শেরপুরে পানির ওপর বাসরঘর বানিয়ে আলোচনায় তরুণ

শেরপুর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 23 July 2022, 04:58 PM
Updated : 23 July 2022, 04:58 PM

শেরপুরে পানির ওপর বাসরঘর বানিয়ে আলোচনার জন্ম দিয়েছেন আব্দুল হালিম মিয়া নামে এক তরুণ।

২৫ বছর বয়সী হালিম সদর উপজেলার চরশেরপুর ইউনিয়নের সাতানীপাড়ার আব্দুল হামিদের ছেলে।

তার বাসরঘর দেখতে প্রতিদিন ভিড় করছেন এলাকার মানুষ।

হালিম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ব্যতিক্রমধর্মী কিছু করার চিন্তা থেকে তিনি এই আয়োজন করেন।

“বাসরঘরটি এখন এলাকাবাসীর আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। আশপাশের মানুষ তো বটেই, দূর-দূরান্ত থেকেও দলবেঁধে উৎসুক মানুষ এই বাসরঘর দেখতে ভিড় জমাচ্ছেন।”

হালিম জানান, নয় ভাইবোনের মধ্যে তিনি সবার ছোট; পেশায় ঝালাই শ্রমিক। তার ইচ্ছে ছিল নিজের বিয়েটা ব্যতিক্রমী আয়োজনে করার। সেই থেকে এমন চিন্তা মাথায় আসে।

শুক্রবার তার বিয়ে হয়েছে। শনিবার হয়েছে বৌভাত অনুষ্ঠান।

তার বাসরঘরের ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে পোস্ট দিচ্ছেন অনেকে।

হালিম বলেন, “বিয়ের কথা ফাইনাল হওয়ার পর আমার ইচ্ছা হয় ব্যতিক্রম কিছু করার। সেই থেকে উদ্যোগ নিই পুকুরের পানিতে বাসরঘর তৈরি করার। পরে গত চার-পাঁচ দিন ধরে নানা ও চাচার সহযোগিতা বাড়ির পাশে পুকুরের ওপর খুব কষ্ট করে তৈরি করি এই বাসরঘর। অনেক মানুষ ঘরটি দেখতে আসায় আমার খুব ভাল লাগছে। আমি অনেক উৎসাহ পাচ্ছি।”

হালিমের চাচা রোকন সরকারও এ বিষয়ে বিশেষ উৎসাহী।

চাচা বলেন, “আমার ভাতিজার খুব ইচ্ছা ব্যতিক্রমভাবে বিয়ে করবে। পরে বিয়ে ঠিক হলে আমরা পারিবারিকভাবে কয়েকবার বসে আলোচনা করি, কী করা যায়। একপর্যায়ে সিদ্ধান্ত হয় বাড়ির পাশে পুকুরের পানির ওপরে বাসরঘর তৈরি করার। শুরু হয় বাসরঘর বানানোর কাজ। প্রথমে অনেকে বাজে মন্তব্য করছিল। কিন্তু সব সম্পূর্ণ হলে এই বাসরঘর দেখতে মানুষ ভিড় করতে শুরু করে।”

বন্ধুর কাছে খবর শুনে সদর উপজেলার যোগিনীমুড়া থেকে বাসরঘর দেখতে আসেন সোহেল রানা নামে এক ব্যক্তি।

সোহেল বলেন, “জীবনে এই প্রথম এমন বাসরঘর দেখলাম। এটি আসলেই ব্যতিক্রম এক আয়োজন।”

হেরুয়া তালুকপাড়া থেকে আসা সাইফুল ইসলামও ‘সত্যিই খুব ভাল হয়েছে’ বলে মন্তব্য করেন।

চরশেরপুরের বালুরঘাট থেকে আসা শহিদুল ইসলামেরও ‘চমৎকার লেগেছে’ আয়োজনটি দেখে।

শহিদুল বলেন, “সত্যি চমৎকার আয়োজন। আমার খুব ভাল লেগেছে।”

চরশেরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সেলিম রেজা পানির ওপর এমন বাসরঘরের কথা এর আগে কখনও শোনেননি।

চেয়ারম্যান বলেন, “আমার ইউনিয়নে এমন বিয়ে হওয়ায় মানুষের মাঝে হৈচৈ শুরু হয়েছে। অনেক মানুষ দেখতে আসছে এই বাসরঘর।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক