টাঙ্গাইল শাড়ি আমাদের, কেউ নিতে পারবে না: প্রধানমন্ত্রী

“এটা যে আমাদের, সেটা দেখানোর জন্য আমি কয়েকদিন একটানা শুধু টাঙ্গাইলই পরলাম।”

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
Published : 23 Feb 2024, 10:26 AM
Updated : 23 Feb 2024, 10:26 AM

টাঙ্গাইল শাড়ি বাংলাদেশ না ভারতের পশ্চিমবঙ্গের ভৌগোলিক নির্দেশক বা জিআই পণ্য, এমন বিতর্কের মধ্যে নিজে এই কাপড় টানা কয়েক দিন পরার কথা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা; উদ্দেশ্য এই পণ্যকে নিজেদের হিসাবে ‘দেখানো’। 

শুক্রবার সংবাদ সম্মেলনে নিজের এমন কৌশলী অবস্থানের কথা তুলে ধরেন তিনি বলেন, “এটা যে আমাদের, সেটা দেখানোর জন্য আমি কয়েকদিন একটানা শুধু টাঙ্গাইলই পরলাম যে, এটা আমাদের, কাজেই অন্য কেউ নিতে পারবে না।” 

ভারতের শিল্প মন্ত্রণালয় সম্প্রতি ‘বাংলার টাঙ্গাইল শাড়ি’ বা ‘টাঙ্গাইল শাড়ি অব বেঙ্গল’ নামে একটি শাড়িকে জিআই স্বীকৃতি দেয়। ওয়ার্ল্ড ইন্টেলেকচুয়াল প্রপার্টি অর্গানাইজেশন (ডব্লিউআইপিও) এর কাছ থেকে অনুমোদনও পেয়ে যায় তারা। 

বিষয়টি বাংলাদেশে তীব্র প্রতিক্রিয়ার জন্ম দেয়। টাঙ্গাইল বাংলাদেশের এলাকা এবং টাঙ্গাইল শাড়ি বাংলাদেশের নিজস্ব পণ্য হওয়ার পরও ভারত কীভাবে তা নিজেদের পণ্য হিসেবে জিআই স্বীকৃতি পায়, সেট প্রশ্ন তোলেন শাড়ির ব্যবসায়ী, আইনজ্ঞ ও অধিকার কর্মীরা। 

এরপর বাংলাদেশ সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলো উদ্যোগী হয়। টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসন ৬ ফেব্রুয়ারি টাঙ্গাইল শাড়ির জিআই স্বীকৃতির আবেদন করে। পরে তা অনুমোদন করে গেজেট প্রকাশ করে পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তর।

এরপর ১১ ফেব্রুয়ারি টাঙ্গাইল শাড়ি, নরসিংদীর অমৃত সাগর কলা ও গোপালগঞ্জের রসগোল্লার ভৌগোলিক নির্দেশক বা জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতির সনদ প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করেন শিল্প মন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন ও সচিব জাকিয়া সুলতানা। 

মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনের অভিজ্ঞতা জানাতে শুক্রবার ডাকা সম্মেলনে টাঙ্গাইল শাড়ির স্বত্ব নিয়ে সরকারের উদ্যোগের বিষয়েও প্রশ্ন করা হয় সরকার প্রধানকে। 

জামদানি ও টাঙ্গাইলের মত দেশীয় শাড়ির প্রতি প্রধানমন্ত্রীর অনুরাগের কথা তুলে ধরে ওই সাংবাদিক বলেন, “আমি ধারণা করি, আপনার পরনে এখনো টাঙ্গাইল শাড়ি।” 

তখন তাকে শুধরে দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সংবাদ সম্মেলনের জন্য তিনি গায়ে জড়িয়েছেন গাজীপুরের সফিপুর থেকে সংগ্রহ করা সিফন শাড়ি। হাসতে হাসতে এর নাম তিনি দিয়ে দেন ‘সফিপুর শিফন’। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “এটা আমাদের আনসার-ভিডিপির তৈরি করা। এটার নাম দিলাম সফিপুর শিফন। সবাই ফ্রেঞ্চ শিফনের প্রশংসা করে, এটার নাম দিলাম সফিপুর সিফন। ওরা শাড়ি তৈরি করে, আমি কিনে উপহার দিই। আজকে পরে আসলাম।” 

সফিপুরে আনসার-ভিডিপির একটি অনুষ্ঠানে গিয়ে পরনের শাড়িটি কেনার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, “সফিপুর শিফন… কাজেই এটা বুঝতে হবে, আমি এ দেশের মাটি-মানুষের সাথে আছি। ফ্রান্স থেকে আমি আর পরি না।“ 

টাঙ্গাইল শাড়ি সবসময় পরার কথা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, “পেটেন্ট রাইটসের জন্য আমরা ইতোমধ্যে আবেদন করেছি। আপনারা লক্ষ্য করবেন, কয়দিন আমি সমানতালে টাঙ্গাইল শাড়ি পরলাম এজন্য, যেন দেখাতে পারি- এটা আমাদের।“