ম্যাগুয়ারকে নিয়ে কঠিন পরীক্ষায় সাউথগেট

তুমুল সমালোচনার মধ্যে থাকা অভিজ্ঞ এই ডিফেন্ডারের ভুলে জার্মানির বিপক্ষে দুই গোল হজম করে ইংল্যান্ড।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 27 Sept 2022, 07:15 AM
Updated : 27 Sept 2022, 07:15 AM

ম্যাচ শুরুর আগে একাদশ ঘোষণায় হ্যারি ম্যাগুয়ারের নাম উচ্চারিত হতেই ওয়েম্বলির গ্যালারি থেকে ভেসে আসে দুয়ো। তখন যারা সেই দুয়োতে যোগ দেননি, ম্যাচ শেষে তারাও হয়তো ছিলেন সরব। ম্যাগুয়ারের ভুলেই যে জার্মানির বিপক্ষে ইংল্যান্ড হজম করে দুটি গোল! কোচ গ্যারেথ সাউথগেট যদিও ভরসা রাখছেন অভিজ্ঞ এই ডিফেন্ডারের ওপর। তবে বিশ্বকাপেও তাকে দলে রাখতে হলে ইংল্যান্ড কোচের অপেক্ষায় বড় চ্যালেঞ্জ।

ম্যাগুয়ারের পারফরম্যান্সের কারণেই কঠিন হয়ে উঠছে কোচের কাজ। গত মৌসুমে বাজে ফর্মের ধারা এই মৌসুমেও বয়ে এনে এই ডিফেন্ডার জায়গা হারান তার ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে। অধিনায়ক হয়েও একাদশে নিয়মিত সুযোগ হচ্ছে না তার।

ক্লাবের হয়ে পর্যাপ্ত ম্যাচ খেলার সুযোগ না পেলেও তাকে জাতীয় দলে একের পর এক ম্যাচে সুযোগ দিয়ে চলেছেন সাউথগেট। কিন্তু ম্যাগুয়ার সুযোগ কাজে লাগানো তো বহুদূর, উল্টো দলকে ডোবানোর আয়োজন করছেন।

উয়েফা নেশন্স লিগে সোমবার জার্মানির বিপক্ষে ম্যাচের প্রথমার্ধে অবশ্য খারাপ খেলেননি ম্যাগুয়ার। তবে গুবলেট পাকান তিনি দ্বিতীয়ার্ধে। জামাল মুসিয়ালাকে বক্সে আটকাতে না পেরে ফাউল করেন তিনি। পেনাল্টি পেয়ে গোল করে এগিয়ে যায় জার্মানি। মিনিট ১৫ পর তার হারানো বল থেকেই আক্রমণ গড়ে আরেকটি গোল করে জার্মানি।

পরে অবশ্য ইংলিশরা ১২ মিনিটের মধ্যে ৩ গোল করে এগিয়ে যায়। শেষ দিকে ইংলিশ গোলকিপার নিক পোপের ভুলকে কাজে লাগিয়ে সমতায় ফেরে জার্মানি।

ম্যাচ শেষে যথারীতি আলোচনার কেন্দ্রে ম্যাগুয়ার। ছন্দে না থাকা ডিফেন্ডারকে দলে নেওয়ায় আঙুল উঠছে কোচ গ্যারেথ সাউথগেটের দিকেও।

তবে কোচ হিসেবে সাউথগেটের কাজের ধরনে মূল রসদ ও শক্তির জায়গা মনে করা হয় পরীক্ষিত ফুটবলারের ওপর আর আস্থা ও সম্পর্কের গভীরতাকে। ২০১৮ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের সেমি-ফাইনালে ওঠা ও ২০২০ ইউরোতে রানার্স আপ হওয়ার পেছনে বড় অবদান ছিল রক্ষণভাগে ম্যাগুয়ারের দৃঢ়তার। ইউরোর টুর্নামেন্ট সেরা একাদশেও জায়গা হয়েছিল তার। সমর্থকদের কাছেও তখন তুমুল জনপ্রিয় ছিলেন তিনি।

সময়ের পরিক্রমায় এখন সেই ডিফেন্ডারকে নিয়েই সমালোচনা ও ট্রলের ঝড় চলছে। তবে সাউথগেট এখনই বিশ্বাস হারাচ্ছে না। নিজের অবস্থান থেকেও সরে আসছেন না। পরীক্ষিতদের ওপর বিশ্বাস রাখার মন্ত্রেই তিনি আস্থা রাখছেন। নেশন্স লিগে ইতালি ও জার্মানির বিপক্ষে দুই ম্যাচেই কোচ তাকে রাখেন একাদশে।

জার্মানির বিপক্ষে ম্যাচ শেষে সাউথগেট বললেন, তার চোখে এখনও ম্যাগুয়ার দলের সেরাদের একজন।

“আমি জানি, সবার মনোযোগের কেন্দ্রে থাকবে হ্যারি। তবে এই দুই ম্যাচে (নেশন্স লিগে) গুরুত্বপূর্ণ কিছু মুহূর্তে সে ভালো খেলেছে। জায়গা নিয়ে বিতর্ক থাকবেই। তবে আমার মনে হয় এই সময়গুলোতেই আমাদের সেরা ও সবচেয়ে অভিজ্ঞ ফুটবলারদের পাশে থাকতে হবে আমাদের, যতক্ষণ না তাদেরকে দলে নেওয়া প্রায় অসম্ভব ও অসহনীয় হয়ে উঠছে।”

ম্যাগুয়ারকে নিয়ে পরিস্থিতি যে বাস্তবতার দিকে গড়াচ্ছে, তাতে ‘অসম্ভব ও অসহনীয়’ হয়ে ওঠা অস্বাভাবিক নয়। বিশ্বকাপের আগে যে সময়টুকু আছে, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের একাদশে তার নিয়মিত হয়ে ওঠার সম্ভাবনা ক্ষীণ। নাটকীয়ভাবে ঘুরে দাঁড়াতে না পারলে নিশ্চিতভাবেই পর্যাপ্ত ম্যাচ তিনি খেলতে পারবেন না। এমন একজনকে বিশ্বকাপ দলে রাখলে কোচকেও হতে হবে অনেক প্রশ্নের সম্মুখিন।

জার্মানির বিপক্ষে ম্যাচেই পরিস্কার, ম্যাগুয়ারের আত্মবিশ্বাস এখন তলানিতে। সাবেক ইংল্যান্ড স্ট্রাইকার ক্রিস সাটন এই ম্যাচের পর বিবিসি রেডিওকে বলেন, এমন ফুটবলারদের ওপর আস্থা রাখলে বিশ্বকাপে বিপদে পড়তে পারে দল।

“গ্যারেথ (সাউথগেট) সেই ফুটবলারদের প্রতি বিশ্বস্ত, যারা তাকে অতীতে ভালো ফল এনে দিয়েছে। তবে এই ফুটবলারদের নিয়ে বড় সমস্যা হবে যদি তারা বিশ্বকাপের আগে এই দুই মাসে খুব বেশি ম্যাচ খেলতে না পারে। বিশ্বকাপে প্রথম ম্যাচের আগে এট বড় একটা সমস্যা হয়ে দাঁড়াবে। খুবই বড় ঝুঁকি হবে এটা এবং এমন ঝুঁকি, যা সীমার বাইরে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক