভিযোগ তুলেছেন পিটার জাটকো। টুইটার মাস্কের কাছে বট অ্যাকাউন্টের সংখ্যা নিয়েও মিথ্যাচার করেছে বলে অভিযোগ তুলেছেন তিনি।

দৃশ্যপটে জাটকোর আবির্ভাবের পরপর পরিস্থিতি মাস্কের পক্ষেই হেলে গেছে বলে মত প্রকাশ করেছেন বিশ্লেষকরা।

আশাবাদী মাস্কের আইনজীবীরাও। আদালত জাটকোর উপস্থিতির অনুমতি দেওয়ার পর মাস্কের আইনজীবী অ্যালেক্স স্পিরো বলেন, “আমরা আশা করছি, এই পদক্ষেপটি আমাদের আদালতে সত্য প্রকাশের দিকে আরেক ধাপ এগিয়ে নেবে।”

ব্রিটিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, জাটকোর অভিযোগগুলো তদন্তের জন্য আরও সময় প্রয়োজন– এ কারণ দেখিয়ে অক্টোবর মাসের শুনানি পিছিয়ে দেওয়ার আবেদন করেছিলেন মাস্কের আইনজীবীরা।

অন্যদিকে টুইটারের এক মুখপাত্র বলেছেন, “১৭ অক্টোবরে আদালতে অভিযোগ উত্থাপনের জন্য আমরা অপেক্ষা করছি। মাস্কের সঙ্গে যে দাম ও শর্তে সমঝোতা হয়েছিল সেই অনুযায়ী লেনদেন সম্পন্ন করাই আমাদের উদ্দেশ্য।

গেল মাসেই জাটকো টুইটারের অভ্যন্তরীণ অনিয়ম ফাঁস করা পর মাইক্রোব্লগিং প্ল্যাটফর্মটি বলেছিল, তার বক্তব্যে অনেক অসঙ্গতি আর ভুল আছে এবং গুরুত্বপূর্ণ আনুসাঙ্গিক তথ্য বাদ দেওয়া হয়েছে।