দুর্নীতির দায়ে সাড়ে ১৭ বছর নিষিদ্ধ রিজওয়ান জাভেদ

ফিক্সিংয়ের চেষ্টাসহ এমিরেটস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) দুর্নীতি বিরোধী পাঁচটি ধারা ভেঙেছেন এই ক্রিকেটার।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 15 Feb 2024, 12:37 PM
Updated : 15 Feb 2024, 12:37 PM

এমিরেটস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) দুর্নীতি বিরোধী আইনের বেশ কয়েকটি ধারা ভেঙে বড় ধরনের শাস্তি পেয়েছেন রিজওয়ান জাভেদ। যুক্তরাজ্যের এই ক্লাব ক্রিকেটারকে সাড়ে ১৭ বছরের জন্য সব ধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। 

বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্তা সংস্থা বৃহস্পতিবার বিজ্ঞপ্তিতে এই শাস্তির ঘোষণা দেয়। যেখানে বলা হয়েছে, ইসিবির ভিন্ন ভিন্ন পাঁচটি ধারা ভাঙার দায়ে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন রিজওয়ান। 

আইসিসির দুর্নীতি দমন ইউনিটের দেওয়া দ্বিতীয় দীর্ঘতম নিষেধাজ্ঞা এটি। এর আগে ২০১৮ সালে জিম্বাবুয়ের ক্রিকেট অফিসিয়াল রাজান নায়ারকে ২০ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করেছিল সংস্থাটি।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে ইসিবি পক্ষ থেকে ক্রিকেটার ও অফিসিয়ালসহ মতো আট জনের বিরুদ্ধে ২০২১ সালের আবু ধাবি টি-টেন লিগে দুর্নীতির অভিযোগ আনে আইসিসি। ওই আট জনের একজন বাংলাদেশের স্পিনিং অলরাউন্ডার নাসির হোসেন। যাকে গত মাসে দুই বছরের নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। এবার বড় শাস্তি পেলেন রিজওয়ান। 

রিজওয়ান অভিযোগের জবাব দিতে ব্যর্থ হলে আইসিসির কোড অফ কন্ডাক্ট কমিটির চেয়ারম্যান মাইকেল জে বেলফ কেসি নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেন। রিজওয়ানের পক্ষ থেকে উত্তর না পাওয়ায় ধরে নেওয়া হয়েছে, আনিত অভিযোগগুলো তিনি স্বীকার করে নিয়েছেন এবং শাস্তি মেনে নিয়েছেন।

রিজওয়ানের বিরুদ্ধে আনিত প্রথম অভিযোগটি ছিল, ২০২১ সালের আবু ধাবি টি-টেন লিগে তিন দফায় ফিক্সিং কিংবা এর জন্য অনুপ্রেরণা যোগানো অথবা প্রভাব ফেলার চেষ্টা করা। এছাড়া, দুর্নীতি করা ওই খেলোয়াড়দের কাজের জন্য অন্যদের পুরস্কৃত করা। 

প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়া কাউকে ফিক্সিং করার জন্য অনুরোধ করা, প্ররোচিত করা, প্রলুব্ধ করা। শুধু তাই নয়, কোন পদ্ধতি বা পন্থায় দুর্নীতি করা হয়েছে তার সম্পূর্ণ বিবরণ তদন্ত করা অফিসারদের না দেওয়া এবং তদন্তে সাহায্য না করা। 

রিজওয়ানের নিষেধাজ্ঞা শুরুর সময় ধরা হয়েছে ২০২৩ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে, যেদিন তাকে সাময়িকভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল।