জেলা পরিষদ ভোট:  পিপি হলে প্রার্থিতার সুযোগ নেই, বাছাইয়ে বাদ

আগামী ১৭ অক্টোবর ৬১ জেলায় হতে যাওয়া এ নির্বাচনে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাছাই হবে রোববার।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 17 Sept 2022, 02:35 PM
Updated : 17 Sept 2022, 02:35 PM

জেলা ও দায়রা জজ আদালতে সরকারের পক্ষে মামলা পরিচালনাকারী পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) লাভজনক পদ বিবেচিত হওয়ায় জেলা পরিষদের নির্বাচনে তারা অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন।

মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের আগে নির্বাচন কমিশন বৃহস্পতিবার রিটার্নিং কর্মকর্তাদের এমন নির্দেশনা দিয়ে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সদস্য ও মহিলা সদস্য পদে কোনো পিপি মনোনয়নপত্র জমা দিলে সেটি বাছাইয়ে বাতিল করতে বলেছে।

ইসি যুগ্ম সচিব ফরহাদ আহম্মদ খান জানান, সম্প্রতি একটি জেলার রিটার্নিং কর্মকর্তা আসন্ন নির্বাচনে পিপিদের অংশ নেওয়ার বিষয়ে করণীয় সম্পর্কে জানতে চান। এ প্রেক্ষিতে মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের আগে আইন শাখা সংশ্লিষ্টদের মতামত নিয়ে সকল রিটার্নিং কর্মকর্তাদের এমন নির্দেশনা পাঠিয়েছে ইসি।

রোববার জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাছাই হবে। আর ১৭ অক্টোবর দেশের ৬১টি জেলা পরিষদে ভোট হবে। 

ইসির নির্দেশনায় বলা হয়, জেলা ও দায়রা জজ আদালতে কর্মরত বিজ্ঞ পিপিকে (পাবলিক প্রসিকিউটর) সংবিধিবদ্ধ সরকারি কর্তৃপক্ষ কর্তৃক নিয়োগ প্রদান করে এবং ওই পদটি লাভজনক পদ হিসেবে বিবেচিত হয়।

"জেলা পরিষদ আইন, ২০০০ এর ৬ (২) (ঙ) ধারার বিধান মোতাবেক প্রজাতন্ত্রের কোনো কর্মে লাভজনক পদে সার্বক্ষণিক অধিষ্ঠিত থেকে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সদস্য ও মহিলা সদস্য নির্বাচিত হওয়া অযোগ্য বলে বিবেচিত হবে। তাই জেলা ও দায়রা জজ আদালতে কর্মরত বিজ্ঞ পিপির স্বীয় পদে থেকে জেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের আইনগত কোনো সুযোগ নেই।"

জেলা পরিষদ নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করছেন জেলা প্রশাসক এবং আপিল কর্তৃপক্ষ হিসেবে নিয়োজিত রয়েছেন সংশ্লিষ্ট অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার।

ইসির ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের বিরুদ্ধে আপিল কর্তৃপক্ষের কাছে আপিল দায়েরের সময় ১৯ থেকে ২১ সেপ্টেম্বর, আপিল নিষ্পত্তি ২২ থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ২৫ সেপ্টেম্বর। প্রতীক বরাদ্দ ২৬ সেপ্টেম্বর।

ইসির নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখা জানিয়েছে, ৬১ জেলায় চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ১৬২ জন যাদের মধ্যে ১৯ জন একক প্রার্থীর বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে।

অপরদিকে সাধারণ সদস্য পদে ১ হাজার ৯৮৩ জন ও সংরক্ষিত সদস্য পদে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৭১৫ জন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক