ওয়ার্নার ও ডেভিড ঝড়ের পর স্টার্কের আগুনে পুড়ল উইন্ডিজ

দ্বিতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৩১ রানে হারিয়েছে অস্ট্রেলিয়া।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 7 Oct 2022, 12:15 PM
Updated : 7 Oct 2022, 12:15 PM

শুরুতে উইকেট হারানোর চাপ দলের ওপর পড়তে দিলেন না ডেভিড ওয়ার্নার। নান্দনিক ব্যাটিং উপহার দিয়ে খেললেন পঞ্চাশ ছাড়ানো ইনিংস। মাঝে ব্যাটিং ধসে পড়া অস্ট্রেলিয়া ভালো পুঁজি পেল টিম ডেভিডের ঝড়ে। পরে মিচেল স্টার্কের দুর্দান্ত বোলিংয়ে লড়াইও করতে পারল না ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

ব্রিজবেনে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়ার জয় ৩১ রানে। বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা প্রথম ম্যাচ জিতেছিল ৩ উইকেটে।

৩ ছক্কা ও ১০ চারে ৪১ বলে ৭৫ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলেন ওয়ার্নার। তাণ্ডব চালিয়ে ডেভিড করেন ২০ বলে ৪২, ৩ ছক্কা ও চারটি চারে। অস্ট্রেলিয়া করে ৭ উইকেটে ১৭৮ রান।

নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ করে ৮ উইকেটে ১৪৭। তাদের হয়ে কেউ করতে পারেননি ৩০ রানও।

ক্যারিবিয়ানদের আটকে রাখার পথে বড় অবদান রাখেন স্টার্ক। ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে ২০ রানে ৪ উইকেট নেন এই পেসার। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে তার আগের সেরা ছিল ১১ রানে ৩ উইকেট।

গ্যাবার হালকা ঘাসের উইকেটে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে অস্ট্রেলিয়া দ্বিতীয় ওভারেই হারায় ক্যামেরন গ্রিনকে। ওই ধাক্কা দারুণ ব্যাটিংয়ে সামলে নেন ওয়ার্নার।

অন্য প্রান্তে ব্যাটে-বলে করতেই ধুঁকছিলেন অ্যারন ফিঞ্চ। আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে ওয়ার্নার সচল রাখেন রানের চাকা। ৩০ বলে ১ ছক্কা ও ৮ চারে ফিফটি স্পর্শ করেন বাঁহাতি ওপেনার। ১০ ওভার শেষে অস্ট্রেলিয়ার রান দাঁড়ায় ১ উইকেটে ৮৮।

পরের তিন ওভারে তিন ব্যাটসম্যানকে হারায় অস্ট্রেলিয়া। উইকেটে ফিঞ্চের অস্বস্তির অবসান ঘটান ওবেড ম্যাককয়। ওডিন স্মিথকে পুল করে আকাশে তুলে দেন ওয়ার্নার। ক্যাচ লুফে নেন বোলার নিজেই। রান আউটে কাটা পড়েন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

হুট করে ৫ রানের মধ্যে ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়া অস্ট্রেলিয়াকে কক্ষপথে রাখেন ডেভিড। তার ঝড়ের বড় ঝাপ্টা যায় ম্যাককয়ের ওপর দিয়ে। এই পেসারকে টানা ৪ বলে দুটি করে ছক্কা-চার মারেন তিনি।

ওই ওভারেই এলবিডব্লিউর রিভিউ নিয়ে ডেভিডের তাণ্ডব থামায় সফরকারীরা। ভাঙে ৫৬ রানের জুটি, যেখানে স্টিভেন স্মিথের অবদান স্রেফ ১২।

শেষ দিকে ঝড়ো ব্যাটিংয়ের চাহিদা পূরণ করতে পারেননি স্মিথ ও ম্যাথু ওয়েড। শেষ তিন ওভারে অস্ট্রেলিয়ার রান আসে মাত্র ২১।

রান তাড়ায় চতুর্থ বলে স্টার্ককে ছক্কায় উড়িয়ে ভালো কিছুর আভাস দেন কাইল মেয়ার্স। পরের বলেই লো ফুলটস ডেলিভারিতে তার ফিরতি ক্যাচ নিয়ে শিকার শুরু করেন স্টার্ক।

তৃতীয় ওভারে প্যাট কামিন্সের বলে থার্ডম্যানে জনসন চার্লসের সহজ ক্যাচ ছাড়েন অ্যাডাম জ্যাম্পা। এরপর জমে ওঠে ব্র্যান্ডন কিং ও ২ রানে জীবন পাওয়া চার্লসের জুটি।

গ্রিনকে টানা দুই চার মারেন চার্লস। এই পেসারের পরের ওভারে দুই চারের সঙ্গে এক ছক্কা হাঁকান কিং। ৪১ বলে ৫০ রানের এই জুটি ভাঙেন জ্যাম্পা। এই লেগ স্পিনারকে উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে এসে খেলার চেষ্টায় স্টাম্পড হন কিং (১ ছক্কা ও ৩ চারে ২৩)।

প্রতিপক্ষ অধিনায়ক নিকোলাস পুরানকে টিকতে দেননি স্টার্ক। এক ওভার পর ১ ছক্কা ও ২ চারে ২৯ রান করে চার্লসও বিদায় নেন।

প্রথম দুই ওভারের মতো পরের দুটিও দুই স্পেলে করেন স্টার্ক। এবং প্রতিটিতেই পান একটি করে উইকেট। শেষের দুই ওভারে তিনি ফেরান জেসন হোল্ডার ও ওডিন স্মিথকে।

উইন্ডিজের জয়ের আশা শেষ হয়ে যায় অনেক আগেই। শেষ দিকে আকিল হোসেনের ১ ছক্কা ও ৩ চারে ১৯ বলে ২৫ রান কেবলই ব্যবধান কমায়।

বিশ্বকাপের আগে আরেকটি সিরিজ খেলবে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। আগামী রোববার থেকে শুরু তিন টি-টোয়েন্টির লড়াই।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

অস্ট্রেলিয়া: ২০ ওভারে ১৭৮/৭ (ওয়ার্নার ৭৫, গ্রিন ১, ফিঞ্চ ১৫, স্টিভেন স্মিথ ১৭, ম্যাক্সওয়েল ১, ডেভিড ৪২, ওয়েড ১৬, কামিন্স ১*; মেয়ার্স ২-০-১৯-০, জোসেফ ৪-০-২১-৩, হোল্ডার ৩-০-২৭-০, ম্যাককয় ৩-০-৩৩-২, আকিল ৩-০-২২-০, ওডিন স্মিথ ৩-০-২৪-১, কারিয়াহ ২-০-২৮-০)

ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ২০ ওভারে ১৪৭/৮ (মেয়ার্স ৬, চার্লস ২৯, কিং ২৩, পুরান ২, হোল্ডার ১৬, পাওয়েল ১৮, আকিল ২৫, ওডিন স্মিথ ৪, জোসেফ ১১*, কারিয়াহ ২*; স্টার্ক ৪-০-২০-৪, হেইজেলউড ৪-০-১৯-০, কামিন্স ৪-০-৩২-২, গ্রিন ৪-০-৩৫-১, জ্যাম্পা ৩-০-৩৪-১)

ফল: অস্ট্রেলিয়া ৩১ রানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: ডেভিড ওয়ার্নার

সিরিজ: দুই ম্যাচের ২-০ তে জিতেছে অস্ট্রেলিয়া

ম্যান অব দা সিরিজ: ডেভিড ওয়ার্নার

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক