কুমিল্লায় ‘বাড়ি দখল করতে’ মা-মেয়েকে পেটানোর অভিযোগ

ভুক্তভোগীর ভাষ্য, তার সম্পত্তি দখল করে এলাকা ছাড়া করতেই হামলা চালিয়েছে প্রতিপক্ষ।

কুমিল্লা প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 August 2022, 05:48 PM
Updated : 3 August 2022, 05:48 PM

কুমিল্লা সদর উপজেলায় ‘সম্পত্তি সংক্রান্ত বিরোধের’ জেরে এক বিধবা নারী ও তার মেয়েকে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে।

গত সোমবার উপজেলার বারপাড়া ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর গ্রামে এ ঘটনার রাতেই থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয় বলে কুমিল্লা কোতোয়ালি থানার চকবাজার ফাঁড়ির এসআই বিমল দাস।

বিধবা ওই নারীর ভাষ্য, তাদের ‘সম্পত্তি দখল’ করে এলাকা ছাড়া করতেই হামলা চালিয়েছে প্রতিপক্ষ।

ঘটনার দুইদিন পার হলেও থানা পুলিশ মামলা নিতে গড়িমসি করছে অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, উল্টো পুলিশের সহযোগিতায় বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসার চেষ্টা করা হচ্ছে।

তবে পুলিশের ভাষ্য, বাদী-বিবাদীরা স্থানীয়ভাবে বিষয়টি মীমাংসার কথা বলেছেন; পুলিশ নিজে মীমাংসার কোনো উদ্যোগ নেয়নি।

বুধবার দুপুরে সরেজমিনে ওই বিধবার বাড়িতে গিয়ে দেখা গেছে, বিছানায় শুয়ে কাতরাচ্ছেন তার মেয়ে। মেয়ের মাথার পাশে বসে আছেন মা। ঘটনার পর থেকেই মা-মেয়ে আতঙ্কের মধ্যে আছেন বলে জানিয়েছেন তারা।

মেয়েটির মায়ের অভিযোগ, গত সোমবার বিকালে তাদের উপর হামলা চালিয়েছেন প্রতিবেশী মন্তাজ মিয়া ও তার পরিবারের সদস্যরা। হামলার সময় মন্তাজ মিয়া বহিরাগত লোকজনও এনেছিলেন।

তিনি বলেন, “আমার স্বামী মারা গেছেন ২০২০ সালে। মৃত্যুর আগে মন্তাজ মিয়ার কাছে দুই গণ্ডা জায়গা বিক্রি করেন তিনি। সেখানে এখন দুইতলা বাড়ি করেছেন মন্তাজ। তার বিল্ডিংয়ের পাশেই আমাদের টিনের ঘর। বাড়ির ছাদের সব পানি আমাদের ঘরের দিকে ফেলেন মন্তাজ মিয়া। বৃষ্টি এলেই আমাদের ঘরে তাদের ছাদের পানি ঢোকে।

“এ নিয়ে তার মেয়ে প্রতিবাদ করলে মন্তাজ বলেন - এখানে বসবাস করতে হলে এভাবেই চলতে হবে।”

মন্তাজ মিয়া তাদের ঘরের জমিতে সম্পত্তি পাবেন দাবি করে তাদের সব কিছু সহ্য করতে নয়তো এলাকা ছেড়ে চলে যেতে বলেন।

এসব ঘটনার জের ধরেই সোমবার বিকালে তাদের উপর হামলা চালানো হয় বল ওই নারীর অভিযোগ।

তার মেয়ে বলেন, “হামলার সময় আমাদের মা-মেয়েকে লাঠিসোটা দিয়ে এলোপাতাড়ি পেটানো হয়। এ ছাড়া আমাকে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করা হয়। পরে আমরা মা-মেয়ে কুমিল্লা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছি।”

ঘটনার দিন রাতেই থানায় তার মা লিখিত অভিযোগ করেছেন দাবি করে তিনি বলেন, “কিন্তু পুলিশ এখনও মামলা নেয়নি। উল্টো স্থানীয়দের মাধ্যমে ঘটনাটি মীমাংসার চেষ্টা করছে পুলিশ। আমরা আইনের মাধ্যমে ন্যায় বিচার চাই, স্থানীয়ভাবে মীমাংসা চাই না। মন্তাজ মিয়ার মূল উদ্দেশ হলো আমাদের বাড়ি থেকে বিতাড়িত করে সম্পত্তি দখল করা। এরই মধ্যে মামলা তুলে নিতে আমাদের চাপ দেওয়া হচ্ছে।”

বুধবার বিকালে এ প্রসঙ্গে জানতে অভিযুক্ত মন্তাজ মিয়ার মোবাইল ফোনে কল করা হলে এক নারী রিসিভি করে বলেন, “মন্তাজ মিয়া ঘরে নেই। এ ছাড়া তিনি এসব বিষয়ে কথা বলবেন না।”

ওই নারী নিজের পরিচয় দিতে রাজি হননি।

বিধবার দায়ের করা লিখিত অভিযোগটির তদন্ত করছেন কুমিল্লা কোতোয়ালি মডেল থানার চকবাজার ফাঁড়ির এসআই বিমল দাস।

মামলা নিতে গড়িমসির অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, “আমি মঙ্গলবার বিকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। তখন দুপক্ষই বলেছেন তারা বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসা করবেন। পুলিশ বাদীকে স্থানীয়ভাবে মীমাংসার জন্য চাপ দিয়েছে – এটা ভিত্তিহীন কথা। তারা নিজেরা বিষয়টি সমাধান করতে না পারলে আমরা পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেব।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক