নির্বাচনকে আন্দোলনের অংশ বললেন গাজীপুরে তৃণমূল বিএনপির প্রার্থী

গাজীপুর ১ সংসদীয় এলাকায় তাদের ৫০০ বছরের ভোটব্যাংক আছে বলে দাবি করে ইরাদ আহমেদ।

গাজীপুর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 Nov 2023, 01:34 PM
Updated : 29 Nov 2023, 01:34 PM

নির্বাচনে যাওয়াকে নিজের ও দলের আন্দোলনের অংশ বলে দাবি করেছেন আসন্ন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের গাজীপুর ১ আসনে তৃণমূল বিএনপি থেকে প্রার্থী হওয়া চৌধুরী ইরাদ আহমেদ সিদ্দিকী।

তিনি বলেছেন, “নবগঠিত ’তৃণমূল বিএনপি’ মূল বিএনপির বি-টিম। মূল বিএনপির সঙ্গে আমাদের পার্থক্য হল, তারা দেশনেত্রী শেখ হাসিনাকে বিশ্বাস করে না। আর আমরা এখনো বিশ্বাস করি। আমি ও আমার দল এ নির্বাচনটি করে দেখতে চাই, শেখ হাসিনা একটি সুষ্ঠু নির্বাচন দিয়ে আমাদের সেই বিশ্বাসের মূল্যায়ন করেন কি-না।”

বুধবার বিকালে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিজের মনোনয়ন ফরম জমা দেওয়ার পর জেলা প্রশাসক কার্যালয় চত্বরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

গত ১৫ বছর গাজীপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য এলাকার জনগণের চাহিদা পূরণে ব্যর্থ হয়েছেন দাবি করে তিনি বলেন, “আমি তাদের ইচ্ছা পূরণ করতেও এবার নির্বাচনে অংশ নিয়েছি।”

ইরাদ আহমেদ সিদ্দিকী বলেন, “আমি কালিয়াকৈর বালিয়াদী জমিদার পরিবারের একজন সদস্য। পরিবারটি গত ৪০০ বছর ধরে এ এলাকায় মানুষের সেবা করে আসছে। গণতান্ত্রিক নানা জটিলতার কারণে গত ৩০ বছর এ পরিবারটি জনগণের সেবা দিতে পারেনি; এটা বহিরাগত সন্তানদের হাতে চলে গেছে।”

এ সময় নিজেকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একজন সৈনিক বলে দাবি করেন চৌধুরী ইরাদ আহমেদ।

নিজেকে বিএনপি পরিবারের সন্তান দাবি করে ইরাদ আহমেদ সিদ্দিকী বলেন, “আমার বাবা চৌধুরী তানভীর আহমেদ সিদ্দিকী বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা কোষাধ্যক্ষ এবং গাজীপুর জেলা বিএনপি ও ঢাকা বিভাগের সবচেয়ে প্রবীণ রাজনীতিবিদ। আমি শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আদর্শে লালিতপালিত এবং জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে শহীদ জিয়াউর রহমানের জাতীয়তাবাদের সাথে এক করে জনগণের সেবা করতে চাই।”

গাজীপুর ১ সংসদীয় এলাকায় তার পূর্বপুরুষদের ৫০০ বছরের ভোট ব্যাংক আছে দাবি করে ইরাদ আহমেদ আরও বলেন, “মোগলরা আমাদের এখানে পাঠিয়েছিল জনসেবা করার জন্য, ব্রিটিশরা আমাদের ওপর আস্থা রেখেছে জনসেবা করতে, আমরা পাকিস্তানের জন্য জনসেবা করেছি, আমরা বঙ্গবন্ধুর জন্য জনসেবা করেছি, আমরা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের জন্য জনসেবা করেছি। আমাদের ১০ পুরুষরা এখানে জনসেবা করছি।

‘চেনা বামনের পৈতা লাগে না’ প্রবাদটির কথা উল্লেখ করে ইরাদ আহমেদ আরও বলেন, “গাজীপুর-১ আসনে আমরা চেনা বামন। আমাদের জন্য কোনো পৈতার দরকার হয় না।”