ডিএসইতে সূচক বাড়ল ১৪৩ পয়েন্ট, সাড়ে ৯ মাসে সর্বোচ্চ

পুঁজিবাজারে ব্যাংকের বিনিয়োগসীমা নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ইতিবাচক মনোভাবের খবরে বড় উল্লম্ফন হয়েছে ডিএসইতে; একক দিনের হিসেবে যা সাড়ে নয় মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 1 Dec 2021, 12:09 PM
Updated : 1 Dec 2021, 12:09 PM

সাম্প্রতিক সময়ে পতনের বৃত্তে থাকা পুঁজিবাজারে বুধবার শুরুটাই হয় বড় উত্থান দিয়ে। প্রধান বাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স প্রথম কয়েক মিনিটের মধ্যেই ১০০ পয়েন্ট ছাড়িয়ে যায়।

শেষ পর্যন্ত বিনিয়োগকারীদের গত কয়েকদিনের হতাশা কাটিয়ে ১৪৩ পয়েন্ট বেড়ে দিন শেষ হয়। বাজার ঘুরবে এমন আশায় আগের কয়েক দিনের মতো এদিন যে কোনো মূল্যে শেয়ার বিক্রির প্রবণতা না থাকায় পতন কাটিয়ে দিনভর ইতিবাচক থাকে বাজার।

বুধবারের ১৪৩ পয়েন্ট বাড়ার আগে সবশেষ আট কার্যদিবসের মধ্যে সাত দিনে সূচক কমে ৩৮৮ দশমিক ৫৬ পয়েন্ট, যা শতাংশের হিসাবে ৫ দশমিক ৪৮ শতাংশ।

দরপতনের মধ্যে থাকা বাজারে সূচকে এমন উত্থানের পেছনে মঙ্গলবার রাতে বাংলাদেশ ব্যাংক ও বিএসইসির বৈঠক ‘ফলপ্রসূ’ হওয়ার সংবাদই কাজ করেছে বলে মনে করছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা।

দুই নিয়ন্ত্রক সংস্থার বৈঠকের পর বিএসইসি কমিশনার শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ জানিয়েছিলেন, বৈঠকটি ‘ফলপ্রসূ’ হয়েছে এবং পুঁজিবাজারে ব্যাংকের বিনিয়োগসীমা হিসাবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ‘ইতিবাচক সাড়া’ মিলেছে।

বিভিন্ন গণমাধ্যমে এমন খবর প্রকাশের ইতিবাচক প্রভাব দেখা যায় বাজারে। এদিন ডিএসইএক্স আগের দিন থেকে ১৪৩ দশমিক ৭৫ পয়েন্ট বা ২ দশমিক ১৪ শতাংশ বেড়ে ৬ হাজার ৮৪৭ দশমিক ২৫ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

সূচকের এ উত্থান একক দিনে গত ৯ মাস ২২ দিনের মধ্যে বেশি। শতাংশের হিসাবে এক দিনে এর আগে এরচেয়ে বেশি সূচক বেড়েছিল চলতি বছরের ৯ ফেব্রুয়ারি। সেদিস সূচক বেড়েছিল ২ দশমিক ২৭ শতাংশ।

বুধবার অপর পুঁজিবাজার সিএসইর প্রধান সূচক সিএএসপিআই বেড়েছে ৩৯২ দশমিক ৮২ পয়েন্ট। দিন শেষে সূচকের অবস্থান ছিল ২০ হাজার ৭ দশমিক ২০ পয়েন্টে।

এদিন ঢাকায় সূচক বাড়লেও লেনদেন আগের দিনের তুলনায় ৩ দশমিক ৮৬ শতাংশ বা ৪৪ কোটি ২৭ লাখ টাকা কমেছে। মোট এক হাজার ১০২ কোটি ৬১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়, যা আগের কর্মদিবসে ছিল এক হাজার ১৪৬ কোটি ৮৮ লাখ টাকা।

বুধবার ডিএসইতে ৭৯ শতাংশের দাম বেড়েছে, কমেছে ১২ শতাংশের এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৯ শতাংশ কোম্পানির শেয়ারের দাম।

এ বাজারে লেনদেন হয়েছে ৩৭৩টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এর মধ্যে দর বেড়েছে ২৯৩টির এবং কমেছে ৪৫টির। অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৫টির দর।

ঢাকার অন্য দুই সূচকের মধ্যে ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ৩২ দশমিক ২২ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১ হাজার ৪৩৭ দশমিক ৭৭ পয়েন্ট।

ডিএস৩০ সূচক ৭৩ দশমিক ৫৭ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ২ হাজার ৫৮৯ দশমিক ৮৫ পয়েন্টে।

লেনদেনের শীর্ষ ১০টি কোম্পানি

বেক্সিমকো লিমিটেড, ওয়ান ব্যাংক, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক, ডেল্টা লাইফ, একমি পেস্টিসাইড, আইএফআইসি ব্যাংক, জেনেক্স ইনফোসিস, ওরিয়ন ফার্মা ও প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল।

দাম বাড়ার তালিকায় শীর্ষ ১০টি

ইনডেক্স এগ্রো, সেনা কল্যাণ ইন্স্যুরেন্স, বেক্সিমকো লিমিটেড, এনভয় টেক্সটাইল, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক, ডেল্টা লাইফ, জিবিবি পাওয়ার, সোনালী পেপার, কেটিএল, এসপি সিরামিক।

বেশি দর হারানো ১০টি কোম্পানি

তুংহাই, আমরা টেক, ঢাকা ডায়িং, ওয়ান ব্যাংক, মিথুন নিটিং, ট্রাস্ট ব্যাংক, তমিজ উদ্দিন টেক্সটাইল, আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজ, নিউ লাইন ক্লোথিং ও ইস্টার্ন ক্যাবল।

এদিন চট্টগ্রামের পুঁজিবাজার সিএসইতে ২৫৯টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৯০টির, কমেছে ৪৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২১টির দর।

এ বাজারে আগের দিনের তুলনায় লেনদেন বেড়েছে। এদিন মোট ৫০ কোটি ৫৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যা আগের দিন ছিল ৫০ কোটি ২৯ লাখ টাকা।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক