পুলিশের গাড়ি থেকে নেমে চালককে ‘মারধর’, ফরিদপুরে বাস বন্ধ

ঢাকাসহ ফরিদপুরের বিভিন্ন পথে বাস বন্ধ থাকায় যাত্রীদের চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়তে হয়েছে।

ফরিদপুর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 13 Sept 2022, 07:40 PM
Updated : 13 Sept 2022, 07:40 PM

‘পুলিশের গাড়ি থেকে’ লোক নেমে দুটি বাসের চালক ও একটি বাসের সুপারভাইজারকে লাঠিপেটা করা ও থাপ্পড় মারার প্রতিবাদে ফরিদপুরে বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে শ্রমিকরা।

মঙ্গলবার বিকালে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কে শহরের গোয়ালচামট মহল্লায় ফরিদপুরের নতুন পৌর বাসস্ট্যান্ডের সামনে এ ঘটনা ঘটে বলে শ্রমিকদের অভিযোগ।

ঢাকাসহ ফরিদপুরের বিভিন্ন পথে বাস বন্ধ থাকায় যাত্রীদের চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়তে হয়েছে।

কয়েকজন বাস শ্রমিকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিকাল ৩টার দিকে টেকেরহাট থেকে ফরিদপুর আসা ও বোয়ালমারী থেকে ফরিদপুরে আসা দুটি বাস টার্মিনালে ঢুকছিল। এ সময় সড়কের পাশে ইজিবাইক দাঁড়িয়ে থাকায় যানজটের সৃষ্টি হয়। ওই সময় পুলিশের একটি পিকআপ রাজবাড়ী রাস্তার মোড় থেকে ফরিদপুর শহরের দিকে আসার পথে নতুন বাসস্ট্যান্ড এলাকা অতিক্রম করছিল।

তারা জানান, যানজট সৃষ্টি হওয়ায় পুলিশের ওই গাড়ি থেকে সাদা পোশাকের কয়েকজন পুলিশ সদস্য বের হয়ে প্রথমে বোয়ালমারী থেকে আসা বাসের চালক মো. আমির হোসেনকে (৫০) জানালা দিয়ে লাঠি দিয়ে বাড়ি দেন। ওই চালক গাড়ি বন্ধ করে বের হয়ে এলে তাকে আবার লাঠি দিয়ে পেটানো হয়।

একই সময় সাদা পোশাকধারী ওই পুলিশ সদস্যরা টেকেহাট থেকে আসা বাসের সুপারভাইজার মো. রেজাউল (৩০) ও চালক ঝন্টু খানকে (৪৫) চর থাপ্পর ও ঘুষি মারেন বলেও লোকজন জানান।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এ ঘটনার প্রতিবাদে বাস শ্রমিকরা ফরিদপুর থেকে সকল পথে বাস চলাচল বন্ধ করে দেন। শ্রমিকরা নতুন বাসস্ট্যান্ডের সামনের সড়কে জড়ো হয়ে এ হামলার ঘটনার প্রতিবাদ ও হামলাকারীদের শাস্তির দাবি জানান। এ সময় কিছু সময়ের জন্য ওই সড়কে সকল প্রকাশ যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

তবে ১৫ মিনিট পর বিক্ষোভরত শ্রমিকরা সড়কের পাশে গিয়ে প্রতিবাদ কর্মসূচি অব্যাহত রাখেন।

ফরিদপুর মোটর ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক গোলাম নাসির বলেন, খবর পেয়ে তিনি বাসস্ট্যান্ডে এসে জানতে পারেন পুলিশের একটি গাড়ি থেকে সাদা পোশাকধারী পুলিশ নেমে বাসের দুই চালক ও এক সুপারভাইজারকে মারধর করেছে। এর মধ্যে বাস চালক মো. আমিরকে লাঠি দিয়ে বেদম মারধর করেছে।

তিনি বলেন, “শ্রমিকরা কোন অন্যায় করলে তা নিয়ে আলোচনা হতে পারে, বিচার হতে পারে; কিন্তু শ্রমিকদের অমানবিকভাবে মারপিট করা হয়েছে। এর প্রতিবাদে শ্রমিকরা বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছেন।”

শ্রমিকদের দাবি, সরকারি সিসি ক্যামেরার ভিডিও দেখে পুলিশের গাড়িটি শনাক্ত করে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা না নেওয়া পর্যন্ত তারা বাস চালানো থেকে বিরত থাকবে।

ফরিদপুরের ট্রফিক পুলিশ পরিদর্শক তুহিন লস্কর বলেন, “আমি সিসি ক্যামেরার ফুটেজ চেক করে দেখেছি; সেটি একটি পুলিশের গাড়ি ছিল। তবে রেজিস্ট্রেশনবিহীন পুলিশের ওই গাড়িটি জেলা পুলিশের নয়।”

সেটি হাইওয়ে পুলিশ কিংবা পিবিআই বা অপর কোনো পুলিশ বাহিনীর কিনা তা শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে বলে তিনি জানান।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক