ডে ব্রুইনের নৈপুণ্যে শেষ আটের পথে সিটি

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোর প্রথম লেগে কোপেনহেগেনের মাঠে ৩-১ গোলে জিতেছে পেপ গুয়ার্দিওলার দল।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 13 Feb 2024, 10:03 PM
Updated : 13 Feb 2024, 10:03 PM

গোল পোস্টের নিচে দারুণ এক দিন কাটালেন কামিল গ্রাবারা। কোপেনহেগেন গোলরক্ষক ফিরিয়ে দিলেন একের পর এক শট। তবে এর মাঝেও ব্যবধান গড়ে দিলেন কেভিন ডে ব্রুইনে। গোল করলেন ও করালেন ম্যানচেস্টার সিটি তারকা। ডেনমার্ক চ্যাম্পিয়নদের মাঠ থেকে জয় নিয়ে ফিরল পেপ গুয়ার্দিওলার দল।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোর প্রথম লেগে ৩-১ গোলে জিতেছে সিটি। কোয়ার্টার-ফাইনালের পথে অনেকটাই এগিয়ে গেছে তারা।

ডে ব্রুইনের গোলে মঙ্গলবার রাতে এগিয়ে যায় সফরকারীরা। মেগনাস মেটসন সমতা ফেরানোর পর প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে ফের ইংলিশ চ্যাম্পিয়নদের এগিয়ে নেন বের্নার্দো সিলভা। যোগ করা সময়ে ব্যবধান বাড়ান ফিল ফোডেন। দুই সতীর্থের গোলেই অবদান রাখেন ডে ব্রুইনে।

৭৯ শতাংশ সময় বল দখলে রাখা সিটি গোলের জন্য নেয় ২৭ শট। এর ১৩টি ছিল লক্ষ্যে।

তৃতীয় মিনিটে প্রথম সুযোগ পায় সিটি। জ্যাক গ্রিলিশের ফ্রি কিক বিপজ্জনক জায়গায় পেয়েছিলেন ডে ব্রুইনে। খুব কাছে থেকেও হেড লক্ষ্যে রাখতে পারেননি বেলজিয়ান মিডফিল্ডার।

আক্রমণাত্মক ফুটবলে শুরু থেকে কোপেনহেগেনকে চাপে রাখা সিটি এগিয়ে যেতে পারত সপ্তম মিনিটে। সিলভার চমৎকার ক্রসে রুবেন দিয়াসের হেড ঝাঁপিয়ে কোনোমতে ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক গ্রাবারা। ফিরতি বলে খুব কাছ থেকেও ঠিকমতো শট নিতে পারেননি নাথান আকে।

একাদশ মিনিটে এগিয়ে যায় সিটি। ফোডেনের বাড়ানো বলে ডি বক্সে অরক্ষিত ডে ব্রুইনে দারুণ ফিনিশিংয়ে দূরের পোস্ট দিয়ে জাল খুঁজে নেন।

চোট পেয়ে ২১তম মিনিটে মাঠ ছাড়েন গ্রিলিশ। এতে সিটির খেলায় কোনো প্রভাব পড়েনি। একইরকম আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলতে থাকে ইংলিশ চ্যাম্পিয়নরা।

২৪তম মিনিটে একটুর জন্য বাড়েনি ব্যবধান। সিলভার ক্রস বিপদমুক্ত করতে গিয়ে উল্টো নিজেদের জালে পাঠিয়ে দিচ্ছিলেন দেনিস ভাভারো। স্লোভাকিয়ার ডিফেন্ডারের হেড ফেরে ক্রসবারে লেগে!

১০ মিনিট পর খেলার ধারার বিপরীতে গোল করে সমতা ফেরায় কোপেনহেগেন। এতে বড় দায় সিটি গোলরক্ষক এদেরসনের। ব্যাকপাস ক্লিয়ার করতে গিয়ে তিনি বল তুলে দেন প্রতিপক্ষের মিডফিল্ডার মোহামেদ এলিয়োনোসির পায়ে। তার শট দিয়াস ব্লক করলে ডি বক্সের বাইরে পেয়ে যান মেটসন। ডেনিস মিডফিল্ডারের বাঁকানো শট পোস্ট ঘেঁষে জড়ায় জালে। লক্ষ্য এটাই ছিল স্বাগতিকদের প্রথম শট।

চলতি মৌসুমে সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে এ নিয়ে ১৩বার লক্ষ্যে থাকা প্রথম শটে গোল হজম করল ইউরোপ চ্যাম্পিয়নরা।

যোগ করা সময়ের প্রথম মিনিটে সিলভার অসাধারণ ফিনিশিংয়ে ফের এগিয়ে যায় সিটি। প্রতিপক্ষণের রক্ষণে বলের নিয়ন্ত্রণ প্রায় হারিয়ে ফেলেছিলেন ডে ব্রুইনে। মেটসনের পায়ে লাগার পরও কোনোমতে ডি বক্সে বল বাড়ান তিনি। দ্রুত গতিতে দৌড় দিয়ে পা একটু বাঁকিয়ে দিক পাল্টে দিয়ে জাল খুঁজে নেন সিলভা। চলতি আসরে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে এটি পর্তুগিজ মিডফিল্ডারের অষ্টম গোল।

৫৪তম মিনিটে একটুর জন্য বাড়েনি ব্যবধান। ডি বক্সের বাইরে থেকে ডে ব্রুইনের বুলেট গতির শট যায় পোস্ট ঘেঁষে। ১৫ মিনিট পর জেমেরি দোকুর বুলেট গতির শট ঝাঁপিয়ে ব্যর্থ করে দেন স্বাগতিক গোলরক্ষক।

৭৭তম মিনিটে আর্লিং হলান্ডের হেড কোপেনহেগেনের একজনের মাথা ছুঁয়ে ক্রসবার ঘেঁষে বেরিয়ে যায়। যোগ করা সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে সিটির তিনটি চেষ্টা ঠেকিয়ে দেয় স্বাগতিকরা।

শুরুতে হলান্ডের শট ঝাঁপিয়ে ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক। ফিরতি বলে মাথেউস নুনেসের শট ব্লক করেন ভাভারো। পরে ফোডেনের শটও ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক। তবে কয়েক সেকেন্ড পর ঠিকই জালের দেখা পান ফোডেন। ডে ব্রুইনের কাছ থেকে বল পেয়ে গ্রাবারাকে পরাস্ত করেন ইংলিশ মিডফিল্ডার।

ফিরতি পর্ব হবে ৫ মার্চ, সিটির মাঠে।