শেষ পর্যন্ত জানুয়ারিতে অ্যাপলের নতুন চিপের ম্যাকবুক

নতুন ‘ম্যাক মিনি’ দাম শুরু পাঁচশ ৯৯ ডলার আর ১৩ ইঞ্চির ম্যাকবুক প্রোর এক হাজার নয়শ ৯৯ ডলার থেকে। বাজারে আসবে ২৪ জানুয়ারি থেকে।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 18 Jan 2023, 07:19 AM
Updated : 18 Jan 2023, 07:19 AM

প্রচলিত সময়সূচীর আগেই তুলনামূলক দ্রুতগতির ‘এম২ প্রো’ ও ‘এম২ ম্যাক্স’ চিপ চালিত নতুন ম্যাকবুক উন্মোচন করেছে প্রযুক্তি জায়ান্ট অ্যাপল।

১৫ বছর ধরে ইনটেলের চিপ ব্যবহারের পর ২০২০ সালে অ্যাপল ফের নিজেদের নকশা করা সেমিকন্ডাকটর ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নেয়। এরই ফলে গত বছর থেকে কোম্পানিটি ‘এম২’ চিপের সর্বশেষ সংস্করণ চালিত বিভিন্ন ডিভাইস উন্মোচন শুরু করেছে। নতুন চিপের ম্যাকবুক ডিভাইসগুলো উন্মোচিত হয়েছে গেল মঙ্গলবার।

নতুন ‘ম্যাক মিনি’র দাম শুরু পাঁচশ ৯৯ ডলার থেকে। আর এগুলো বাজারে মিলবে ২৪ জানুয়ারি থেকে। এ ছাড়া, নতুন চিপ’সহ ১৪ ও ১৬ ইঞ্চির ম্যাকবুক প্রো ডিভাইসের দাম শুরু এক হাজার নয়শ ৯৯ ডলার থেকে। ওই তুলনায় এম২ চিপ থাকা ১৩ ইঞ্চির মডেলের দাম কিছুটা কম। এর দাম শুরু এক হাজার দুইশ ৯৯ ডলার থেকে।

নতুন শ্রেণির ম্যাকবুক প্রো মডেলগুলোর বিভিন্ন তথ্য বেশ কয়েক মাস আগে থেকেই চাউর হলেও সরবরাহ চেইনে সমস্যার কারণে এর উন্মোচন গত বছর থেকে পিছিয়ে ২০২৩ সালের শুরুতে এসে ঠেকেছে। অক্টোবরে বিষয়টি নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে মার্কিন প্রকাশনা ব্লুমবার্গ।

“এটি বিলম্বিত চিপসেটে সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত ... এতে বিলম্ব ঘটায়, নিজেদের প্রথাগত, প্রত্যাশিত উন্মোচনের জন্য অপেক্ষা বা অপ্রত্যাশিত কিছু করার প্রচেষ্টা বিষয়ক বিভিন্ন প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছে অ্যাপল।” --বলেন বিশ্লেষক কোম্পানি ‘ক্যানালিস’-এর বিশ্লেষক রুনার জরহোভডে।

এই উন্মোচনের কারণে তুলনামূলক দুর্বল বাজারেও অ্যাপলের শেয়ার এক শতাংশ বেড়েছে। ২০২২ সালে কোম্পানিটি প্রায় ২৭ শতাংশ শেয়ারমূল্য হারায়। ২০০৮ সালের পর থেকে এটিই ছিল কোম্পানির সবচেয়ে বড় দরপতন।

অ্যাপল বলেছে, ‘এম২ প্রো’ চিপে ‘এম১ প্রো’ চিপের চেয়ে ২০ শতাংশ ও ‘এম২’ চিপের দ্বিগুণ ট্রাঞ্জিস্টর রয়েছে। ফলে, অ্যাডোবি ফটোশপের মতো ভারী সফটওয়্যারগুলো ‘যে কোনো সময়ের চেয়ে দ্রুত’ কাজ করে।

মঙ্গলবার বাজার বিশ্লেষক কোম্পানি গার্টনারের প্রতিবেদনে উঠে আসে, ২০২২ সালে চিপ নির্মাতা এনভিডিয়াকে বদলে তাইওয়ানের ‘টিএসএমসি’র নাম সেরা ১০ সেমিকন্ডাক্টর বিক্রেতার কাতারে উঠে আসায় তাদের কাছ থেকে চিপ উৎপাদন শুরু করে কোম্পানিটি।

“আমাদের অনুমান বলছে, ২০২২ সালে এইসব (অ্যাপল) চিপের মূল্য এক হাজার সাতশ ৬০ কোটি ডলারের মতো। বিভিন্ন জটিল চিপের খরচ বেড়ে যাওয়ায় এমনটি ঘটেছে।” --বলেন গার্টনারের ‘ভিপি অ্যানালিস্ট’ অ্যান্ড্রু নরউড।

অ্যাপল সাধারণত নিজেদের প্রথম আয়োজন করে থাকে মার্চ মাসে। সে সময় তারা আইম্যাকের পাশাপাশি অন্যান্য সামগ্রীও উন্মোচন করে। বছরের শুরুতে ব্লুবমার্গ বলেছে, সামনে বসন্তের আয়োজনে থাকতে পারে কোম্পানির বহুল প্রতীক্ষিত অগমেন্টেড রিয়ালিটি হেডসেট।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক