নির্মাণ শেষের আগেই ভেঙে গেল শহীদ মিনার

নাটোরের বাগাতিপাড়ায় একটি বিদ্যালয়ে একটি শহীদ মিনার নির্মাণ শেষ হওয়ার আগেই ভেঙে গেছে।

নাটোর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 5 August 2021, 04:55 PM
Updated : 5 August 2021, 04:55 PM

প্রায় এক মাস আগে শহীদ মিনারটি ভাঙা দেখতে পান বলে যোগীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম নৈশ প্রহরী মিন্টু আলী জানান।

ভাঙার কারণ সঠিকভাবে জানা না গেলেও কেউ বলছে নিম্নমানের কাজের কারণে বৃষ্টিতে ভিজে ভেঙে পড়েছে; আবার স্কুল কর্তৃপক্ষের ভাষ্য স্থানীয় এক মানসিক প্রতিবন্ধী এ কাজ করেছে।

স্কুলটির প্রধান শিক্ষক নিলুফার নার্গিস জানান, ২০১৯-২০ অর্থবছরে রুটিন মেইনটেইনেন্স বাবদ বরাদ্দ করা ৪০ হাজার টাকা ব্যয়ে একটি শহীদ মিনার নির্মাণের কাজ শুরু করা হয়। প্রায় এক বছর আগে স্কুল পরিচালনা কমিটির অধীনে কাজটি করা হয়।

“কাজ শুরুর পর শহীদ মিনারের সিঁড়িসহ তিনটি স্তম্ভ নির্মাণ করা হয়। বেদির অংশে মাটি ভরাট করে রাখা হলেও তাতে ঢালাই বা প্লাস্টারের কাজ অসম্পূর্ণ থাকে। নির্মাণ কাজ শেষ না হতেই মিনারের তিনটি স্তম্ভের মধ্যে দুইটি ভেঙে পড়ে।”

স্থানীয় এক মানসিক প্রতিবন্ধী ব্যক্তি এ কাজ করেছে বলে তার ভাষ্য।

প্রধান শিক্ষক আরও বলেন, বরাদ্দ করা টাকায় কাজটি শেষ করা যায়নি। কাজটি শেষ করতে এখনও দেড় লাখ টাকা দরকার। করোনা পরিস্থিতিতে কাজ স্থগিত আছে।

বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম নৈশ প্রহরী মিন্টু আলী বলেন, মাস খানেক আগে তিনি শহীদ মিনারটি ভাঙা দেখতে পান। বিষয়টি নজরে আসার পরপরই তিনি বিষয়টি প্রধান শিক্ষককে অবহিত করেন।

এ ব্যাপারে স্কুল ব্যবস্থাপনা কমিটির তৎকালীন সভাপতি মাহাবুব আলম বলেন, এক বছর আগে তার দায়িত্বের মেয়াদ শেষ হয়েছে। তিনি দায়িত্ব থাকাকালে শহীদ মিনার নির্মাণ কাজ শুরু হলেও ভাঙার বিষয়ে কিছু জানেন না।

এ বিষয়ে সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার আশরাফুল ইসলাম মন্ডল বলেন, স্থানীয় এক প্রতিবন্ধী ব্যক্তি শহীদ মিনারটি ভেঙে ফেলেছেন বলে স্কুল কর্তৃপক্ষ তাকে জানিয়েছে। তবে মেরামতের কাজ আবার শুরু করতে বলা হয়েছে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক