বৈরিতার দেয়াল ভাঙা পাল উড়িয়ে প্রশংসায় ভাসছেন তারা

ভারত ও পাকিস্তানের দুই তরুণীর নিজ নিজ দেশের পতাকা হাতে পোস্ট করা ছবিতে ফুটে ওঠা বন্ধুত্বের নিদর্শন স্যোশাল মিডিয়ায় মানুষের মন জয় করেছে।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 11 August 2022, 03:03 PM
Updated : 11 August 2022, 03:03 PM

পাকিস্তানি সহপাঠীর সঙ্গে ছবি পোস্ট করেছেন এক ভারতীয় তরুণী। ছবিতে দেখা গেছে, দুই বান্ধবীর হাতেই নিজ নিজ দেশের পতাকা। এ যেন ভারত-পাকিস্তানের বৈরিতার দেয়াল ভাঙা পাল। বন্ধুত্বের এমন নিদর্শন স্যোশাল মিডিয়ায় মানুষের মন জয় করেছে। প্রশংসায় ভাসছেন দুই তরুণী।

দু’জনই পড়ছেন যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড বিজনেস স্কুলে। ভারতীয় তরুণী স্নেহা বিশ্বাস লিখেছেন, পাকিস্তানি বান্ধবীর সঙ্গে বন্ধুত্বের পর সেদেশ সম্পর্কে তার গতানুগতিক ধারণা পাল্টে গেছে।

ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে বৈরিতা চিরন্তন। পাকিস্তানের শিল্পী ও ক্রিকেটারদের ওপর ভারতের নিষেধাজ্ঞা আছে। ওদিকে, পাকিস্তান নিষিদ্ধ করেছে বলিউড চলচ্চিত্র।

এমন বৈরিতার দেয়াল ডিঙিয়ে একতার যে চিত্র ফুটে উঠেছে স্নেহার পোস্ট করা ছবিতে- তা নিয়ে একজনের মন্তব্য, ‘আমরাই আমাদের মাঝে দেয়াল তুলেছি, এই দেয়াল আমাদেরই ভাঙতে হবে।’

আরেকজন আশা প্রকাশ করে লিখেছেন, ভারত আর পাকিস্তানের দুই বান্ধবীর বন্ধুত্ব থাকুক আজীবন; আর তা সীমান্তের এপার-ওপারের নারীদের জন্য পরিবর্তন বয়ে আনুক।

বিবিসি জানায়, স্নেহা বিশ্বাস একজন উদ্যোক্তা। তিনি পোস্টে তার পাকিস্তানি বান্ধবীর সঙ্গে বন্ধুত্বের কাহিনী শেয়ার করলেও তার নাম উল্লেখ করেননি।

লিংকডইনে দেওয়া পোস্টে তিনি লেখেন, ছোট শহরে বেড়ে ওঠায় পাকিস্তান এবং পাকিস্তানিদের সম্পর্কে তার ধারণা ছিল সীমিত। যা জেনেছেন, তার কিছু বই পড়ে আর কিছু গণমাধ্যমের বদৌলতে। সেসবই ছিল ঘৃণায় পরিপূর্ণ।

এরপর হার্ভার্ডে প্রথম দিন পাকিস্তানি ওই তরুণীর সঙ্গে তার দেখা। সে এসেছিল ইসলামাবাদ থেকে। ক্ষণিকের পরিচয়েই হয়ে যায় বন্ধুত্ব। তখন থেকে শুরু করে এখনও ভাল বান্ধবী তারা।

একসঙ্গে চা পান, বিরিয়ানি খাওয়া, আর্থিক মডেল ও কেস স্টাডি প্রস্তুতের মধ্যে দিয়ে নিজেদের সম্পর্কে তারা ভালভাবে জেনেছেন। আবিষ্কার করেছেন একই পটভূমিতে তাদের বড়ে ওঠার বিষয়টি।

বান্ধবী সম্পর্কে স্নেহা লিখেছেন, “রক্ষণশীল পাকিস্তানি পরিবারে জন্মেও বাবা-মায়ের সাহায্য পেয়ে একের পর এক বাধা টপকেছে সে। তার লড়াইয়ের গল্প আমাকে অনুপ্রাণিত করে।”

“আমি উপলব্ধি করেছি, যখন নিজ দেশ, নিজ জাতির জন্য গর্ববোধ থাকে, তখন মানুষের প্রতি ভালোবাসা ভৌগলিক অঞ্চল, সীমানা অতিক্রম করে যায়। দেয়াল, সীমানা, স্থান এসবই মানুষের তৈরি,” লেখেন স্নেহা।

ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে বিভেদের বাঁধ ভাঙার কথাও লেখেন তিনি। তার মতে, কেবল দুটি দেশের মধ্যেই নয়, বরং দুই দেশের ছোট ছোট মেয়েদের মধ্যেও বাঁধ ভেঙে দেওয়া দরকার।”

ভারত এবং পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবসের আগে দিয়ে পোস্ট হওয়া দুই বান্ধবীর ছবি আর তাদের বন্ধুত্বের কাহিনী অন্য অনেকের চেয়েই আলাদা হওয়ায় স্যোশাল মিডিয়ায় সবার নজর কেড়েছে।

দুই দেশ স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করে ১৪ ও ১৫ অগাস্ট। দু’টি দেশের স্বাধীনতার সঙ্গেই জড়িয়ে আছে ১৯৪৭ সালের দেশবিভাগের রক্তাক্ত ইতিহাস, যাকে দুই দেশের মধ্যে শত্রুতার বীজ বপনের অন্যতম কারণ বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক