চট্টগ্রামের হেলে পড়া ভবনের বাসিন্দাদের শেষ পর্যন্ত সরতেই হল

রাতে জেলা প্রশাসনের একটি দল ওই এলাকা পরিদর্শনে যায়। তারপর তারা পরিবারগুলোকে সরিয়ে দেয়।

চট্টগ্রাম ব্যুরোবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 5 Dec 2023, 03:43 PM
Updated : 5 Dec 2023, 03:43 PM

চট্টগ্রামের পহাড়তলীতে হেলে পড়া তিন তলা ভব্নটিকে ফায়ার  সার্ভিস ও জলাবদ্ধাতা নিরসন প্রকল্পের সংশ্লিষ্টরা ঝুঁকিমুক্ত বলার অল্প সময় পরই সেখানকার বাসিন্দাদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে জেলা প্রশাসনের তদারকিতে।

হেলে পড়া ভবন ছাড়াও তার পাশের আরেকটি ভব্ন ও কয়েকটি আধাপাকা ঘরের বাসিন্দাদেরও সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। সবমিলিয়ে সরিয়ে নেওয়া পরিবারের সংখ্যা ৩০টি। 

এর আগে দুপুরে তিন তলা ভবনটি হেলে পড়ার পর সন্ধ্যা পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিস এবং জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছিলেন ভবনটি ‘ঝুঁকিপূর্ণ নয়’।

পরে রাতে জেলা প্রশাসনের একটি দল ওই এলাকা পরিদর্শনে যায়। তারপর তারা পরিবারগুলোকে সরিয়ে দেয়।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রহমানের নেতৃত্বে পরিদর্শক দলে ছিলেন যান কাট্টলী সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) উমর ফারুক, সিনিয়র সহকারী কমিশনার জামিউল হিকমা সজীব।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেন, “ঘটনা তদন্তে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৭ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের প্রতিনিধি, সিটি করপোরেশনের প্রতিনিধি, সিডিএর প্রতিনিধি, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, ফায়ার সার্ভিসের প্রতিনিধি, পিডব্লিউডি'র প্রতিনিধিকে রাখা হয়েছে।

“কমিটি প্রয়োজনে চট্টগ্রাম প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞদের মতামত গ্রহণ করবে। ৭ দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে। ভবন সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে তারা কথা বলছেন। তারা কালকের মধ্যে ভবন সংশ্লিষ্ট সব তথ্য উপাত্ত যাচাই করবে।”

জানতে চাইলে কাট্টলী সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) উমর ফারুক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “সেখানে খাল খনন করায় ভবনের তিন তলা ভবনটির পিলার দুর্বল হয়ে পড়েছে বলে বাসিন্দারা দাবি করেছেন।

“ভবনটি পাশের একটি ভবনের দিকে হেলে পড়েছে। তিন তলা ভবনটি থেকে ৬টি পরিবার এবং পাশের ভবনটি থেকে একটি পরিবারকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি সেখানকার সেমি পাকা দুটি ঘরের দেয়ালে ফাটল দেখা গেছে। ওই সেমিপাকা ঘরগুলো থেকে আরো ২৩টি পরিবারকে সরানো হয়েছে।”

মঙ্গলবার দুপুরে উত্তর সরাইপাড়ায় গয়না ছড়া খালে পাইলিং এর কাজ চলার সময় মফজল আহমদের মালিকানাধীন তিন তলা ভবনটির নিচ থেকে মাটি সরে যায়। এতে ভবনটি পাশের অন্য একটি তিন তলা ভবনের দিকে হেলে পড়ে।

Also Read: হেলে পড়া ভবনটি ‘ঝুঁকিপূর্ণ নয়’, সরানো হয়নি বাসিন্দাদের

Also Read: চট্টগ্রামে হেলে পড়েছে তিন তলা ভবন

ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেও ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ নয় বলে জানিয়েছিল।

সন্ধ্যায় এ বিষয়ে জলাবদ্ধতা প্রকল্পের পরিচালক সেনাবাহিনীর ৩৪ ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন ব্রিগেডের লে. কর্নেল শাহ আলীও জানিয়েছিলেন, ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ নয়। ভবন মালিকও একই দাবি করেছিলেন।

তবে সন্ধ্যা পর্যন্ত সেখানকার সেমিপাকা কয়েকটি ঘরের দেয়ালে ফাটলের বিষয়টি জানা যায়নি। সেটি জানা যায় জেলা প্রশাসনের পরিদর্শনের পর।