ঘানাকে উড়িয়ে দিল ব্রাজিল

রিশার্লিসন করেছেন জোড়া গোল, নেইমার জোড়া অ্যাসিস্ট।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 23 Sept 2022, 08:30 PM
Updated : 23 Sept 2022, 08:30 PM

প্রথমার্ধে একের পর এক আক্রমণে ঘানাকে কাঁপিয়ে দিল ব্রাজিল। আলো ছড়ালেন নেইমার। সতীর্থের দুটি গোলে তিনি রাখলেন অবদান। বিরতির পর কিছুটা ঝিমিয়ে পড়লেন তারা। তবু বড় জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ল তিতের দল।

ফ্রান্সের লু আভহাতে শুক্রবার রাতে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে ৩-০ গোলে জিতেছে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

সবগুলো গোলই হয় প্রথমার্ধে। মার্কিনিয়োস দলকে এগিয়ে নেওয়ার পর জোড়া গোল করেন রিশার্লিসন।

গত বছরের জুলাইয়ে কোপা আমেরিকার ফাইনালে আর্জেন্টিনার বিপক্ষে হারের পর থেকে এই নিয়ে টানা ১৪ ম্যাচে অপরাজিত রইল ব্রাজিল। এর মধ্যে তাদের জয় ১১টি, ড্র তিনটি।

১১ বছর পর ঘানার সঙ্গে খেলল ব্রাজিল। আফ্রিকার দেশটির বিপক্ষে এই নিয়ে পাঁচ ম্যাচ খেলে সবগুলোই জিতল তারা।

পঞ্চম মিনিটে প্রথম উল্লেখযোগ্য সুযোগ পায় ব্রাজিল। ডান দিকের বাইলাইনের কাছ থেকে লুকাস পাকেতার পাসে উড়িয়ে মারেন রিশার্লিসন। এক মিনিট পর ভিনিসিউস জুনিয়রের পাসে বক্সের ভেতর থেকে শট লক্ষ্যে রাখতে পারেননি পাকেতা।

গোলের জন্য অবশ্য বেশিক্ষণ অপেক্ষায় থাকতে হয়নি তাদের। নবম মিনিটে রাফিনিয়ার কর্নারে অনেকটা লাফিয়ে উঠে হেডে দলকে এগিয়ে নেন পিএসজির ডিফেন্ডার মার্কিনিয়োস।

পঞ্চদশ মিনিটে ব্যবধান বাড়ানোর সুবর্ণ সুযোগ হারান রাফিনিয়া। ভিনিসিউসের ক্রসে দূরের পোস্টে অবিশ্বাস্যভাবে ভলি লক্ষ্যে রাখতে পারেননি বার্সেলোনার এই ফরোয়ার্ড।

২৮তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন রিশার্লিসন। নেইমারের পাস ডি-বক্সে পেয়ে প্রথম স্পর্শে ডান পায়ের শটে লক্ষ্যভেদ করেন টটেনহ্যাম হটস্পারের ফরোয়ার্ড।

এই জুটির নৈপুণ্যেই ৪০তম মিনিটে স্কোরলাইন ৩-০ করে ব্রাজিল। বাঁ দিক থেকে নেইমারের ফ্রি-কিকে হেডে গোলটি করেন ২৫ বছর বয়সী রিশার্লিসন।

এই নিয়ে ব্রাজিলের সবশেষ পাঁচ ম্যাচে তার গোল হলো ৬টি। জাতীয় দলের জার্সিতে সব মিলিয়ে ১৬টি।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে ব্রাজিলের হয়ে অভিষেক হয় ইউভেন্তুসের ডিফেন্ডার গ্লেইসন ব্রেমেরের। চিয়াগো সিলভার জায়গায় নামেন তিনি।

এই অর্ধের শুরু থেকে বেশ কয়েকবার ব্রাজিলের রক্ষণে ভীতি ছড়ায় ঘানা। ৫৭তম মিনিটে গোলও পেয়ে যেতে পারত তারা। সতীর্থের কর্নারে জর্ডান আইয়ুর হেড ক্রসবারে লাগে।

৬৩তম মিনিটে একসঙ্গে তিনটি পরিবর্তন আনেন ব্রাজিল কোচ তিতে। কাসেমিরো, রিশার্লিসন, ভিনিসিউসকে তুলে ফাবিনিয়ো, মাথেউস কুনইয়া ও আন্তোনিকে নামান তিনি।

৭৬তম মিনিটে দারুণ একটি সুযোগ আসে ব্রাজিলের সামনে। ডান দিক থেকে পাকেতার পাসে গোলমুখে পা ছোঁয়াতে পারেননি রাফিনিয়া। পরের মিনিটে প্রতিপক্ষের একজনকে পেছন থেকে ফাউল করে হলুদ কার্ড দেখেন নেইমার।

৮১তম মিনিটে তিন জনের বাধা এড়িয়ে বক্সে ঢুকে শট নেন নেইমার। তবে গোলরক্ষক সহজেই ঠেকিয়ে দেন সেটি।

৮৭তম মিনিটে নেইমারের পাসে বক্সের ভেতর থেকে রদ্রিগোর শট ঠেকান গোলরক্ষক। ফিরতি বলে কাছ থেকে কুনইয়ার প্রচেষ্টা প্রতিপক্ষের এক ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে ক্রসবারের ওপর দিয়ে যায়।

ম্যাচে ব্রাজিলের দাপটের চিত্র ফুটে ওঠে পরিসংখ্যানেও। গোলের জন্য মোট ২১টি শট নেয় তারা, যার ৯টি ছিল লক্ষ্যে। আর ঘানার ৭ শটের একটি লক্ষ্যে ছিল।

কাতার বিশ্বকাপের আগে নিজেদের শেষ প্রীতি ম্যাচে আগামী মঙ্গলবার প্যারিসে আফ্রিকার আরেক দেশ তিউনিসিয়ার মুখোমুখি হবে ব্রাজিল।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক